সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

সরব মুনীম, সবার মুনীম

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২২, ১৯:১৩

শান্ত থেকে নিজেকে পরিচালিত করা মানুষের অন্যতম বড় গুণ। এই গুণের ফলে একজন মানুষের ভেতর ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে নেতৃত্বের দক্ষতা। মুনীম ফয়সাল তেমনই একজন। তিনি নিভৃতচারী। নিজে নিভৃতচারী হলেও, নোয়াখালীবাসীর যেকোনো সামাজিক প্রয়োজনে হাজির হন সবার আগে।

নোয়াখালীতে কোনো সামাজিক আন্দোলন হলে, মুনীম ফয়সাল আহবান জানালে সবাই ছুটে আসে। তারা জানে, সচেতন নোয়াখালীবাসীর জন্য নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন লোকটি। রেল আন্দোলন, বাস ভাড়া আন্দোলন, তাসফিয়া হত্যা আন্দোলন ও অনৈতিকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোসহ নিজেদের অধিকার আদায়ে তিনি সরব।

করোনার সময় সামাজিক সংগঠন ‘আমরা গোলাপ’র ব্যানারে চৌমুহনী রেলস্টেশনে চালু করেন লঙ্গরখানা, করোনা মহামারির পুরোটা সময় যেখানে বিনামূল্যে মৌলিক সুবিধা দেওয়া হয়েছে সুবিধাবঞ্চিতদের। এতে তিনি কৃতিত্বের ভার তুলে দিয়েছেন বেগমগঞ্জ উপজেলার সাবেক নির্বাহী অফিসার মাহবুব আলমের ওপর। মুনীম বলেন, ‘স্যারকে ছাড়া যদি এই প্রজেক্ট কল্পনা করি, তা হবে একদম ফাঁকা স্টেশন! উনার অনুপ্রেরণা আমাদের ভীষণভাবে উদ্যমী হতে সহায়তা করেছে। সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ওমর ফারুক বাদশা ভাইয়ের সহযোগিতাও ছিল আন্তরিক।’

মুনীম ফয়সালের হাত ধরে গড়ে ওঠেছে অসংখ্য স্বেচ্ছাসেবক। তরুণদের তিনি প্রবলভাবে উদ্বুদ্ধ করতে পারেন। তিনি মানুষকে পড়তে ভালোবাসেন। গল্প গড়তে ভালোবাসেন। পুরস্কার, প্রচারণা এসবে তার বেজায় আপত্তি। বিনয়ের সঙ্গে এড়িয়ে চলেন। ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘আমরা গোলাপ’ এই বছর পেয়েছে ধ্রুবতারা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড। বলা বাহুল্য, এটি তাদের প্রথম স্বীকৃতি!

মুনীম ফয়সাল বলেন, ‘আমি আসলে নগণ্য। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টাতেই কাজের সফলতা নিহিত। তাই নোয়াখালীর কোনো সমস্যায় এগিয়ে আসতে আমি ভয় পাই না। জানি, আমরা সবাই গোলাপ। গোলাপের সুবাসে সমস্যা নামক দুর্গন্ধগুলো সরে যাবে।’

প্রচার-সর্বস্বতার এই সময়ে এসে এমন নিভৃতচারী মানুষ পাওয়া বিস্ময়কর বটে! অবশ্য, সৃজনশীল মানুষদের ধর্মই বোধহয় এমন, বিস্ময় জাগিয়ে মুগ্ধতা ছড়ানো।

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন