শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ইত্যাদি ও একজন হানিফ সংকেত

আপডেট : ০৪ জুন ২০২২, ২০:২৬

দর্শক সারিতে লাখো মানুষ, মুগ্ধ হয়ে অনুষ্ঠান দেখছেন সবাই। কাল থেকে কালান্তরে এ অনুষ্ঠানের অনন্য নির্মাণশৈলী মানুষকে কাঁদায়, হাসায় কিংবা ভূমিকা রেখে চলেছে জনসচেতনতায়। এ নির্মাণে বার্তা থাকে ইতিবাচক পরিবর্তনের। ছন্দে ছন্দে মন আনন্দে যিনি এই নির্মাণের রূপকার, তিনি একজন হানিফ সংকেত। ব্যক্তি পরিচয়কে ছাপিয়ে তিনি যেন একটি প্রতিষ্ঠানও বটে। তাঁর দূরদর্শিতা, নিরলস প্রয়াস-সাধনায় জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ইত্যাদি শুরু থেকে আজও মানুষের মনে জায়গা করে আছে। 

যদি কাউকে প্রশ্ন করা হয়, আপনার জানামতে বাংলাদেশের কোন অনুষ্ঠান দর্শক একটানা ক্লান্তিহীন উপভোগ করেন? উত্তরে 'ইত্যাদি' শব্দটাই আসবে। ইত্যাদির বিকল্প ইত্যাদিই, আর কিছু নয়। নির্মাণ গল্পে অসাধারণ এক শৈল্পিক ও সৃজনশীল ধারা রীতিমতো অবাক করে৷ পর্বের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কী এক যাদুর মিল! এজন্যই হয়তো দর্শকমনের মনিকোঠায় একজন হানিফ সংকেত ও তাঁর ইত্যাদি বেঁচে আছে যুগান্তরে। তরুণ প্রজন্মকেও আলোর পথ দেখাতে শত ভালো কাজকে সামনে এনে দেয় ইত্যাদি। 

কৈশোরে পরিবারের সাথে বিটিভির সাদা কালো পর্দায় জনপ্রিয় এ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানটি দেখার জন্য বসে থাকেননি, এমন মানুষের সংখ্যা কমই হবে। ইত্যাদির মাধ্যমে বদলে যাওয়া দুটি গল্পের উদাহরণ দেই। পটুয়াখালীর কলাপাড়ার সোনাতলা গ্রামের দিনমজুর হাসান পারভেজ। একজন শ্রমিক হয়েও তিনি কমিউনিটি পত্রিকা আন্ধারমানিকের সম্পাদক! হাতে লিখেই এ পত্রিকাটি প্রকাশিত হয়, হাসান পারভেজের সম্পাদনায় গ্রামে ছড়ায় গ্রামের ইতিবাচক খবর। প্রান্তিকের এমন গল্পটি স্থান পেয়েছে ইত্যাদিতে, অথচ ফিচার লিখে পাঠানোর পর স্থান মেলেনি গণমাধ্যমের খবরে! ইত্যাদিতে হাসান পারভেজের গল্প উঠে আসলে বদলে যায় তার জীবন। ইত্যাদির মঞ্চে হাসান পারভেজকে সম্মানিত করা হয়, ব্যক্তিগত জীবনে হাতে লেখা পত্রিকা বিক্রি করেও অনেকটা সংসারের ভার সামলান তিনি। 

আরেকটা গল্প পল্লী বিদ্যুতের এক সংযোগকর্মীর। বিদ্যুতের কাজ করতে গিয়েই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে দুই হাত ও দুই পা হারিয়ে পঙ্গু হন মহিউদ্দিন। এতে চাকরি চলে যায় তার। বিষয়টি ইত্যাদির প্রতিবেদনে তুলে ধরেন হানিফ সংকেত। পরে তা নজরে আসে পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের। আর তাতে চাকরি ফেরত পান মহিউদ্দিন। এভাবেই বিভিন্ন গল্পে বদল আনে ইত্যাদি, সমাজ আনে ইতিবাচক প্রভাব। জাদুকরী ছন্দের কথায় এমন বহু মানুষেরই জীবন বদলে দিয়েছেন হানিফ সংকেত।

ইত্যাদির আরেকটি প্রতিবেদন ২০১৯ সালে আলোচনার জন্ম দিয়েছিল। টাঙ্গাইলের প্রত্যন্ত গ্রামে মানবসেবায় অ্যামেরিকান বংশোদ্ভূত ডাক্তার জেসন-মেরিন্ডি দম্পতির চিকিৎসা সেবা প্রদানের চিত্র উঠে আসে। এর আগে ওই হাসপাতালটি গড়ে উঠে নিউজিল্যান্ডের অধিবাসী ৭৪ বছর বয়সী ডাক্তার এড্রিক বেকারের প্রচেষ্টায়। মৃত্যুর আগে তিনি বাংলাদেশী চিকিৎসকদের তার প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বভার গ্রহণ করতে বললেও স্বপ্রণোদিতভাবে কেউই এ হাসপাতালের দায়িত্ব গ্রহণ করেননি। পরে খবর শুনে দায়িত্ব নেন অ্যামেরিকান দম্পতি ডাক্তার জেসন-মেরিন্ডি।  টানা ৩২ বছর চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন ডাক্তার ভাই খ্যাত এড্রিক বেকার। 

১৯৮৯ সালে ফাগুন অডিও ভিশনের প্রযোজনায় শুরু হওয়া বাংলাদেশ টেলিভিশনের এ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানটি চিরজীবী হয়ে থাকবে, এ প্রত্যাশা থাকবে সবার।

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন