শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ড্রাগ লাইসেন্স ছাড়াই চলছে বেশির ভাগ ফার্মেসি, দেখার কেউ নাই

আপডেট : ২০ নভেম্বর ২০২২, ১৮:৩৮

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে ড্রাগ লাইসেন্স ও ফার্মাসিস্ট ছাড়াই চলছে অধিকাংশ ফার্মেসি। ড্রাগ লাইসেন্স ও ফার্মাসিস্ট ছাড়া ওষুধ বিক্রির ক্ষেত্রে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের কঠোর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না।

অভিযোগ উঠেছে, লাইসেন্সবিহীন এসব ফার্মেসিতে বিক্রি করা হচ্ছে নকল, ভেজাল ও নিম্নমানের ওষুধ। মাঝেমধ্যে ছোটখাটো অস্ত্রোপচারও করা হচ্ছে এসব ফার্মেসিতে। এতে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়েছেন উপজেলাবাসী। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে অবাধে বিক্রি হচ্ছে অবৈধ বিদেশি ওষুধ। এসব ওষুধ বিক্রি করে অতিরিক্ত টাকাও হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হাজীগঞ্জ পৌরসভাসহ ১২টি ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে, হাট-বাজারের আনাচে কানাচে ব্যাঙের ছাতার মতো গজে উঠেছে শতশত ফার্মেসি। এর মধ্যে অনেক ফার্মেসির ড্রাগ লাইসেন্সও নেই।

ফাইল ছবি

নাম প্রকাশ অনিচ্ছুক এক ফার্মেসির মালিক বলেন, ড্রাগ লাইসেন্স পাওয়াটা অনেক কষ্টসাধ্য ব্যাপার। তাই লাইসেন্সের জন্য আবেদন করিনি। লাইসেন্স ছাড়াই ওষুধ বিক্রয় করছি, কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

লাইসেন্সধারী ফার্মেসির মালিকরা জানান, আমাদের দোকানগুলোতে সব সময় ফার্মাসিস্ট থাকে। রেজিস্টার্ড ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন ছাড়া কোনো ওষুধ বিক্রি করা হয় না।

এ বিষয়ে কথা বলতে চাঁদপুর জেলা ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধায়কের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

হাজীগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাশেদুল ইসলাম বলেন, ঔষধ প্রশাসনের দায়িত্ব ফার্মেসিগুলো নজরদারির মধ্যে রাখা। প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে মোবাইল কোর্ট চালানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ইত্তেফাক/আই/পিও