সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বিপিএলে ফিরছে পুরোনো ফ্র্যাঞ্চাইজিরা

আপডেট : ২৪ আগস্ট ২০২২, ০২:৩২

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পরবর্তী তিন আসরের সূচি চূড়ান্ত করেছে বিসিবি। খসড়া সূচি অনুযায়ী আগামী বছর ৫ জানুয়ারি শুরু হবে টুর্নামেন্টের নবম আসর। টুর্নামেন্ট শেষ হবে ১৬ ফেব্রুয়ারি।

বিপিএলের নবম, দশম ও একাদশ আসরের জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজি চেয়ে গত ২ আগস্ট বিজ্ঞাপন দিয়েছে বিসিবি। ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে চুক্তি হবে তিন বছরের জন্য। প্রতিটি আসরেই খেলবে সাত দল। আগ্রহীদের ৩০ আগস্টের মধ্যে বিসিবির কাছে আবেদন জমা দিতে হবে।

জানা গেছে, এবারের আসরে ফ্র্যাঞ্চাইজি হিসেবে ফিরে আসছে স্বনামধন্য করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো। বিশেষ করে বসুন্ধরা গ্রুপ, বেক্সিমকো গ্রুপ আবারও ফ্র্যাঞ্চাইজ কিনতে যাচ্ছে। বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান শেখ সোহেল জানিয়েছেন, অন্তত পাঁচ প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে তাদের আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

ইত্তেফাককে তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত পাঁচটার মতো প্রতিষ্ঠান আগ্রহ দেখিয়েছে। আগের বড় বড় করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো আছে। আরো সময় আছে। আমরা আশা করছি প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সাড়া পাব এবার।’

বিসিবি সূত্রে জানা গেছে, ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অংশগ্রহণ নিয়ে অনিশ্চয়তা নেই। বিপিএলের সবচেয়ে সফল ফ্র্যাঞ্চাইজিটি অচিরেই কাগজপত্র জমা দিবে। বসুন্ধরা গ্রুপের অধীন রংপুর রাইডার্স, আকতার ফার্নিচারের চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স, ফরচুন গ্রুপের ফরচুন বরিশালও অংশ নিবে বিপিএলে। এর বাইরে প্রগতি গ্রুপের মালিকানায় সিলেট সানরাইজার্স অংশ নেওয়ার জন্য প্রস্তুত। রাজশাহী ও খুলনার ফ্র্যাঞ্চাইজির খবর এখনো মিলেনি। নিশ্চিত কিছু জানা যায়নি বেক্সিমকো গ্রুপের ঢাকা ডায়নামাইটসের বিষয়ে। তবে শেষ পর্যন্ত তাদের অংশগ্রহণ থাকার কথা বিপিএলে।

বিসিবিকে দিতে হবে ১০ কোটি টাকা

এবার ফ্র্যাঞ্চাইজি হওয়ার জন্য বিসিবির কোষাগারে প্রতিটি দলকে ১০ কোটি টাকা জমা দিতে হবে। এবং তা টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই। খেলোয়াড়, কোচ, কর্মকর্তাদের পারিশ্রমিক, হোটেল ভাড়াসহ নানাবিধ খরচের জন্য সাড়ে ৮ কোটি টাকা দিতে হবে বিসিবিকে। এর বাইরে ফ্র্যাঞ্চাইজ ফি হিসেবে দেড় কোটি টাকা।

রিটেইনের সুযোগ নেই

নতুন করে দলগুলোর সঙ্গে চুক্তি হবে। বিপিএলই কার্যত নতুন শুরু পাচ্ছে। তাই এবার ক্রিকেটারদের রিটেইন করার কিছু নেই। ড্রাফটের বাইরে থেকে একজন করে স্থানীয় ক্রিকেটার নিতে পারবে দলগুলো। বিদেশি ক্রিকেটার নেওয়া যাবে চার জন। তবে বিদেশি ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে ডিরেক্ট সাইনিংয়ের অর্থ ফ্র্যাঞ্চাইজিকেই পরিশোধ করতে হবে। একাদশে খেলানো যাবে সর্বোচ্চ চার বিদেশি ক্রিকেটার।

ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক

সূত্র জানায়, ড্রাফটের খসড়া অনুযায়ী এবার বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ভাগ করা হচ্ছে সাত ক্যাটাগরিতে। ‘এ’ ক্যাটাগরিতে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক ধরা হচ্ছে ৮০ লাখ টাকা। জানা গেছে, ‘বি’ ক্যাটাগরিতে ৫০ লাখ, ‘সি’ ক্যাটাগরিতে ৩০ লাখ, ‘ডি’ ক্যাটাগরিতে ২০ লাখ, ‘ই’ ক্যাটাগরিতে ১৫ লাখ, ‘এফ’ ক্যাটাগরিতে ১০ লাখ ও ‘জি’ ক্যাটাগরিতে ৫ লাখ টাকা পারিশ্রমিক ধরা হয়েছে।

বিদেশি ক্রিকেটারদের ক্যাটাগরি পাঁচটি। সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক ৮০ হাজার ডলার পাবেন ‘এ’ ক্যাটাগরির ক্রিকেটাররা। ‘বি’ ক্যাটাগরিতে ৬০ হাজার, ‘সি’ ক্যাটাগরিতে ৪০ হাজার, ‘ডি’ ক্যাটাগরিতে ৩০ হাজার, ‘ই’ ক্যাটাগরিতে ২০ হাজার ডলার পারিশ্রমিক ধরা হয়েছে।

ইত্তেফাক/ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন