শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

মাউন্ট সেমেরু আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের পর সতর্কতা জারি

আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:২০

ইন্দোনেশিয়ার সক্রিয় আগ্নেয়গিরি মাউন্ট সেমেরু থেকে গরম ছাই বেরিয়ে আসছে, আকাশ ঢেকে রেখেছে। দেশটির প্রধান দ্বীপ জাভা আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের জন্য সর্বোচ্চ সতর্কতায় রয়েছে। সিএনএনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এই সতর্কতা মানে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। যেকোনো মুহূর্তে উত্তপ্ত লাভা উদগীরণের কারণে মাউন্ট সেমেরুর আশেপাশের গ্রাম থেকে প্রায় দুই হাজার মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। পাহাড় থেকে অন্তত আট কিলোমিটার দূরত্ব বজায় রাখার জন্য জনগণকে অনুরোধ করা হয়েছে।

সতর্কতা মাত্রা তিন থেকে চারে উন্নীত করা হয়েছে। এর অর্থ অগ্ন্যুৎপাত মানুষের ঘরবাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। মাউন্ট সেমেরুতে পূর্ববর্তী আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের কারণে একটি সেতু মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, সেতুটি পুনর্নির্মাণ করা হচ্ছে।

যেকোনো মুহূর্তে উত্তপ্ত লাভা উদগীরণের কারণে মাউন্ট সেমেরুর আশেপাশের গ্রাম থেকে প্রায় দুই হাজার মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আগুন থেকে বের হওয়া ছাই বৃষ্টির পানিতে মিশে আশেপাশের গ্রামগুলোকে কাদায় ঢেকে দিচ্ছে। অন্তত ছয়টি গ্রাম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এক ভিডিওতে দেখা যায়, আকাশ কালো হয়ে গেছে। একটি বিশাল ছাই মেঘ সূর্যকে ঢেকে দিয়েছে।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ৪৬ মিনিটে পূর্ব জাভা প্রদেশের মাউন্ট সেমেরু থেকে অগ্নুৎপাত শুরু হয়। প্রশান্ত মহাসাগরের 'রিং অফ ফায়ার' এ ইন্দোনেশিয়ার অবস্থান। যেখানে টেকটোনিক প্লেটগুলো ক্রমাগত ঘষে যাচ্ছে। ফলে দেশে নিয়মিত আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত হতে দেখা যায়।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ৪৬ মিনিটে পূর্ব জাভা প্রদেশের মাউন্ট সেমেরু থেকে অগ্নুৎপাত শুরু হয়।  

এ অঞ্চলে ভূমিকম্পও খুব নিয়মিত হয়। মাউন্ট সেমেরু 'দ্য গ্রেট মাউন্টেন' নামেও পরিচিত। এটি জাভার সবচেয়ে লম্বা ও সবচেয়ে সক্রিয় আগ্নেয়গিরিগুলোর মধ্যে একটি। এটি সর্বশেষ সক্রিয় হয়েছিল ঠিক এক বছর আগে। যাতে অন্তত ৫০ জন নিহত হয়।

এবার আগ্নেয়গিরিটি সক্রিয় হওয়ার আগে জাভায় কয়েক দফা ভূমিকম্প হয়েছে। সর্বশেষ গতমাসে ভূমিকম্পে তিনশ’র বেশি মানুষ নিহত হন।

ইত্তেফাক/ডিএস