রোববার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ছাদকৃষি ও বাগানেও মিলবে ঋণ

কৃষিঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ৩৫ হাজার কোটি টাকা

আপডেট : ০৭ আগস্ট ২০২৩, ০৩:০০

চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে কৃষি ও পল্লিঋণ বিতরণের লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে ৩৫ হাজার কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংক গত অর্থবছরের চেয়ে এবার ঋণের পরিমাণ ১৩ দশমিক ৬০ শতাংশ বেশি নির্ধারণ করেছে। গত অর্থবছর কৃষিঋণের লক্ষ্য ছিল ৩০ হাজার ৮১১ কোটি টাকা।

রোববার নতুন অর্থবছরের জন্য কৃষি ও পল্লিঋণের ক্ষেত্রে এ নীতিমালা এবং কর্মসূচি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করে বাংলাদেশ ব্যাংকের কৃষিঋণ বিভাগ।

এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এ কে এম সাজেদুর রহমান খান, কৃষিঋণ বিভাগের পরিচালক কানিজ ফাতেমা, পরিচালক দেবাশীষ সরকারসহ বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।

চলতি অর্থবছরে কৃষি ও পল্লিঋণের চাহিদা বিবেচনায় মোট লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ও বিশেষায়িত ব্যাংকগুলো ১২ হাজার ৩০ কোটি টাকা বিতরণের লক্ষ্য নির্ধারণ করে। বেসরকারি খাতের ব্যাংকগুলো ২১ হাজার ৯২৩ কোটি টাকা এবং কৃষি ও বিদেশি বাণিজ্যিক ব্যাংক ১ হাজার ৪৭ কোটি টাকা ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে।

সদ্য সমাপ্ত ২০২২-২৩ অর্থবছরে ব্যাংকগুলো মোট ৩২ হাজার ৮৩০ কোটি টাকা কৃষি ও পল্লিঋণ বিতরণ করেছে। যা ছিল অর্থবছরের মোট লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১০৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

গত অর্থবছরে মোট ৩৩ লাখ ৪ হাজার ৮১১ জন কৃষি ও পল্লিঋণ পেয়েছেন। এরমধ্যে ব্যাংকগুলোর নিজস্ব নেটওয়ার্ক ও এমএফআই লিংকেজের মাধ্যমে ঋণ পেয়েছেন ৩৬ লাখ ১৮ হাজার ৫৪৫ জন। যেখানে ১৮ লাখ ৮১ হাজার ৯৩৩ জন নারী ১২ হাজার ৭৫২ কোটি টাকার কৃষিঋণ পেয়েছেন।

সদ্য বিদায়ি অর্থবছরে ২৭ লাখ ৩৬ হাজার ৮৭ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষি বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ পেয়েছেন ২২ হাজার ৪০২ কোটি টাকা। আর চর ও হাওর প্রভৃতি অনগ্রসর এলাকার ৩ হাজার ৪৪৯ জন কৃষক পেয়েছেন ১৮ কোটি টাকা।

ঘোষিত ২০২৩-২৪ অর্থবছরের কৃষি ও পল্লিঋণ নীতিমালায় নতুন করে কয়েকটি বিষয় যুক্ত করা হয়েছে। ব্যাংকের নিজস্ব নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ লক্ষ্যমাত্রার ন্যূনতম ৫০ শতাংশ হতে হবে, আগে যা ছিল ৩০ শতাংশ। নতুন কৃষকদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঋণ বিতরণ করতে হবে। পল্লি অঞ্চলে আয়-উত্সারী কর্মকাণ্ডে ঋণের সীমা ৫ লাখ টাকা। ছাদ কৃষি অর্থাৎ বাড়ির ছাদে বাগান করতেও ঋণ পাবেন গ্রাহক। 

এছাড়া চিংড়ি, কাঁকড়া ও কুচিয়া চাষে ঋণ বিতরণ করতে হবে ব্যাংকগুলোকে। মৎস্য খাতে লক্ষ্যমাত্রার ন্যূনতম ১৩ শতাংশ এবং প্রাণিসম্পদ খাতে লক্ষ্যমাত্রার ন্যূনতম ১৫ শতাংশ ঋণ বিতরণ করতে হবে দেশের ব্যাংকগুলোকে।

ইত্তেফাক/এমএএম