শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের উপনির্বাচন

প্রার্থীতা ফিরে পেলেন গোপাল, ভোটের মাঠে নতুন মেরুকরণ

আপডেট : ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১৬:০৪

আদালতের আদেশে ঠাকুরগাঁও-৩ (পীরগঞ্জ-রানীশংকৈল) আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী গোপাল চন্দ্র রায় প্রার্থীতা ফিরে পেয়ে নির্বাচনী মাঠে ফিরে এসেছেন। এতে নতুন মেরুকরণ শুরু হয়েছে ভোটের। পাল্টে যেতে শুরু করেছে হিসাব।

প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে টানা ৭ দিন ৫ প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারণা চালালেও ২৩ জানুয়ারি থেকে এ আসনে ৬ প্রার্থীই মাঠের লড়াইয়ে আছেন।

গত ৮ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে ঋণখেলাপির অভিযোগে গোপাল চন্দ্র রায়ের প্রার্থীতা বাতিল হয়। প্রার্থীতা বাতিলের বিরুদ্ধে গোপাল নির্বাচন কমিশন ও হাইকোর্টে রিট করে বিফল হন। অবশেষে সুপ্রিম কোর্টে আপিল আবেদন করে গত ২২ জানুয়ারি তিনি প্রার্থীতা ফিরে পান এবং ২৩ জানুয়ারি তিনি রির্টানিং অফিসারের নিকট থেকে ‘একতারা’ প্রতীক পেয়ে নির্বাচনী লড়াইয়ে আসেন।

গোপাল চন্দ্র রায়ের ‘একতারা’ প্রতীক পাওয়ার বিষয়টি পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার তকদির আলী সরকার নিশ্চিত করেছেন।

পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার তকদির আলী সরকার জানান, এ আসনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ২৪ হাজার ৭৩৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৬৫ হাজার ২৩৫ জন এবং নারী ভোটার ১ লাখ ৫৯ হাজার ৫০৪ জন। ভোট কেন্দ্র ১২৮টি, বুথ ৮০৮টি। এ আসনে ইলেকট্রিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, এবার ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১৪ দল মনোনীত ওয়ার্কার্স পার্টির মো. ইয়াসিন আলী (হাতুড়ি), জাতীয় পার্টির হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদ (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ গোপাল চন্দ্র রায় (একতারা), জাকের পাটির এমদাদুল হক (গোলাপ ফুল), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির শাফি আল আসাদ (আম), বাংলাদেশ ন্যাশনালিষ্ট ফ্রন্টের সিরাজুল ইসলাম (টেলিভিশন)।

ইত্তেফাক/এসকে