বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

আজকের ভূমিকম্প আগামীর সতর্কবার্তা

ভূমিকম্প একটি মহাদুর্যোগ

আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৫:৩০

প্রাকৃতিক দুর্যোগগুলোর মধ্যে ভূমিকম্প একটি বিভীষিকাময় মহাদুর্যোগ। ভূমিকম্প কোনো ধরনের পূর্বাভাস না দিয়েই আঘাত হানে। ঘূর্ণিঝড?, জলোচ্ছ্বাস কিংবা বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে হুঁশিয়ারি সংকেত পেলেও অথবা নিরাপদে সরে যাওয়ার সুযোগ হলেও ভূমিকম্প থেকে রক্ষা পেতে এ ধরনের কোনো সুযোগ পায় না মানুষ। কারণ বিজ্ঞান ভূমিকম্প বা এই দুর্যোগের কাছে খুবই অসহায়। আগাম সতর্কবার্তা জানানোর উপায় এখনো খুঁজে পায়নি বিজ্ঞান। অবশ্য বিজ্ঞানীরাও বসে নেই, প্রতিনিয়তই গবেষণা করে যাচ্ছেন, কীভাবে ভূমিকম্পের পূর্বাভাস মানুষকে জানানো যায়, সেই চেষ্টাই করছেন তারা। যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা সেক্ষেত্রে সামান্য সফলও হয়েছেন। তারা সেলফোনের মাধ্যমে ভূমিকম্পের আগাম সতর্কীকরণের কিছুটা উপায় বের করতে পেরেছেন। তবে সেটি তেমন একটা কার্যকর ব্যবস্থা নয়; মাত্র ৮০ সেকেন্ড আগে জানা যাবে। তবু সেটি একটি আশার বিষয়। হয়তো একদিন সেটি ৮০ মিনিটেও দাঁড়াতে পারে। সেসব অবশ্য ভবিষ্যতের কথা। বর্তমানে এই দুর্যোগ থেকে নিস্তার পাওয়ার অন্য কোনো উপায় নেই বলা চলে। যে কোনো সময় ভূঅভ্যন্তরে কম্পনের সৃষ্টি হলেই প্রলয়কাণ্ড ঘটে যেতে পারে ভূপৃষ্ঠে।

