শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

উইন্ডিজকে ১৩ রানের লক্ষ্য দিল বাংলাদেশ

আপডেট : ২৮ জুন ২০২২, ০১:৫৯

ইনিংসে হারের শঙ্কা নিয়ে চতুর্থ দিনে ব্যাটিংয়ে নেমেছিল বাংলাদেশ। তৃতীয় দিনে বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হবার আগে ক্যারিবীয়দের দেয়া ১৭৪ রান থেকে ৪২ রান পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ। খেলা শুরুর পর নুরুল হাসান সোহানের ফিফটিতে ইনিংস পরাজয় এড়িয়ে বাংলাদেশ থামে ১৮৬ রানে। এতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে ১৩ রানের লক্ষ্য দাঁড়ায়।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই তামিম ইকবালকে ফিরিয়ে উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন কেমার রোচ। প্রথম ইনিংসে ১৭৪ রানের লিড নিয়ে অলআউট হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সিরিজ বাঁচাতে বাংলাদেশকে তাই বড় কিছুই করতে হত। আর সেই লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ব্যর্থ হয়ে ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই ফিরলেন তামিম ইকবাল। টেস্টে কেমার রোচের ২৫০তম শিকার তামিম। তামিম ফেরেন মাত্র ৪ রান করে।

তামিম ইকবালকে উইকেটের পেছনে জশুয়া ডা সিলভার গ্লাভসবন্দি করে কেমার রোচ টপকে গেলেন কিংবদন্তি মাইকেল হোল্ডিংকে। এটি তার টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৫০তম উইকেট। ৭৩তম ম্যাচ খেলতে নেমে ষষ্ঠ ক্যারিবীয় বোলার হিসেবে রোচ নিজের ২৫০তম উইকেট তুলে নিলেন। তার আগে আরও পাঁচ ক্যারিবীয় বোলার এই মাইলফলক স্পর্শ করেন। তবে পেসার হিসেবে পঞ্চম ক্যারিবীয় হিসেবে এই মাইলফলক ছুঁয়েছেন তিনি।

এরপর ৭ম ওভারে এসে আরেক ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়কে তুলে নেন রোচ। আউট হওয়ার আগে ২১ বলে ১৩ রান করেন তিনি। দুই ওভার পরে দীর্ঘ আট বছর পর টেস্টে সুযোগ পাওয়া এনামুল হক বিজয় ৭ বলে ৪ রান করে ফিরলে বাংলাদেশ ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে। ইনিংসের ৯ ওভারে মাত্র ৩২ রানেই ৩ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

চতুর্থ উইকেটে লিটন দাসকে সঙ্গে নিয়ে কিছুটা প্রতিরোধের চেষ্টা করেন নাজমুল হোসেন শান্ত। এই জুটি থেকে ২৫ রান তোলেন দুই ব্যাটার। তবে ২০তম ওভারে প্রথম ইনিংসে ফিফটি হাঁকানো লিটন দাস ফেরেন সিলসের বলে এলবিডাব্লিউ হয়ে। এই ইনিংসে মাত্র ১৯ রান করেন লিটন।

এরপর উইকেটে আসেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। পঞ্চম উইকেটে নাজমুল হোসেন শান্তকে নিয়ে বিপর্যয় কাটানোর লড়াইয়ে নামেন সাকিব। তবে ৩০তম ওভারের শেষ বলে নাজমুল হোসেন শান্ত ৯১ বলে ৪২ রান করে আলজারি জোসেপের বলে উইকেটের পেছেন জশুয়া ডা সিলভার গ্লাভসবন্দি হলে ভাঙে এই জুটি। পঞ্চম উইকেট থেকে সাকিব এবং শান্ত তোলেন ৪৭ রান।

শান্ত ফেরার পর বেশি সময় টিকতে পারেননি সাকিবও। ৩৪তম ওভারে জোসেপের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাকিব যখন ফিরছেন তখন বাংলাদেশের স্কোরবোর্ডে রান মাত্র ১১৮। অর্থাৎ ১১৮ রানে ষষ্ঠ উইকেটের পতন ঘটে বাংলাদেশের। আর এতেই ইনিংসসহ হার চোখ রাঙাতে শুরু করে বাংলাদেশকে।

ইত্তেফাক/এসজেড