শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

দক্ষিণাঞ্চলে খাতভিত্তিক উন্নয়নের সম্ভাবনা

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২২, ০৩:৫২

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে বাকি অংশকে সরাসরি সংযুক্ত করেছে পদ্মা বহুমুখী সেতু, যা বাংলাদেশের মানুষের আত্মমর্যাদার প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। যে বাংলাদেশের মানুষকে দুর্নীতিপরায়ণ বলে কালিমালেপনের চেষ্টা চলেছিল, সেই কলঙ্ক থেকে উদ্ধার করে সমগ্র দেশের মানুষ তথা বাংলাদেশকে আত্মমর্যাদায় উদ্ভাসিত করেছেন একমাত্র দূরদর্শী নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা সাহসী ও দৃঢ় মনোবলের ব্যক্তিত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পদ্মা সেতু সমগ্র দেশের সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলাকে সংযুক্ত করার মধ্য দিয়ে পূর্বাপর উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করেছে। একদিকে যেমন খুলনা বিভাগীয় জেলাগুলোর শিল্প, কৃষি, মত্স্য, চালনা সমুদ্রবন্দরসহ খাতভিত্তিক উন্নয়নের সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। তেমনি আর একদিকে সমগ্র বরিশাল বিভাগীয় জেলাগুলোর তথা দক্ষিণাঞ্চলের উন্নয়নে সরাসরি প্রভাব অনুমেয়। দক্ষিণাঞ্চলের প্রান্তিক ও অবহেলিত জেলাগুলোর ওপর খাতভিত্তিক উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় সংযুক্ত হওয়ার সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত খুলে দিয়েছে।

দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, বরগুনা, পিরোজপুর জেলার অবস্থানকে আমলে নিয়ে পদ্মা সেতুর পূর্বাপর প্রভাব বিশ্লেষণটি গুরুত্বপূর্ণ। দক্ষিণাঞ্চলের অবহেলিত জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থানের জন্য শিল্প, তথ্যপ্রযুক্তি, শিক্ষা, বিদ্যুৎ, গ্যাস, পর্যটন, জলবায়ুর নেতিবাচক প্রভাব প্রতিরোধসহ সামগ্রিক বিষয়টি এখন অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে আলোচিত। প্রাসঙ্গিকভাবে বলা প্রয়োজন, বরিশাল বিভাগ তথা সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল দীর্ঘদিন ধরেই অবহেলিত। এই অঞ্চলে একটি সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয় হয়েছে মাত্র ১১ বছর আগে। যদিও শিক্ষাক্ষেত্রে এই অঞ্চলের মানুষের অনন্য অবদান রয়েছে।

এই শিক্ষাক্ষেত্রে বরিশাল অঞ্চলের ঐতিহ্যও দীর্ঘদিনের। তেমনিভাবে শিল্পক্ষেত্রেও বিশেষ কোনো অগ্রগতি নেই। নেই কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য উদ্যোগ। পাশাপাশি সম্ভাবনাময় খাতগুলো পড়ে আছে অবহেলায়। যেমন কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকত, জলপথের সুবিধা, মত্স্য উৎপাদনের সম্ভাবনা, স্থানীয় কাঁচামালনির্ভর কুটিরশিল্প স্থাপন ও সম্প্রসারণের সুবিধাসহ নানা বিষয় অনুপস্থিত। আর সড়ক ও রেলপথের বিষয়টি তো সবার জানা। রেলপথ নেই, সড়কগুলো সরু।

এসব সীমাবদ্ধতার মধ্যেও বিগত ১২ বছরে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, শেখ হাসিনা সেনানিবাস, অনেকগুলো সেতু নির্মাণসহ ফেরিহীন যোগাযোগ কুয়াকাটা পর্যন্ত, পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন, পায়রা সমুদ্রবন্দর স্থাপন, কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকতকে পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা, তথ্যপ্রযুক্তি সম্প্রসারণে বরিশালে হাইটেক পার্ক তৈরি, পিরোজপুরে নতুন বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, পটুয়াখালীতে মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন, ভোলায় গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার ও উত্তোলনসংশ্লিষ্ট নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এবং এগুলো সবই হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী ও সুদূরপ্রসারী চিন্তা ও নেতৃত্বে।

