বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

পিরোজপুর-২ আসনে নৌকার এজেন্ট দিতে বাধা

কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তার ও ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি

ভোটারদের উপস্থিতি কম, কেন্দ্রে ভোটের ফল দেখে হতবাক স্থানীয়রা

আপডেট : ০৮ জানুয়ারি ২০২৪, ০২:৩০

পিরোজপুর-২ (ভাণ্ডারিয়া-কাউখালী-নেছারাবাদ) আসনের অনেক কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের এজেন্ট দিতে বাধা ও এজেন্টদের বের করে দেয়া সহ কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তার করে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হয়েছে। এছাড়াও দিনব্যাপী একাধিক কেন্দ্রে ভোটার না থাকলেও তাতে যে ভোট দেখা গেছে তাতে স্থানীয়রা হতবাক হয়েছেন।

ভাণ্ডারিয়া উপজেলার ৩২নং হরিণপারা-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ১১নং মধ্য শিয়ালকাঠী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ভাণ্ডারিয়া বিহারী লাল মিত্র পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, বন্দর সরকারী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ছোট কানুয়া ৭নং কেন্দ্র, ধাওয়া নলকাটা কেন্দ্র, ধাওয়া রাজপাশা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ১২৭ পশ্চিম পশারিবুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশারিবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৪৮ জালিয়াবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, নদমুল্লা ইউনিয়নের মধ্য হেতালিয়া কেন্দ্র, গৌরিপুর হাইস্কুল কেন্দ্র, হাজি এসএম জামান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ভিটাবাড়িয়া ৮নং স্কুল কেন্দ্র। এসব কেন্দ্রে ঈগল প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও ধাওয়া ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে কেন্দ্র দখল, এজেন্ট ঢুককে বাঁধা দেয়া ও জাল দেয়া হয়েছে। 

কাউখালীর জোলাগাতী আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ফলইবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হোগলা বেতকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাগুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড় বিড়ালজুড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নারীদের ব্যবহার করে জাল ভোট দিয়ে এলাকায় ভীতিকর অবস্থা সৃষ্টি করা হয়। কাউখালীর সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন, এসডিএফ এর কার্যালয় ব্যবহার করে সেখানে কর্মরতদের দিয়ে জাল ভোটের মহা উৎসব করা হয়েছে।  

এছাড়াও নেছারাবাদ উপজেলার পঞ্চবেকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, স্বরূপকাঠী সাব্ রেজিস্টি অফিস, সরকারী স্বরূপকাঠী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, মাহমুদকাঠী মাদ্রাসা কেন্দ্র, মাহামুদকাঠী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুনিয়ারি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাগুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, অলংকারকাঠী এমআর মাধ্যমিকবিদ্যালয়, অলংকারকাঠী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র সহ অন্যান্য কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও ভোটের ফলাফলে যে ভোট দেখানো হচ্ছে তা দেখে স্থানীয়রা হতবাক হচ্ছে। কেননা এসব কেন্দ্রে তেমন ভোটার উপস্থিতি ছিলো না। এক ঘন্টায়ও যেখানে ৫ জন ভোটার দেখা যায়নি সেখানে ঘোষনা দেয়া হয়েছে ৫শ’ থেকে ৯শ’ ভোট যা বাস্তব চিত্রের সাথে মিল নেই।

নৌকা প্রতীকের কর্মীরা জানান, বাড়ি বাড়ি গিয়ে ঈগল প্রার্থীর সন্ত্রাসী বাহিনীরা নৌকার ভোটারদের ভোট দিতে গেলে হত্যার হুমকি সহ নানান ভয়ভীতি করে আসে। যার ফলে এলাকায় ভীতিকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। ভোটের দিন বহিরাগতদের এনে কেন্দ্রে কেন্দ্রে জড়ো করে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখিয়েছে ঈগল প্রার্থীর সন্ত্রাসীরা।

নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর এজেন্ট ও কর্মীরা জানান, নির্বাচনের পূর্বে কালো টাকা ছড়িয়ে নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট, নৌকা প্রতীকের কর্মীদের মারধর, হত্যার হুমকি সহ প্রকাশ্যে টাকা বিলানো সহ নানান অভিযোগ রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে দেয়া হয়েছে। ভোটের দিনের এজেন্ট বের করে দেয়া, কেন্দ্র দখল সহ সকল অভিযোগ দায়িত্বরদের তাত্ক্ষনিকভাবে জানানো হয়েছে ও পরে লিখিতভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দেওয়া হবে।

ইত্তেফাক/এমএএম