বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

প্লট হিসেবে বরাদ্দ গৃহায়ণের, মাঠ করতে চায় সিটি করপোরেশন

  • গৃহায়ণ বলছে, এটি কখনো মাঠ ছিল না
  • কাউন্সিলরের নেতৃত্বে এলাকাবাসীর আন্দোলন
আপডেট : ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২০:৪৮

রাজধানীর মিরপুর সেকশন-১১ এর প্যারিস রোডে উন্মুক্ত ৭০ কাঠা জায়গা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ জায়গাটি প্লট হিসেবে বরাদ্দ দিলেও সেখানে এখন মাঠ করার দাবিতে আন্দোলন করছে স্থানীয় কাউন্সিলরের নেতৃত্বে এলাকাবাসী।

জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ বলছে, এটি তাদের অধিগ্রহণ করা জায়গা। এটি কখনো মাঠ ছিল না। তারা নিয়ম অনুযায়ী বরাদ্দ দিয়েছে। অন্যদিকে কাউন্সিলর বলছে, এটি খেলার মাঠ ছিল। 

গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, জায়গাটি ১৯৬০ সালের দিকে অধিগ্রহণ করা হয়। এর পরে এটি বস্তি হিসেবে ছিল। পরে ১৯৯৬ সালে জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ জায়গাটি ৩২ জনকে আবাসিক প্লট হিসেবে বরাদ্দ দেয়। কিন্তু এখানে মালিকরা বাড়ি করতে গেলে বস্তিবাসী মামলা করে। পরে মামলায় প্লট মালিকরা ২০১৭ সালে জয়লাভ করে আদালতের আদেশে বস্তি উচ্ছেদ হলেও তারা সেখানে বাড়ি করতে পারেনি।  

অনশন। ছবি: ইত্তেফাক

প্লট বরাদ্দপ্রাপ্তরা বলছেন, বস্তি উচ্ছেদের পর এখানে ময়লা আবর্জনা ফেলা হতো। এখনো ময়লা আবর্জনা রয়েছে। এটি শুরু থেকে কখনো মাঠ ছিল না। হঠাৎ করেই এটি এখন মাঠ হিসেবে উপস্থাপন করা হচ্ছে।  

প্লট বরাদ্দপ্রাপ্ত একজন ফরিদ উদ্দিন বলেন, আমরা এ জায়গাটির জন্য বহু বছর ধরে খাজনা দিয়ে আসতেছি। বরাদ্দ পাওয়ার পর অনেকবার আমরা এখানে বাড়ি করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু বস্তিবাসী আমাদের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করার কারণে আমরা এখানে যেতে পারিনি। ২০০২ সালে আমাদের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করা হয়। সেই রিটে আমরা ২০১৭ সালে জয় লাভ করি। কিন্তু এর পরেও বার বার আমাদের বাধা দেওয়া হয়েছে এখানে ঘর করতে। 

তিনি আরও বলেন, আমরা এখানে বিল্ডিং করতে মেয়র মহোদয়ের কাছেও আবেদন করেছি, আমার মনে হয় তার কাছে হয়তো সে আবেদন পৌঁছায়নি। নয়তো উনাকে ভুল বুঝানো হয়েছে। কিছু লোকের এখানে স্বার্থ আছে বলেও তিনি দাবি করেন। 

এই জায়গাটি কালার বস্তি নামেও পরিচিত। যে ব্যক্তির নামে এই বস্তির সবাই চেনে তিনি ওয়ার্ড আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম কালা। তিনি বলেন, আমারও এখানে কয়েকটি বস্তি ঘর ছিল। আমি ১৯৮৫ সাল থেকে এখানে বস্তি দেখে আসতেছি। তবে ১৭ সালে এসে এখানে উচ্ছেদ কার্যক্রম চলে। এর পর থেকে এটি উন্মুক্ত জায়গা। 

অনশন। ছবি: ইত্তেফাক

অন্যদিকে গত কয়েকদিন ধরে মাঠ ফেরত চেয়ে মানববন্ধন করছে শিক্ষার্থীরা। স্থানীয় কাউন্সিলর গাজী জহিরুল ইসলাম মানিকের নেতৃত্বে এ বস্তিতে মাঠের দাবিতে গতকালও প্রায় ২০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও এলাকার মানুষকে নিয়ে আন্দোলন করা হয়। এসময় অনেককে মাঠের দাবিতে গণঅনশনে বসতে দেখা গেছে। পরে বৃহস্পতিবার মেয়র আতিকুল ইসলাম প্যারিস রোডে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি জানাতে এসে বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি জাতীয় দলের অনেক খেলোয়াররা এই প্যারিস রোড মাঠে খেলেছে। এই এলাকার অনেক বয়স্ক মানুষ জানিয়েছেন; তারা শৈশবে এই মাঠে খেলেছেন। ড্যাপের নকশায় এটিকে উন্মুক্ত স্থান হিসেবে দেখানো আছে। অথচ জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ এই মাঠকে প্লট আকারে বরাদ্দ দিয়ে দিয়েছে। 

এই উন্মুক্ত স্থানটিকে খেলার মাঠ হিসেবে ডিএনসিসিকে বরাদ্দ দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানিয়ে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ‘ড্যাপের নকশা অনুযায়ী এই উন্মুক্ত স্থানটি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনকে খেলার মাঠ হিসেবে বরাদ্দ দেওয়ার অনুরোধ করছি। বরাদ্দ দেওয়া হলে আমরা একটি আধুনিক খেলার মাঠ নির্মাণ করব। মানুষের হাঁটার জন্য মাঠের চারপাশে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করবো।’ 

অনশনকারীদের সঙ্গে মেয়র আতিকুল ইসলাম। ছবি: ইত্তেফাক

এ বিষয়ে স্থানীয় এক বাসিন্দা স্বাধীন বলেন, 'এক সময় এটা মাঠ ছিল, পরে এই মাঠ বাস্তুহারাদের দ্বারা অবৈধভাবে বেদখল হয়ে যায়। দীর্ঘ সময় বেদখল থাকার পর এই মাঠ উদ্ধার করা হলেও এখন বিভিন্ন মহল আবার এই মাঠ দখল করার পাঁয়তারা করছে। 

এ বিষয়ে কাউন্সিলর গাজী জহিরুল ইসলাম মানিক বলেন, ‘ভূমিদস্যুরা ১৯৯৪ সাল থেকেই শিশু-কিশোরদের খেলাধুলা বঞ্চিত করেছে। এটি অনেক আগে থেকেই মাঠ ছিল। আমিসহ অনেকেই এ মাঠে খেলেছি।’

এ বিষয়ে জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের মিরপুর গৃহসংস্থান বিভাগ-২ নির্বাহী প্রকৌশলী কাওসার মোর্শেদ ইত্তেফাককে বলেন, ‘এটি কখনো মাঠ ছিল না। কগজপত্র অনুযায়ী এটি আমাদের বরাদ্দকৃত জায়গা। চাইলেই তো এ বরাদ্দ বাতিল করা যায় না। কাগজপত্র অনুযায়ী বৈধ বরাদ্দপ্রাপ্ত তারা। মানবিক বিষয়ও তো এখানে গুরুত্বপূর্ণ।’ 

ইত্তেফাক/এএএম