সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ভারতে করোনায় দুই দিনে ৭ জনের মৃত্যু 

আপডেট : ২২ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৯:১২

ভারতে গত ৪৮ ঘন্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সাত জন মারা গেছেন। দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী নতুন করে ৬৪০ জন করোনা সংক্রমিত খুঁজে পাওয়া গেছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ভারতে এখন ২ হাজার ৯৯৭ জন কোভিড আক্রান্ত রয়েছেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটিতে গত দুইদিনে যারা মারা গেছেন তাদের বেশিরভাগই গুরুতর অসুস্থ ছিলেন আগে থেকেই। তবে এখনও এটিকে কোভিডের নতুন ঢেউ বলে চিহ্নিত করছেন না বিজ্ঞানীরা।

সবথেকে বেশি মৃত এবং সংক্রমিত কেরালায়। ওই রাজ্যে বিগত ২৪ ঘন্টায় ২৬৫ জন নতুন কোভিড রোগী পাওয়া গেছে। কেরালা ছাড়াও তামিলনাডু, কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র, গোয়া, রাজস্থান এবং পাঞ্জাবেও করোনা রোগী পাওয়া গেছে। নতুন করে যারা আক্রান্ত হচ্ছেন, তাদের মধ্যে কতজন করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট জেএন১ – এ আক্রান্ত, তা জানার জন্য লালারসের নমুনা জেনোম সিকোয়েন্সিংয়ে পাঠানো হচ্ছে নিয়মিত।

যদিও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে এবারের সংক্রমণ, চিকিৎসকেরা বলছেন আতঙ্কিত হওয়ার কোনও কারণ নেই, কিন্তু মাস্ক পড়া আবারও শুরু করা উচিত।

কোভিড মহামারীর শুরুর সময়, ২০২০ সাল থেকে বারে বারে কেরালাতেই এই ভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে হতে দেখা গেছে। এবারেও ওই রাজ্যেই সবথেকে বেশি সংক্রমিত পাওয়া যাচ্ছে।

রাজ্য কোভিড এক্সপার্ট কমিটির সদস্য ডা. অনীশ টি এম বিবিসিকে জানিয়েছেন, যতজন করোনা পজিটিভ রোগী পাওয়া যাচ্ছে, তাদের ৫০% এরই কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। আবার এরকম সংক্রমিতও দেখা যাচ্ছে যার এক আত্মীয় হয়তো পজিটিভ হয়েছেন এবং সেই ব্যক্তির সঙ্গে তিনি দূর থেকে দেখা করেছিলেন। দ্বিতীয় ব্যক্তি যখন টেস্ট করালেন, দেখা গেল তার করোনা পরীক্ষার ফলও পজিটিভ।

তিনি বলেছেন, মানুষের মনে একটা ভয় ঢুকেছে। তারা সরকারি আর বেসরকারি কেন্দ্রগুলোতে নিজের থেকেই পরীক্ষা করাতে আসছেন। কেরালার চিকিৎসকরা বলছেন, যতজন রোগীর মধ্যে সংক্রমণ পাওয়া যাচ্ছে, তাদের অর্ধেকের মধ্যেই নতুন জেএন১ ভ্যারিয়েন্টের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে।

কলকাতার আমরি হাসপাতালের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. সায়ন চক্রবর্তী বিবিসিকে বলেন, নতুন যে ভ্যারিয়েন্টটা দেখা যাচ্ছে, সেটার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার ক্ষমতা আগের অমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের থেকে অনেকটাই বেশি। কিন্তু এই ভ্যারিয়েন্টটার ধার অনেকটাই কম, খুব বেশি যে অসুস্থ করে ফেলতে পারবে করোনার এই ভ্যারিয়েন্ট, তা নয়।

তিনি আরও বলেছেন, আগের কয়েকবার যেমন দেখা গেছে প্রচুর মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হচ্ছে, আইসিইউতে দিতে হচ্ছে, এই ভ্যারিয়েন্টে সেরকমটা হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এই ভ্যারিয়েন্টের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে তা সাধারণ সর্দি, কাশি, জ্বরের মতোই লক্ষণ দেখা দেবে। 

তিনি আরও বলেন, শুধু বয়স্ক মানুষ বা অন্যান্য রোগে ভুগছেন, তাদের ক্ষেত্রে হয়তো হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন হলেও হতে পারে। অন্যদের আমরা চিকিৎসা করছি সর্দি, কাশি, জ্বরের রোগীদের মতো করেই।

ইত্তেফাক/এসআর