এই প্রাসঙ্গিকতায় আমরা যদি ফিরে দেখি, ২০০৯ সালের পর থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দক্ষিণাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো সেতু, বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল কলেজ, তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে কর্মসংস্থানের (হাইটেক পার্ক স্থাপন) উদ্যোগসহ সবগুলোই দূরদর্শিতার পরিচায়ক। কেননা, পদ্মা সেতুর কাজ শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই এই উদ্যোগগুলো নিয়েছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার দূরদর্শী নেতৃত্বে প্রমাণিত হয়েছে শুধু পদ্মা সেতুর মাধ্যমেই এই অঞ্চলের যোগাযোগব্যবস্থাই নয় বরং পদ্মা সেতুর পূর্বাপর প্রভাব কাজে লাগানোর বিষয়টি।

দেশের সমগ্র অঞ্চলের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত হওয়ার জন্য পদ্মা সেতুর পূর্বাপর প্রভাব দক্ষিণাঞ্চলের আর্থসামাজিক উন্নয়নে তাত্পর্যপূর্ণ করতে দূরদর্শী পদক্ষেপ গ্রহণ। বিস্তারিতভাবে আলোচনা করলে দেখা যায়, পদ্মা সেতু যেমন দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে সহজ যোগাযোগ ও সুবিধা সৃষ্টি করেছে, তেমনিভাবে এই অঞ্চলের সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি পদক্ষেপ, যা দূরদর্শিতার প্রতিফলন। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, শুধু পদ্মা সেতু দিয়ে সহজ যোগাযোগ হলেই সার্বিক উন্নয়ন ঘটবে তা কিন্তু নয়। কেননা, পদ্মা সেতু দিয়ে সহজে দক্ষিণাঞ্চলে এসে কেন উদ্যোক্তাগণ নতুন নতুন উদ্যোগ নেবেন, তার যৌক্তিক অবস্থা তুলে ধরতে হবে বিনিয়োগকারীসহ সব উদ্যোক্তার কাছে। যেমন কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ শিল্পকারখানা স্থাপনের জন্য যেগুলো নিশ্চিত করা প্রয়োজন, তার মধ্যে প্রধান হলো নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ এবং গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করা। শিল্পোদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারীগণ যখন নিশ্চিত হবেন দক্ষিণাঞ্চলে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও গ্যাস সরবরাহ প্রাপ্তির বিষয়টি, তখন সংগত কারণেই তাদের আগ্রহ তৈরি হবে বিনিয়োগ করার জন্য। ফলে নতুন নতুন শিল্পকারখানা ও সেবাপ্রতিষ্ঠান স্থাপনের বিষয়টি গুরুত্ব পাবে।

