শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ভারতের আদালতে দ্রুত বিচার চান পি কে হালদার

আপডেট : ১৮ নভেম্বর ২০২২, ০১:০০

পশ্চিমবঙ্গে আর্থিক তছরুপের অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে ভারতের আদালতে দ্রুত বিচার প্রক্রিয়া শুরুর আবেদন করলেন প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পি কে হালদার। 

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) তার তরফের আইনজীবী সোমনাথ ঘোষ এই আবেদন করেছেন। বাংলাদেশের এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক জালিয়াতির ঘটনায় অভিযুক্ত এবং পশ্চিমবঙ্গে আর্থিক তছরুপের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া প্রশান্ত কুমার হালদারসহ ছয় জনকে গত ১৩ মে গ্রেফতার করেছিল ভারতের আর্থিক দুর্নীতিসংক্রান্ত তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। সেই মামলায় এদিন পি কে হালদারসহ ছয় জনকে এদিন জেল হেফাজত থেকে কলকাতার নগর দায়রা আদালতের সিবিআই স্পেশাল কক্ষ-৪-এ বিচারক বিদ্যুৎ কুমার রায়ের এজলাসে তোলা হয়। আদালত তাদের ফের ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে।

পি কে হালদার

এদিন আদালতে অভিযুক্তদের তরফে আইনজীবী সোমনাথ ঘোষ বলেন, ইডির তরফে যে ১০০ পাতার নথি দেওয়া হয়েছে তা অস্পষ্ট। ইডি যদি তাদের চার্জশিট এবং অন্যান্য তথ্য প্রমাণের কপি দেয়, তাহলে তারা ট্রায়াল শুরুর আবেদন করতে পারেন। ইডির আইনজীবী অরিজিত চক্রবর্তী জানান, আদালত অনুমতি দিলে চার্জশিটের কপি অভিযুক্তদের আইনজীবীর হাতে তুলে দেবেন। জানা গেছে, পি কে হালদার ভারতের আদালতে দ্রুত ট্রায়াল শুরুর ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। সেই মতোই তার আইনজীবী আদালতে এই আর্জি জানান। সূত্রে খবর, ট্রায়াল শুরু হলে পি কে হালদার জামিনের আবেদন করতে পারবেন। যতক্ষণ না ট্রায়াল শুরু হচ্ছে, ততক্ষণ তাকে জেল হেফাজতেই থাকতে হতে পারে।

পি কে হালদার

প্রসঙ্গত, ইডির তদন্তে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জায়গা থেকে পি কের তিনটি পাসপোর্টসহ ভারতে ৩০০ কোটি রুপির সম্পত্তি, ৮৮টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের হদিস পাওয়া গেছে। পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গে ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দিত ৬০ জনের একটি বেতনভুক দল, মালয়েশিয়ায় সাতটি ফ্ল্যাট, কলকাতাসংলগ্ন রাজারহাট ও নিউ টাউনে রিয়েল এস্টেটে পি কের কোটি কোটি টাকার বিনিয়োগের হদিসও মিলেছে। ভারতের বিভিন্ন জায়গায় অন্তত ৫০টি সম্পত্তির হদিসও মেলে। এরপরই গত ১২ জুলাই ইডি পি কে হালদারসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে ১০০ পাতার চার্জশিট জমা দেয় আদালতে।

ইত্তেফাক/এমএএম