ভূমিকম্প বিভিন্ন মাত্রার হয়। ধ্বংসলীলা ও দুর্যোগশক্তির পরিমাপ বোঝাতে রিখটার স্কেলের মাত্রা ব্যবহার করা হয় ভূমিকম্পের ক্ষেত্রে; যেমন ১ থেকে ১০ হচ্ছে রিখটার স্কেলের মাত্রা। রিখটার স্কেলের মাত্রা পাঁচের ওপরে গেলেই সেটাকে ভারী ভূমিকম্প বলা হয়। এভাবে একেক মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার মানেই হচ্ছে ১০ থেকে ৩২ গুণ শক্তি বৃদ্ধি পাওয়া; যেমন, ভূমিকম্পের মাত্রা ৫ থেকে ৫.৯৯ হচ্ছে মাঝারি, ৬ থেকে ৬.৯৯ তীব্র, ৭ থেকে ৭.৯৯ ভয়াবহ, আটের ওপরে মহাদুর্যোগ। এই হচ্ছে রিখটার স্কেলের হিসেব। রিখটার স্কেলের হিসেব ছাড়াও ভূমিকম্প ছোট, মাঝারি ও বড? ধরনের আখ্যা দিয়ে? থাকে অনেকেই। ভূমিকম্পের ধরন যেমনই হোক না কেন, মূলত সব ধরনের ভূমিকম্পই বিপজ্জনক। তবে ছোট ধরনের ভূমিকম্প তেমন বিপজ্জনক না হলেও মাঝারি ধরনের ভূমিকম্পের তাণ্ডবে ঘরবাড়ি? ভেঙে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট হয় এবং গ্যাসলাইন ভেঙে তছনছ হওয়ার পাশাপাশি জনপদে আগুন লেগে যায় অনেক সময়। আর বড? ধরনের ভূমিকম্প হলে তো কথাই নেই, ভয়ংকর বিভীষিকা নেমে আসে ঐ জনপদে। সেটি যদি সমুদ্রের তলদেশে ঘটে, তাহলেও রক্ষা নেই। জলোচ্ছ্বাসের প্রকোপে উপকূল প্লাবিত হয়ে? হাজার-লাখ প্রাণের বিনাশ ঘটায়। যেমন ২৬ ডিসেম্বর ২০০৪ সালে ভারত মহাসাগরের ৩০ কিলোমিটার গভীরে যে ভূকম্পন ঘটে, তাতে ১৪টি দেশের প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার মানুষ মারা যায়। ঐ ভূমিকম্প বিশ্বে ‘সুনামি’ নামে পরিচিতি পায়; যার পরিমাপ ছিল ৯.১ থেকে ৯.৩ মাত্রার রিখটার স্কেল। পৃথিবীর ইতিহাসে এই ভূমিকম্প দীর্ঘতম সময়ের ছিল; প্রায় ৮.৩ থেকে ১০ মিনিট এর স্থায়িত্ব ছিল। অন্যদিকে ১১ মার্চ ২০০৯ সালে জাপানে কয়েক সেকেন্ড স্থায়িত্ব্বের বড? ধরনের ভূমিকম্প আঘাত হানে, যার পরিমাপ ৮.৯ রিখটার স্কেল। ঐ ভূমিকম্পের ফলে ঐ তারিখের দিনের দৈর্ঘ্য ১.৮ মাইক্রো সেকেন্ড হ্রাস পেয়েছিল। তবে পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে বড? ধরনের ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে ১৯৬০ সালে চিলিতে। রিখটার স্কেলে ঐ ভূমিকম্পের মাত্রা ৯.৫ রেকর্ড করা হয়েছিল, যার ফলে চিলিতে বিভীষিকাময় মহাদুর্যোগ নেমে আসে এবং ঘরবাড়ি? ধ্বংসের পাশাপাশি অসংখ্য মানুষ প্রাণ হারায়। তারপর থেকে চিলি সরকার যে কোনো স্থাপনার অনুমোদনের ক্ষেত্রে কঠোর নীতিমালা প্রণয়ন করে। চিলিতে বিল্ডিং কোড বাধ্যতামূলক করাতে পরবর্তী সময়ে? এর সুফলও পেয়েছে দেশটি। দেখা গেছে, আট মাত্রার ভূমিকম্পেও দেশটির তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। মোটামুটি এই হচ্ছে জলে-স্থলে আঘাত হানা তিনটি বড? ধরনের ভূমিকম্পের পরিণাম। এছাড়া বড? ধরনের আরো কয়েকটি ভূমিকম্প বিশ্বে আঘাত হেনেছিল, যার ফলে জনপদ বিধ্বস্ত হওয়ার পাশাপাশি লাখ-লাখ প্রাণের সমাধি ঘটেছিল যুগে যুগে। সুতরাং বলা যায়, ভূমিকম্প অন্যান্য দুর্যোগের চেয়েও ভয়াবহ একটি দুর্যোগ। কারণ এই দুর্যোগ শুধু মানুষ বা অন্যান্য প্রাণীর প্রাণই কেড়ে? নেয় না, যে কোনো জনপদকেও বিলীন করে দেয়। অর্থাত্, সভ্যতাকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার বড? ধরনের ক্ষেত্রই হচ্ছে ভূমিকম্প। ভূমিকম্প নিয়ে অনেক মিথও আছে। অনেকের ধারণা, মানুষের অধিক পাপের কারণে সৃষ্টিকর্তা অসন্তুষ্ট হয়ে শাস্তিস্বরূপ ভূমিকম্প প্রদান করেন। আসলে এ ধরনের কিছুই নয়; এটি শুধু পৃথিবীতেই নয়, অন্যান্য গ্রহেও আঘাত হানে। ভূঅভ্যন্তরে টেকটোনিক প্লেটের ওঠানামার কারণই হচ্ছে ভূকম্পন বা ভূমিকম্প। এছাড়া আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণ, শিলাচ্যুতি, তাপ বিকিরণের কারণেও ভূমিকম্প হয়। তবে সেই ধরনের ভূমিকম্প টেকটোনিক প্লেটের ওঠানামার মতো অতটা ভয়ংকর হয় না।

