বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ফুলবাড়ীতে কমলো পেঁয়াজের দাম 

আপডেট : ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:৫৪

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে আমদানিকৃত ভারতীয় পেঁয়াজ প্রকারভেদে ১৭ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।  

শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকালে ফুলবাড়ী পৌরসভার পাইকারি ও খুচরা বাজার ঘুরে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। ভারত থেকে পেঁয়াজের আমদানি স্বাভাবিক থাকাসহ পাইকারি ও খুচরা বাজারে বেচাবিক্রি কমে যাওয়ায় আমদানিকৃত ভারতীয় ও দেশি পেঁয়াজের দাম কমে এসেছে বলে স্থানীয় ব্যবসায়িরা জানিয়েছেন।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম প্রতিকেজিতে প্রকারভেদে ৭ থেকে ৮ টাকা কমেছে। প্রকারভেদে ২৫ থেকে ২৭ টাকার ভারতীয় পেঁয়াজ পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৭ থেকে ২০ টাকা কেজিদরে। পেঁয়াজের দাম কমে আসায় স্বস্তি ফিরেছে সব ধরণের ক্রেতাদের মধ্যে। 

শনিবার সকালে পৌরসভার খুচরা পেঁয়াজের বাজারে বাজার করতে আসা আইয়ুব আলী বলেন, কয়েকদিন আগেই প্রকার ভেদে পেঁয়াজের দাম ছিল ২৫ থেকে ২৭ টাকা। এখন সেই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৭ থেকে ২০ টাকা কেজিদরে।

ফুলবাড়ী বাজারের খুচরা ব্যবসায়ী সুব্রত সরকার বলেন, পাইকারি বাজার থেকে কেনা পেঁয়াজ প্রতিকেজিতে ১-২ টাকা মুনাফা ধরে খুচরা বিক্রি করা হচ্ছে। 

ফুলবাড়ী বাজারের পাইকারি পেঁয়াজ ব্যবসায়ী আবেদ আলী বলেন, পেঁয়াজের আদমানি বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি বর্তমানে বেচাবিক্রি কমে যাওয়ায় পেঁয়াজের দাম কমে গেছে। পাইকারি বাজারে প্রকারভেদে ১৭ থেকে ২০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হচ্ছে। 

হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানি কারক গ্রুপের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হারুন উর রশীদ বলেন, দেশের পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক রাখতে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি স্বাভাবিক রয়েছে। বর্তমানে চাহিদার তুলনায় আমদানি বাড়ার কারণে পেঁয়াজের দাম কমে এসেছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা বাজার মনিটরিং কমিটির সভাপতি মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, পেঁয়াজের দাম কমে আসছে, এটি একটি ভালো সংবাদ। এতে করে স্বস্তিতে ক্রেতারা চাহিদানুযায়ী পেঁয়াজ ক্রয় করতে পারবেন। তবে কোনো নিত্যপণ্য যেন কেউ অযৌক্তিকভাবে বৃদ্ধি করে মুনাফা লুটতে না পারে সেদিকে উপজেলা প্রশাসনের সজাগ দৃষ্টি রয়েছে। 

ইত্তেফাক/এআই