রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ভারতকে হারালেও সতর্ক সাবিনারা

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৫৫

সাফ ওমেন চ্যাম্পিয়নশীপে শক্তিশালী ভারতকে হারিয়েও বেশ সতর্ক থাকতে চায় বাংলাদেশ। আনন্দের আতিশয্যে গা ভাসিয়ে দিতে চান না টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে শুরু করে বাংলাদেশের মেয়েরা। এজন্য ভারতের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম জয় পাবার পরও বিশ্রাম না নিয়ে নিজেদের অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন কোচ গোলাম রব্বানি ছোটনের শিষ্যরা।

বুধবার (১৪ সেপেটেম্বর) আর্মি হেডকোয়ার্টার্স মাঠে অনুশীলনে ঘাম ঝরিয়েছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। টানা পরিশ্রমের পরও বেশ ফুরফুরে মেজাজে আর দ্বিগুন উৎসাহ নিয়েই অনুশীলন করতে দেখা গেছে লাল-সবুজের জার্সিধারীদের,

বাংলাদেশের এবার মূল লক্ষ্য সাফের শিরোপা, তাই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই তৃপ্ত নয় সাবিনা খাতুনের দল। সাফের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারতকে ৩-০ গোলে হারানোর পরও তাই নিজেদের ব্যাপারে বেশ সতর্ক বাঙ্গালদেশ। ফাইনালে হয়তো আবারও বেশি শক্তি নিয়েই বাংলাদেশের পথ রোধ করে দাঁড়াতে পারে উপমহাদেশের শক্তিশালী ভারত। এছাড়া বি-গ্রুপ থেকে শেষ চারে আসন নিশ্চিত করা ভূটানকেও বেশ দক্ষ প্রতিপক্ষ হিসেবেই ভাবা হচ্ছে। সেজন্যই দলের সকলের এতো বেশি সতর্কতা।

আর্মি হেডকোয়ার্টার্স মাঠে অনুশীলনে বাংলাদেশের মেয়েরা। ছবি- বাফুফে

গতকালের অনুশীলন শেষে বাংলাদেশের স্ট্রাইকার সিরাত জাহান স্বপ্না বলেন, ‘ভারতকে হারানোর পর উল্লাস যা করার এখানেই করেছি। হোটেলে যাবার পর ডিনার করেছি এবং অনেকের পায়ে ব্যাথা ছিল, তারা আইস বাথ আর চিকিৎসা নিয়েছে। সব মিলিয়ে এখন আমাদের লক্ষ্য সেমিফাইনালের জন্য প্রস্তুত হওয়া।’

তিনি বলেন, ‘এই মুহুর্তে আমাদের মূল লক্ষ্য ফাইনাল। যেহেতু আমাদের লক্ষ্য ফাইনালে খেলা, তাই সেটি পূরণ করতে হলে অবশ্যই সেমিফাইনালের বাঁধা টপকে যেতে হবে। ভূটানও অনেক ভালো দল। প্রতিপক্ষ কোন দলকেই ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। আগের ম্যাচের মতো ধারাবাহিকতা ধরে রেখেই সেমিফাইনালে খেলতে চাই। আশা করি ভালো একটি খেলা উপহার দিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করতে পারব।’

ভারতকে হারানোর অনুভূতি কিছুটা আলাদা উল্লেখ করে ভারতের জালে দুই গোল দেওয়া স্বপ্না বলেন, ‘ভারত অবশ্যই আমাদের চেয়ে ভালো দল। তারা ৫ বারের চ্যাম্পিয়ন। তাদের বিপক্ষে জয়ের অনুভুতি কেমন হবে তা অবশ্যই বলার অপেক্ষা রাখেনা।’

দলের ডিফেন্ডার শিউলি আজিম বলেন, ‘ম্যাচ জয়ের পর ভিন্ন ভাবে উদযাপনের কারণ হচ্ছে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য আমাদের মধ্যে যে ডিটারমিনেশন ছিল আমরা তা মাঠে প্রমাণ করতে পেরেছি। তবে জয়ের আনন্দ যা করার তা মাঠেই করেছি। আজ(বুধবার) সকাল থেকে আমাদের মধ্যে সেটি আর নেই। এখন থেকে আমাদের পূর্ন মনোযোগ সেমিফাইনালে। ফাইনালে যাবার পথে এটি খুবই গুরুত্বপুর্ন ম্যাচ।’

সেমিফাইনালের প্রতিপক্ষ ভুটানও বেশ শক্ত প্রতিপক্ষ বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যোগ্যাতা দিয়েই তারা শেষ চারে উঠেছে। সুতরাং তাদেরকে খাটো করে দেখার কোন সুযোগ নেই। অবশ্য সেমিফাইনালে আমরা জয়ের জন্যই মাঠে নামব।’

আর্মি হেডকোয়ার্টার্স মাঠে অনুশীলনে বাংলাদেশের মেয়েরা। ছবি- বাফুফে

ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ সেরার পুরস্কার পাওয়া কৃষ্ণা রানী সরকার বলেন, ‘ভারতের সঙ্গে জিতেছি। এতে সবাই খুশী। তবে সামনে দুটি ম্যাচ রয়েছে। সেমিফাইনাল এবং ফাইনাল। এই দুটি জিতে শিরোপা নিয়েই উল্লাস করতে চাই।’

ভারতের বিপক্ষে জয়টিকেও গুরুত্বপূর্ন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আসলে সিনিয়র পর্যায়ে এটাই আমার সেরা ম্যাচ। ভারতের বিপক্ষে জেতা সবচেয়ে বড় অর্জন। একটি ফাইটিং ম্যাচ ছিল। ওই ম্যাচে আমি গোল করতে পেরেছি। সব মিলিয়ে আমার কাছে এই ম্যাচটি এই মুহুর্তে সেরা।’

আর্মি হেডকোয়ার্টার্স মাঠে অনুশীলনে বাংলাদেশের মেয়েরা। ছবি- বাফুফে

কৃষ্ণা আরও জানান, ‘ভারতের বিপক্ষে সিনিয়র বিভাগে আগে আমাদের ৫/৬টি করে গোল হজম করতে হতো। এখন দলে অনেক পরিবর্তন এসেছে। প্রায় ছয় সাত বছর হয়ে গেছে এক সঙ্গে আছি আমরা। ২০১৬ সাল থেকে। তাই স্যার (কোচ) যেটা বলেছেন, সেটাই ঠিক। আমাদের মেয়েদের ফুটবলে দিনবদলের পালা শুরু হয়েছে। যার প্রমাণ ভারতের বিপক্ষের ম্যাচটি।’

ভারতের বিপক্ষে জয়ের কারিগর কৃষ্ণা বলেন, ‘সাফে এই ভারতেকে কেউই হারাতে পারেনি। এর আগে বাংলাদেশ, নেপাল কেউই না। আমরা হারিয়েছি। আমরা যে বিশ্বাস নিয়ে মাঠে নামি এবং যে কঠোর পরিশ্রম করে এসেছি তার প্রমান এটি। এখন যদি সৃস্টিকর্তা সহায় হন তাহলে বাংলাদেশে ট্রফি নিয়ে যাবো আমরা।’

ইত্তেফাক/এসএস