ভূমিকম্প যে কোনো মুহূর্তেই আঘাত হানতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, সমগ্র বিশ্বে বছরে লাখ লাখ ভূমিকম্প হয়। এর মধ্যে অনেকগুলো কম্পন অনুধাবন করা যায়ও না। সংস্থাটি আরো জানিয়েছে, বছরে গড়ে? ১৭টি বড? ধরনের ভূমিকম্প হয়, রিখটার স্কেলে ঐ ভূমিকম্পের মাত্রা সাতের ওপর থাকে। আর আট মাত্রার ভূমিকম্প বছরে একবার হয়ে থাকে। তবে পৃথিবীতে যত ভূমিকম্প আঘাত হানে, তার ৯০ শতাংশই প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় ঘটে। ইতিপূর্বে বাংলাদেশে বড? ধরনের ভূমিকম্প না ঘটলেও বর্তমানে বড? ধরনের ঝুঁকিতে রয়েছে দেশটি। ভূতাত্ত্বিক জরিপে জানা যায়, বিশ্বের ঝুঁকিপূর্ণ শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৫ নম্বরে রয়েছে। বাংলাদেশের সবচেয়ে? বেশি ভূমিকম্প ঝুঁকিতে রয়েছে সিলেট ও পার্বত্যাঞ্চল। ঢাকার বিষয়টা ভিন্ন। ঢাকায় ভূমিকম্পের মাত্রার ওপর নির্ভর করবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ। যেমন শনিবারের ভূমিকম্পের উত্পত্তিস্থল লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলায় না হয়ে যদি ঢাকায় হতো তাহলে এই মাত্রার অর্থাত্ রিখটার স্কেলের ৫.৬ মাত্রায় কম্পনের ফলে ঢাকার চিত্র ভিন্ন হতে পারত।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, ভূমিকম্পে রিখটার স্কেলের মাত্রা সাত ছাড়িয়ে? গেলেই রাজধানী ঢাকা শহরের প্রায় ৭২ হাজার ভবন ধসে পড়বে। এমনিতেই বাংলাদেশের অবস্থান ভারতীয়, ইউরেশীয় ও বার্মিজ তিনটি সক্রিয় টেকটোনিক প্লেটের সংযোগস্থলে অবস্থিত, যার ফলে বাংলাদেশের উত্তরবঙ্গ ও পার্বত্য অঞ্চলে প্রতিনিয়ত মৃদু ভূকম্পন অনুভূত হলেও মানুষ তা টের পায় না। সুতরাং বলা যায়, ভূমিকম্প মহাদুর্যোগ হয়ে? যে কোনো সময় বাংলাদেশে বড? ধরনের আঘাত হানতে পারে। কাজেই আমাদের যথেষ্ট সতর্ক হতে হবে। ভবন নির্মাণ এবং যে কোনো ধরনের স্থাপনার ক্ষেত্রে বিল্ডিং কোড মেনে সঠিক গ্রাউন্ড মোশন নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ করে পুরোনো ভবনকে টেকসই মজবুতভাবে সংস্কার করতে হবে। খুব বেশি পুরোনো দালান বা ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভেঙে ফেলতে হবে। ঢাকা শহরের জন্য বিষয়টি আরো ভয়ংকর হতে পারে। কাজেই এখনই সতর্ক হতে হবে সবাইকে।

লেখক: কথাসাহিত্যিক ও কলামিস্ট

ইত্তেফাক/এমএএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন