বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

এবার সাবমেরিন থেকে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার প্রস্তুতি উত্তর কোরিয়ার

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:৩২

উত্তর কোরিয়া একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পর এবার সাবমেরিন থেকে এই পরীক্ষা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। সিউলের সামরিক বাহিনী এ সম্পর্কিত কর্মকাণ্ডের উপস্থিতি লক্ষ্য করতে পেরেছে বলে দাবি করেছেন তারা। খবর আল-আরাবিয়া নিউজ ও জাপান টাইমসের। 

আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ কোরিয়া সফরে যাবেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। এর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে দেশটি। কিন্তু এর মধ্যেই উত্তর কোরিয়া থেকে এমন পদক্ষেপের খবর এলো। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক ইওল হ্যারিসের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার বিষয়ের পাশাপাশি অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা করতে প্রস্তুত। তাছাড়া এই সফরে জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের রাষ্ট্রীয় অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যোগ দিতে টোকিওতেও যাবেন কমলা হ্যারিস। 

যুক্তরাষ্ট্রের এক ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ঐ সফরে পারমাণবিক অস্ত্রের পরীক্ষা চালাতে পারে উত্তর কোরিয়া। তারা বলেছেন, এ ধরনের আশঙ্কাকে তারা একেবারেই উড়িয়ে দিচ্ছেন না। কেননা, উত্তর কোরিয়া কোনো কিছুকে পরোয়া না করেই বীরদর্পে নিজেদের এসংক্রান্ত পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে। দেশটি যে তাদের কর্মকাণ্ডের ওপর পুরোপুরি নির্ভরশীল, তা তাদের আগের কার্যকলাপই প্রমাণ করে। গত ৯ সেপ্টেম্বর উত্তর কোরিয়া নিজেদের পারমাণবিক অস্ত্রধারী রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা করে। এ সম্পর্কিত একটি আইনও পাশ করেছে তারা। দেশটির সর্বোচ্চ নেতা কিম জং-উন এই সিদ্ধান্তকে অপরিবর্তনযোগ্য বলে অভিহিত করেছেন। পাশাপাশি পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের বিষয়ে কোনো আলোচনার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন তিনি।

এদিকে মার্কিন প্রশাসনের উত্তর কোরিয়া সম্পর্কে এ ধরনের আশঙ্কার মধ্যেই শুক্রবার দক্ষিণ কোরিয়ায় গেছে একটি মার্কিন বিমানবাহী রণতরি। গত চার বছরের মধ্যে এ ধরনের একটি বিমানবাহী রণতরির এই প্রথম যাত্রা। দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক মহড়ায় অংশ নিতেই এই রণতরি সেখানে যায়। এর সঙ্গে রয়েছে আরো সামরিক নৌযান। উত্তর কোরিয়া বরাবরই এ ধরনের মহড়ার নিন্দা করে আসছে। তারা বলছে, এর মাধ্যমে কোরীয় উপদ্বীপে একধরনের উত্তেজনা সৃষ্টি করা হচ্ছে। দেশটি  বলেছে, এগুলো করার অর্থই হচ্ছে এখানে যুদ্ধের দামামা বাজানো, কিংবা যুদ্ধ করার প্রাক-কৌশল অবলম্বন করা। পিয়ংইয়ং আরও বলেছে, যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া মিলে যা করছে, তা দেশটির শত্রুনীতিকেই প্রকাশ করছে।

 

ইত্তেফাক/ইআ