ঠিক তেমনিভাবে শিক্ষার সম্প্রসারণ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিশেষজ্ঞ রিসোর্স পারসন এবং শিক্ষা সম্পর্কিত রিসোর্স ও তথ্যপ্রযুক্তির সহজলভ্যতাও নিশ্চিত হবে পদ্মা সেতুর মাধ্যমে সহজ ও স্বল্প সময়ে যোগাযোগের কারণে। পাশাপাশি সহজ ও স্বল্প সময়ে সড়ক যোগাযোগের কারণে পর্যটনশিল্প সম্প্রসারিত হবে দক্ষিণাঞ্চলের সমুদ্রসৈকত কুয়াকাটা এবং পশ্চিমাঞ্চলের সুন্দরবনকে আবর্তিত করে। আরেকটি বিষয় :উৎপাদিত শিল্পদ্রব্য (বিশেষ করে গার্মেন্টসে উৎপাদিত পোশাকসামগ্রী) রপ্তানির জন্য আন্তর্জাতিক যোগাযোগে পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দর ব্যবহার সহজলভ্য ও গুরুত্ববহ। এক্ষেত্রে দেখা যায়, দক্ষিণাঞ্চলে ইতিমধ্যে স্থাপিত পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা সমুদ্রবন্দর, কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকত এবং তথ্যপ্রযুক্তির কর্মসংস্থানের জন্য যে হাইটেক পার্ক স্থাপন প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে, তা অত্যন্ত সুদূরপ্রসারি ও দূরদর্শী নেতৃত্বের বহিঃপ্রকাশ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর পূর্বাপর প্রভাব বিবেচনা করে দক্ষিণাঞ্চলে যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছেন, তার সুফল দক্ষিণাঞ্চলবাসী অতি দ্রুতই পাবে বলে অনুমিত হয়। সুতরাং, সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের জন্য ইতিমধ্যে গৃহীত প্রতিটি পদক্ষেপই দূরদর্শী ও সুপরিকল্পিত বলে প্রতীয়মান হয়। প্রাসঙ্গিকভাবে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের আরো দুটি দিক উল্লেখ করা প্রয়োজন, তা হলো সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনৈতিক ও সামাজিক গতিশীলতা।

প্রথমত, পদ্মা সেতুর পূর্বাপর প্রভাবে অর্থনৈতিক গতিশীলতা বহুগুণ বেড়ে যাবে, সেটা যেমন ক্ষুদ্র উৎপাদনকারী—কৃষি, মৎস্যসহ নানা খাতে, তেমনি ক্ষুদ্র ব্যবসা থেকে মাঝারি ও বৃহৎ ব্যবসায় সমান সুযোগ তৈরি হবে, যার সমন্বিত প্রতিফলন দেখা যাবে দ্রুত অর্থনৈতিক গতিশীলতা বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে। দ্বিতীয়ত, পদ্মা সেতুর পূর্বাপর প্রভাবে সহজ যোগাযোগের কারণে দক্ষিণাঞ্চলের আপামর মানুষের সঙ্গে দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মানুষের মধ্যে সহজ সামাজিক যোগাযোগ ও সম্পর্ক তৈরিতে গতি বৃদ্ধি হবে, যার প্রতিফলন হবে দ্রুত সামাজিক গতিশীলতা বৃদ্ধিতে। সুতরাং, অর্থনৈতিক ও সামাজিক গতিশীলতা বৃদ্ধির সমন্বিত প্রভাব সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের উন্নয়নে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে এটা অবধারিত। সবশেষে উল্লিখিত সামগ্রিক আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, দক্ষিণাঞ্চলের বিভাগীয় জেলা বরিশাল হবে বাণিজ্যিক ও শিল্পনগরী। আর সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল হবে উন্নয়ন সম্ভাবনার সূচক, যা সমগ্র বাংলাদেশের উন্নয়নে অবদান রাখবে, সেটা দূরদর্শী নেতৃত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার অনন্য আরেকটি মাইলফলক।

লেখক: উপাচার্য, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

ইত্তেফাক/এসজেড

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

গণপরিবহন নৈরাজ্য ও বর্তমান বাস্তবতা

মূল্যবোধের অবক্ষয় রোধে সুশিক্ষাই একমাত্র উপায়

জ্বালানি ব্যবহারের ভিত্তিতে পরিবহনের জরিপ প্রয়োজন

কাঁচা মরিচের ডাবল সেঞ্চুরি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বাংলাদেশে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও ‘আদিবাসী’ প্রসঙ্গ

হিরোশিমা ও নাগাসাকি ট্র্যাজেডি

চাই মূল্যবোধভিত্তিক নির্মল সমাজ

বরিস জনসন ও রাজনীতিতে তার পরবর্তী পদক্ষেপ কী?