শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২৩, ১৩ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

কী অপেক্ষা করছে আর্জেন্টিনার জন্য

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১০:০২

মেক্সিকোর বিরুদ্ধে ২-০ গোলের জয়ের পর হারানো আত্মবিশ্বাস পুনরুদ্ধার করেছে আর্জেন্টিনা। আজ তাই পুরোনো ছন্দ নিয়ে মাঠে নামতে পারবে লিওনেল মেসির দল। এ ম্যাচেও জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবার সুযোগ নেই আর্জেন্টিনার। সৌদি আরব ম্যাচটি হেরেই আদতে আর্জেন্টিনার বাকি দুটি ম্যাচ কঠিন হয়ে পড়েছিল। মেক্সিকোর সঙ্গে প্রথম ধাপ ভালোভাবেই উতরে গিয়েছে আর্জেন্টিনা। সামনে পোল্যান্ড বাধা। দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে হলে এই ম্যাচটি জিততেই হবে আর্জেন্টিনাকে।

পোল্যান্ডের সবচেয়ে বড় তারকা রবার্ট লেভান্ডভস্কি নিয়ে চিন্তায় ছিল পোল্যান্ড। মেক্সিকোর বিরুদ্ধে গোল পাননি। বার্সেলোনা তারকা নিজের গোলখরা কাটানোটা দীর্ঘায়িত করেননি। সৌদি আরবের বিরুদ্ধে গোল করে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন। সেই ফর্ম তিনি যে আর্জেন্টিনা ম্যাচেও নিয়ে যেতে চাইবেন সেটা বলাই বাহুল্য।

কাতারে বিশ্বকাপের ৩৬ বছরের খরা কাটাতে গিয়েছে আর্জেন্টিনা। যে কোন মূল্যে তারা পোল্যান্ড ম্যাচ জিততে চাইবে সেটা কি আর বলতে! বিশ্বকাপে এই দুই দল খুব বেশি মুখোমুখি হয়নি। দুই বারের দেখায় একটি করে ম্যাচ জিতেছে দুই দল। তাও নিকট অতীতের বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা-পোল্যান্ডের দেখা হয়নি। ৪৪ বছর আগে ১৯৭৮ বিশ্বকাপে পরস্পরের শেষবার দেখা হয়েছিল। সেই ম্যাচটি আর্জেন্টিনা জিতে নিয়েছিল ২-০ গোলে। তার আগে ১৯৭৪ বিশ্বকাপে দুই দলের প্রথম দেখায় পোল্যান্ড জিতেছিল ৩-২ গোলে।

বিশ্বকাপে ল্যাতিন দলগুলোর বিরুদ্ধে সবশেষ তিন ম্যাচে জয় নেই পোল্যান্ডের। এটা নিশ্চয়ই স্বস্তি দেবে আর্জেন্টিনাকে। আবার ইউরোপীয় দলগুলোর বিরুদ্ধে মেসিদের নুয়ে পড়াটা অস্বস্তিতে ফেলবে। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে ইউরোপের দুই দল ক্রোয়েশিয়া ও ফ্রান্সের সঙ্গে পেরে উঠেনি আর্জেন্টিনা। ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে ৩-০ এবং ফ্রান্সের বিরুদ্ধে ৪-৩ গোলে হেরে রাশিয়া বিশ্বকাপ থেকেই বিদায় নিতে হয়েছিল মেসিদের। এবারও গ্রুপ পর্বে শেষ ম্যাচে ইউরোপেরই একটা দল। ভয়টা সেখানেই। যদিও নামডাকে পোল্যান্ড অতটা শক্তিশালী নয়। কিন্তু কাতার বিশ্বকাপে কখন কি ঘটে বলা মুশকিল!

আর্জেন্টিনা-পোল্যান্ড ম্যাচে অপেক্ষাকৃত সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছে পোল্যান্ডই। ম্যাচটি ড্র করতে পারলেই দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠে যাবে পোলিশরা। মেসিদেরও সেই সুযোগ যে একেবারে নেই বলা যাবে না। তখন তাদের নির্ভর করতে হবে অন্য ম্যাচের ফলের ওপর।

আর্জেন্টিনা-পোল্যান্ডের পরিসংখ্যান বলছে, দুই দল একে অপরের থেকে খুব বেশি পিছিয়ে নেই। সব মিলিয়ে দুই দল মুখোমুখি হয় ১১ বার। এর মধ্যে আর্জেন্টিনা ৬ বার এবং পোল্যান্ড ৩টি করে ম্যাচ জিতেছে। বাকি দুটি ম্যাচ ড্র হয়েছে। সবশেষ আর্জেন্টিনা-পোল্যান্ড মুখোমুখি হয় প্রীতি ম্যাচে ২০১১ সালে। সেই ম্যাচে কিন্তু জয় তুলে নিয়েছিল পোল্যান্ডই। পোলিশরা আর্জেন্টিনাকে হারিয়েছিল ২-১ গোলে। তাই আর্জেন্টিনা সতর্ক না হলে ফল উলটেও যেতে পারে!

এদিকে গ্রুপ-সির দ্বিতীয় দল হিসেবে পরের রাউন্ডে যাওয়া এড়াতে হলে পোল্যান্ডকে হারানো ছাড়া উপায় নেই। এই গ্রুপের দ্বিতীয় দলটিকে শেষ ১৬-তে ফ্রান্সের মোকাবিলা করতে হবে। চার বছর আগে এই ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ গোলে পরাজিত হয়ে শেষ ১৬ থেকে বিদায় নিতে হয়েছিল আর্জেন্টিনাকে। শেষ ১৩টি বিশ্বকপের ১২টিতেই নক আউট পর্বে খেলা আর্জেন্টিনা ইউরোপিয়ান কোন দলের বিপক্ষে শেষ দুটি ম্যাচেই পরাজিত হয়েছে। দুটোই ছিল ২০১৮ বিশ্বকাপে। ক্রোয়েশিয়ার কাছে গ্রুপ পর্বে ৩-০ গোলে পরাজয়ের পর শেষ ১৬-তে তারা ফ্রান্সের কাছে পরাজিত হয়। সৌদি আরব যদি মেক্সিকোকে হারাতে ব্যর্থ হয় তবে পোল্যান্ডের বিপক্ষে ড্র করলেই হয়তো স্কালোনির দলের শেষ ১৬ নিশ্চিত হবে।

সম্ভাব্য দল

  • পোল্যান্ড (ফরম্যাশন ৪-৪-২)

সেজেসনি, ক্যাশ, গ্লিক, কিভিওর, বেরেসজিনস্কি, জিলিনস্কি, বিয়েলিক, ক্রাইচোয়াক, ফ্রাঙ্কোস্কি, মিলিক, লেভান্ডভস্কি।

  • আর্জেন্টিনা (ফরম্যাশন ৪-৩-৩)

এমি. মার্টিনেজ, মোলিনা, ওটামেন্ডি, লিসান্দ্রো, তাগলিয়াফিকো, এনজো, পারেদেস, ডিপল, মেসি, লাউতারো, ডি মারিয়া।

 

ইত্তেফাক/ইআ