মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

তেঁতুলিয়ায় টানা চারদিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড

আপডেট : ০২ জানুয়ারি ২০২৩, ১৭:৩৩

তেঁতুলিয়ায় পৌষের কুয়াশায় জেঁকে বসেছে শীত। শীতের প্রকোপে যুবুথুবু সাধারণ মানুষ। গত চারদিন ধরেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হচ্ছে এ অঞ্চলে।

সোমবার (২ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, অর্থাৎ গতকালের চেয়ে ১ ডিগ্রি কমেছে। তাপমাত্রা রেকর্ডের বিষয়টি জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ।

শীতে ভোগান্তিতে পড়েছেন কর্মজীবী মানুষেরা। ছবি: ইত্তেফাক

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ১০ ডিগ্রি তাপমাত্রা রেকর্ড দিয়ে শুরু হয়েছে নতুন বছর। গতকালের চেয়ে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় শীতের তীব্রতা বেড়েছে। এ শীতে সড়কে বিভিন্ন যানবাহনকে হেডলাইট জ্বালিয়ে চলতে দেখা গেছে। শীতের তীব্রতার কারণে গ্রামে শহরের হাট-বাজারগুলোতে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করতে দেখা যায়।

স্থানীয়রা জানান, নতুন বছরের শুরুতেই প্রচণ্ড শীয় অনুভূত হচ্ছে। তাপমাত্রা অনেক নিচে নেমে এসেছে। ক'দিন ধরে ঘন কুয়াশা। কনকনে শীতে কাহিল পরিস্থিতি তৈরি করেছে। সন্ধ্যার পর থেকে উত্তরের হিমেল হাওয়ায় শীত নেমে আসে। মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত শীত অনুভূত হয়। দিনেও আগের মতো গরম নেই। বিকেল গড়ালেই ঠাণ্ডা লাগতে শুরু করে।

পৌষের কুয়াশায় জেঁকে বসেছে শীত। ছবি: ইত্তেফাক

হাড়কাঁপানো শীত পড়ায় বিপাকে পড়েছেন বিভিন্ন পেশার খেটে খাওয়া মানুষ। ভোর ৬টা থেকে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত কনকনে শীতের কারণে কাজে যেতে পারছেন না অনেকেই। তবে পেটের তাগিদে কাউকে নদীতে পাথর তুলতে, কাউকে চা-বাগানে, কাউকে দিনমজুরের কাজ করতে যেতে দেখা গেছে।

চা-শ্রমিক বাদল, বাবু ও হায়াত জানান, কয়েকদিন ধরে কনকনে শীত অনুভূত হচ্ছে। সকালে চা-বাগানের পাতা তুলতে গিয়ে হাত-পাতা অবশ হয়ে আসে। তারপরও কাজ করতে হচ্ছে।

পাথর শ্রমিক জমিরন, তাসলিমা ও রমিনাসহ কয়েকজন শ্রমজীবী নারী জানান, তাদের আজানের পরপরই ঘুম থেকে উঠতে হয়। ক'দিন ধরে খুব ঠাণ্ডা। ঘরের মেঝে, আসবাবপত্র সব বরফের মতো লাগে। হাত-পা অবশ হয়ে আসে। তারপরও কাজ শেষ করে পেটের দায়ে পাথরের কাজে যেতে হচ্ছে।

তেঁতুলিয়ায় পৌষের কুয়াশায় জেঁকে বসেছে শীত। ছবি: ইত্তেফাক

এদিকে দিন-রাত তাপমাত্রা দুই রকম থাকায় পাল্লা দিয়ে বাড়ছে শীতজনিত রোগ। জ্বর, সর্দি-কাশি, শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়া, নিউমোনিয়াসহ ঠাণ্ডাজনিত রোগ নিয়ে হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হচ্ছেন রোগীরা। উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত শতাধিক রোগী চিকিৎসা নিতে আসছেন। এদের মধ্যে বেশিরভাগই শিশু।

চিকিৎসকরা বলছেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে রোগীর চাপ বেড়েছে। এমনিতে শীত মৌসুমে আবহাওয়া শুষ্ক থাকায় বাতাসে জীবাণুর পরিমাণ বেড়ে যায়। শীতজনিত রোগ হিসেবে সর্দি-কাশি, শ্বাসকষ্ট বেশি হয়ে থাকে। আর শিশু ও বয়োজ্যেষ্ঠরা শীতজনিত রোগে বেশি আক্রান্ত  হয়। তাই এ সময়টাতে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে পারলে কিছুটা হলেও সুরক্ষা মিলবে।

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ বলেন, তাপমাত্রা অনেকটা কমেছে। সোমবার সকাল ৯টায় তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। গত চারদিন ধরেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হচ্ছে। সামনে তাপমাত্রা আরও নিচের দিকে নামতে পারে।

ইত্তেফাক/এসকে