রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বেনাপোলে জাল ভ্রমণ কর তৈরির সরঞ্জাম জব্দ, আটক ২

আপডেট : ১৬ জুলাই ২০২২, ২১:২৩

বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেক পোস্টের প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল এলাকায় অভিযান চালিয়ে জাল ভ্রমণ কর ছাপা মেশিন ও তার সরঞ্জাম জব্দ করেছে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ। 

শনিবার (১৬ জুলাই) সকালে বেনাপোল পোর্ট এলাকায় শামীম কম্পিউটার হাউজ থেকে জাল ভ্রমণ কর (ট্রাভেল ট্যাক্স) সরবরাহকারী ২ প্রতারককে আটক করে পুলিশ। এছাড়া এ কর্মকাণ্ডে জড়িত ৭ জন পলাতক রয়েছে। 

পলাতক প্রতারক চক্রের সদস্যদের আটকের জোর প্রচেষ্টা চলছে বলে জানিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন ভুঁইয়া বলেন, এ ব্যাপারে আমরা তদন্তে নেমেছি প্রকৃত আসামিদের আইনের আওতায় আনা হবে। তবে এ ঘটনার সাথে অনেক সংস্থার সদস্যরা এবং একটি সিন্ডিকেট জড়িত  আছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি।  

বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্টে ভারতগামী যাত্রীদের বন্দর কর্তৃপক্ষের প্যাসেঞ্জার টার্মিনালে লাইনে দাড় করিয়ে বন্দরে প্রবেশ করার অনুমতি দেন বন্দর কর্তৃপক্ষ। বন্দরের নিয়োজিত আনসার সদস্যরা যাত্রীদের ভ্রমণ কর এবং পোর্ট চার্জ চেকিং করেন। চেকিং এর পরেই যাত্রীদের বন্দরে প্রবেশের অনুমতি দিয়ে থাকেন তারা। তাহলে জাল ভ্রমণ করের ব্যাপারে কি ভূমিকা ছিলো আনসার বা বন্দর কর্তৃপক্ষের এমন অভিযোগ আজিম নামে একজন পাসপোর্ট যাত্রীর। 

লাইনে থাকা ঔ যাত্রী আরও বলেন, আনছার সদস্যরা লাইনে থাকা যাত্রীদের পাশ কাটিয়ে টাকার বিনিময়ে পিছনে থাকা যাত্রীদের দ্রুত ভারতে যাওয়ার ব্যবস্থা করে থাকেন। 

যাত্রীদের এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বেনাপোল বন্দরের উপ-পরিচালক মামুন কবির তরফদার বলেন, আমার আনসাররা পোর্ট চার্জ এবং চেকপোস্ট সোনালী ব্যাংকের ভ্রমণ কর চেক করেন কিন্তু অনলাইনের ভ্রমণ কর চেক করেন না। তবে একটি প্রতারক চক্র যাত্রীদের সঙ্গে প্রতারণা করে ভ্রমণ কর জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে এমন অভিযোগ এ চক্রটি ধরা পড়ার পর জেনেছি। 

বেনাপোল কাস্টমসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা নাজমুল হোসেন জানান, এ চক্রটি খুবই শক্তিশালী তারা বিভিন্ন কৌশলে ভ্রমণ করের সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আসছিলো।

ইত্তেফাক/এমএএম