বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

কমিউনিটি ট্যুরিজম মডেল পর্যটন সম্ভাবনা বাড়াবে

আলোচনা সভায় বক্তারা

আপডেট : ১৫ জুন ২০২২, ১৯:১৩

বাংলাদেশের পর্যটন খাতকে সামনের দিকে আরও এগিয়ে নিতে বাইরের বিনিয়োগের পাশাপাশি কমিউনিটিভিত্তিক ট্যুরিজমের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। উন্নত নাগরিক আরও পাশাপাশি কমিউনিটি ভিত্তিক ট্যুরিজমে জোর দিলে দেশি-বিদেশি পর্যটকরা নতুন নতুন সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হবে এবং আকর্ষণ বাড়তে থাকবে। এতে করে একদিকে পর্যটন খাত যেমন এগিয়ে যাবে ঠিক তেমনি স্থানীয়রাও আর্থিকসহ আরও নানাভাবে লাভবান হবে।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) সকাল সাড়ে ১১টায় বনানী স্টার টাওয়ারস্থ প্রাইম-এশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আইকিউএসি কনফারেন্স হলে আয়োজিত ‘বাংলাদেশে পর্যটন খাতের সম্ভাবনা: কমিউনিটি ভিত্তিক ট্যুরিজম মডেল কতটুকু কার্যকরী?’ শীর্ষক এক সেমিনার বক্তারা এসব কথা বলেন। ট্যুরিজম লিড ইন্টারন্যাশনাল, যুক্তরাজ্য এবং প্রাইম-এশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট (আইটিএইচএম) যৌথভাবে এই সেমিনারের আয়োজন করে।

সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রাইম-এশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মো. নুরুন্নবী মোল্লার সভাপতিত্বে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কমডোর (অব.) জোবায়ের আহমেদ, এনডিসি, বিএন ও যুক্তরাজ্যের ট্যুরিজম লিড ইন্টারন্যাশনালের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর ফিরোজ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) কাজী এ এস এম আরিফ।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে অনেক ঐতিহাসিক, ধর্মীয় ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন আছে, হাওর আছে। এইসব পর্যটন আকর্ষণের যেন পরিকল্পিত ও সমন্বিত উন্নয়ন হয়, সেজন্য ট্যুরিজম মাস্টার প্ল্যানের সঙ্গে কমিউনিটি ট্যুরিজমের দিকে নজর দেওয়ার তাগিদ দিতে হবে।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড. মো. সাইফুল ইসলাম। মূল প্রবন্ধে তিনি উল্লেখ করেন, বিশ্বব্যাপী পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে আধুনিক কনসেপ্টগুলির মধ্যে কমিউনিটি ট্যুরিজম অন্যতম। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কমিউনিটিভিত্তিক পর্যটন শিল্পের বিকাশে নিত্য নতুন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বাংলাদেশের কয়েকটি জনপদে বিশেষ করে ভাটি অঞ্চল, নদী ও সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চল ও পাহাড়ি এলাকায় এর সম্ভাবনা ব্যাপক।

তিনি আরও বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বর্ণিল সংস্কৃতিকে কাজে লাগিয়ে কমিউনিটি ট্যুরিজম গড়ে উঠলেও বাংলাদেশে এখনও পিছিয়ে। এর ফলে পাহাড়ে বেড়াতে আসা পর্যটকরা স্থানীয় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীগুলোর বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতির সঙ্গে নিবিড়ভাবে পরিচিত হতে পারছে না। ফলে দিনে দিনে স্থানীয় অর্থনীতি ও পর্যটন সম্ভাবনা যেমন পিছিয়ে পড়ছে, তেমনি এ সমস্ত ক্ষুদ্র জাতিসত্তার সঙ্গে সম্প্রীতির সেতুবন্ধন তৈরি হচ্ছে না।

সেমিনারে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন প্রাইম-এশিয়ার আইটিএইচএম ডিপার্টমেন্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন। সেমিনারের শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন অধ্যাপক ড. শুভময় দত্ত।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি