বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ১ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শোকাবহ আগস্ট ভোলার নয়

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২২, ০২:৫৬

‘আগস্ট’ মানে শোকের মাস। আগস্ট মানে রক্তঝরা মাস। বাঙালি জাতির শোকার্ত ও বেদনাদায়ক মাস আগস্ট। এই আগস্টেই জাতির ইতিহাসে চরম কলঙ্কিত অধ্যায়ের সূচনা ঘটেছিল। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাঙালির জাতীয় জীবনে ঘটে এক নিষ্ঠুর-নির্মম হত্যাকাণ্ড। স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা ও বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কে নিজ বাসায় নৃশংসভাবে হত্যা করে কিছু বিপথগামী সেনাসদস্য। সেদিন ঘাতকের নিষ্ঠুর বুলেটের হাত থেকে রক্ষা পায়নি বঙ্গবন্ধুর ১০ বছরের নিষ্পাপ শিশু রাসেলও।

একটি আধুনিক ও শোষণ-দুর্নীতিমুক্ত রাষ্ট্র গঠনের লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু যখন সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে অগ্রসর হচ্ছিলেন, ঠিক তখনই দেশি-বিদেশি প্রতিক্রিয়াশীল অপশক্তির সহযোগিতায় দেশের অভ্যন্তরে লুকিয়ে থাকা ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠী ১৫ আগস্টে সংঘটিত করে এ পাশবিক হত্যাকাণ্ড। বঙ্গবন্ধুর বাসায় আক্রমণ হয়েছে শুনে সেখানে যাওয়ার জন্য রওনা দেন বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল উদ্দীন আহমদ। তবে ৩২ নম্বরের সামনে পথভ্রষ্ট সেনাকর্মকর্তারা তাকে বাঁধা দেয় ও পরে হত্যা করে। তাছাড়া ঐদিন ৩২ নম্বর বাড়িতে কর্তব্যরত অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারীকেও হত্যা করা হয়। এ হত্যাকাণ্ড বিশ্বের বুকে নিন্দিত ও ঘৃণিত রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্ত হয়ে আছে।

১৫ আগস্ট আমাদের জাতীয় শোক দিবস। সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে হত্যা করার পর বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে নেমে আসে তীব্র শোকের ছায়া এবং ছড়িয়ে যায় ঘৃণার বিষবাষ্প। শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়ে বাঙালি জাতি। সেদিন ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর বড় কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নরপিশাচ খুনীরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি, বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার প্রক্রিয়া বন্ধ করতে ঘৃণ্য ইনডেমনিটি আইন চালু করে। জাতির পিতাকে হত্যা করার মাধ্যমে ঘাতকরা চেয়েছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে নস্যাৎ করে দিতে। বাংলাদেশকে একটি অকার্যকর দেশে পরিণত করতে চেয়েছিল ষড়যন্ত্রকারীরা।

শোকাবহ আগস্ট ভোলার নয় কোনোভাবেই। ১৫ আগস্টে স্বাধীনতার স্থপতি মহান এই নেতার প্রতি হৃদয় নিংড়ানো শ্রদ্ধা নিবেদন করে বাঙালি জাতি। ঘৃণা ও ধিক্কার জানায় নৃশংস হত্যাকারীদের প্রতি। যে মানুষটি আজীবন সংগ্রাম ও বহু ত্যাগ-তিতিক্ষার বিনিময়ে আমাদের মহান স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন, মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় তারই প্রাণ কেড়ে নেয় এ দেশেরই হায়েনার দল! জাতির পিতাকে হত্যা করেছে ঘাতকরা। তবে বাঙালি জাতির কাছ থেকে তাকে আলাদা করতে পারেনি। প্রতিটি বছর বাঙালি জাতি গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে আসছে বঙ্গবন্ধুকে। আপামর বাঙালি আগস্ট মাসব্যাপী শোক ও শ্রদ্ধায় স্মরণ করে বঙ্গবন্ধুকে। এভাবেই বঙ্গবন্ধু থাকবেন প্রতিটি বাঙালির হৃদয়ে।

লেখক: শিক্ষার্থী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

ইত্তেফাক/এসজেড

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন