বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

রুয়েটের সব অবৈধ নিয়োগ বাতিলের নির্দেশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের

আপডেট : ১১ এপ্রিল ২০২৩, ২১:০৯

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম সেখের মেয়াদে দেওয়া সব অবৈধ নিয়োগ বাতিলের নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে ভবিষ্যতে স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে নিয়োগে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয় এমন কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। গত ৪ এপ্রিল মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের উপসচিব মোছা. রোখছানা বেগম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে রুয়েটের নতুন উপাচার্যকে এসব নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
 
এতে বলা হয়েছে, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেন নিয়োগ ও বোর্ডের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। যাতে যথাযথ আইন অনুসরণ করা হয়নি। তাই আইনের মৌখিক নীতিমালা অনুযায়ী কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে গৃহীত ও সম্পাদিত কার্যক্রম শুরু থেকে বাতিল হিসেবে গণ্য হবে। এ সংক্রান্ত সব নিয়োগ বাতিল করার ব্যবস্থা নিতে হবে। চার শিক্ষকসহ বিভিন্ন পদে লিখিত পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ নিয়ে নিয়োগের সুপারিশ করায় এ সংক্রান্ত সব নিয়োগও বাতিলের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ভবিষ্যতে স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে নিয়োগ এবং আইন অনুযায়ী সিলেকশন বোর্ড গঠন না করাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয় এমন কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। এছাড়া ভবিষ্যতে নিয়োগের ক্ষেত্রে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের সুপারিশ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। চিঠিতে দেওয়া নির্দেশনা বাস্তবায়ন করে তা প্রতিবেদন আকারে মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে বলা হয়েছে।

জানা যায়, ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই ৪ বছরের জন্য রুয়েটের উপাচার্য পদে নিয়োগ পান বিশ্ববিদ্যালয়টির ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম সেখ। নিয়োগ পাওয়ার পরের বছর রুয়েটে বিভিন্ন পদে ১৩৫ জনকে নিয়োগ দেন। আর নিয়োগের অনুমোদন দেওয়া হয় গত বছরের ৪ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯২তম সিন্ডিকেট সভায়। 

নিয়োগ অনুমোদনের পর অভিযোগ ওঠে, উপাচার্য স্বজনপ্রীতির আশ্রয় নিয়ে তার ভাই মো. মুকুল হোসেনকে ‘সেকশন অফিসার’ ও আরেক ভাই লেবারুল ইসলামকে ‘জুনিয়র সেকশন অফিসার’ ও শ্যালক সোহেল আহমেদকে ‘পিএ টু ডিরেক্টর’, চাচাতো বোন মাছুমা খাতুনকে ‘ডেটা এন্ট্রি অপারেটর’, গৃহকর্মী লাভলী আরাকে ‘অ্যাসিস্ট্যান্ট কুক’, গৃহকর্মী লাভলীর স্বামী এনামুল হককে ‘উপাচার্যের গাড়িচালক’ ও স্ত্রীর ফুফাতো ভাই মেহেদী হাসানকে ‘কেয়ারটেকার’ পদে নিয়োগ দেন। এছাড়া পদের চেয়ে বেশি জনবল নিয়োগ দেয়ারও অভিযোগ ওঠে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ২০ মার্চ অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। ঘটনা অনুসন্ধানে তদন্তের দায়িত্ব পড়ে ইউজিসির ওপর। স্বজনপ্রীতির অভিযোগের তদন্তে করতে গিয়ে কেঁচো খুঁড়তে সাপ বের হওয়ার মতো অবস্থা দেখতে পায় ইউজিসির তদন্ত কমিটি। কমিটির প্রতিবেদনে গোটা নিয়োগ কার্যক্রমের বৈধতা নিয়েই প্রশ্ন তোলা হয়েছে। অবৈধভাবে রেজিস্ট্রার নিয়োগ দেওয়ার বাইরেও আরও বেশকিছু অনিয়মের প্রমাণ পেয়েছে ইউজিসি। 

তদন্ত প্রতিবেদন মতে, উপাচার্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও এমপিকিউর বাইরে গিয়ে অনেককে নিয়োগ দিয়েছেন। নিয়োগপত্র ইস্যু করার সময় যে রেজিস্ট্রারে তথ্য সংরক্ষণের কথা, সেখানে নিয়োগপ্রাপ্তদের কোনো নাম বা পরিচয় উল্লেখ করা হয়নি। এছাড়া যে সিন্ডিকেট সভায় নিয়োগের অনুমোদন দেওয়া, সভার কার্যবিবরণী জানানো ও অনুমোদনের কথা থাকলেও সেটি করা হয়নি। বরং এক বছর পরে কয়েকটি সিন্ডিকেট সভার পর সেটি সিন্ডিকেট সদস্যদের জানানো হয়। এছাড়া নিয়োগের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় নানা ধরনের ঘষামাজা ও অসঙ্গতি ওঠে আসে ওই প্রতিবেদনে।

নিয়োগ কার্যক্রমে ওঠে আসা এসব অনিয়মের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিভিন্ন সুপারিশ তুলে ধরা হয়েছে ইউজিসির তদন্ত প্রতিবেদনে। এর মধ্যে উপাচার্যসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। অনিয়মে জড়িত থাকায় রুয়েটের রেজিস্ট্রারকে অব্যাহতি প্রদানের সুপারিশ করা হয়।

ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘উপাচার্যের কর্তব্য হলো বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন, সংবিধি ও বিধানের সংরক্ষণ ও প্রয়োগ নিশ্চিত করা। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে কঠিন হলেও এমন সংকল্পে দৃঢ় থাকতে হয় উপাচার্যদের। তাহলে কোনো ধরনের অনিয়ম হওয়ার সুযোগ থাকে না।

ইত্তেফাক/এবি/পিও