সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ঘুম থেকে উঠেই মোবাইল হাতে?  

আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:৩৯

সকালে ঘুম থেকে উঠেই অনেকে তাদের ফোনের দিকে তাকান। এটির বিভিন্ন কারণে হতে পারে, কাজের সঙ্গে সম্পর্কিত মেইল চেক করা এবং ব্যক্তিগত বার্তা চেক করা থেকে সর্বশেষ খবর জানা পর্যন্ত। 

যাইহোক, যদি এই রুটিন একটি কঠিন অভ্যাসে পরিণত হয়, তাহলে এটি আসক্তির সূত্রপাত নির্দেশ করতে পারে। অনেকে এটিকে এড়াতে কঠিন বলে মনে করেন কারণ সকালে সোশ্যাল মিডিয়া স্ক্রলের মাধ্যমে ডোপামিনের নিঃসরণকে ট্রিগার করে, ডোপামিন যা ভালো অনুভূতি হরমোন নিঃসরণ করে থাকে। ফলে এটি আপনার মস্তিষ্কের জন্য এই অভ্যাসটিকে নিরুৎসাহিত করা কঠিন করে তোলে। ঘুম থেকে উঠেই ফোন দেখার অভ্যাসে আপনার ক্ষণিকের আত্মতৃপ্তি হয় বটে, তবে অজান্তেই সারা দিনের কাজের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে এই অভ্যাস। এর পাশাপাশি প্রভাব ফেলছে শরীরেও। 

একটি দিনকে পুরোপুরি আলিঙ্গন করার আগে ডিজিটাল জগতে প্রবেশ করা অনেকগুলি পরিণতি নিয়ে আসতে পারে। দেখে নিন, এই অভ্যাস কী কী ক্ষতি ডেকে আনছে: 

চোখে প্রভাব
মোবাইলের স্ক্রিনের নীল আলো চোখের ওপর একটি অত্যন্ত ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। এটি মাথাব্যথা সৃষ্টি করে। 

মানসিক স্বাস্থ্য
ইমেল, সোশ্যাল মিডিয়া আপডেট ও সংবাদ শিরোনামগুলিতে তাৎক্ষনিক অ্যাক্সেস মনকে উদ্দীপনায় ভরে তোলে, দিন শুরু হওয়ার আগেই একটি চাপের প্রতিক্রিয়া শুরু করতে পারে যা মানসিক ক্লান্তি বা মানসিক চাপ বাড়াতে পারে এবং কাজে মনোযোগের অভাব দেখা দিতে পারে। 

ঘুমের মান
ঘুমের মানের ক্ষেত্রে আপনার কাজের ভিত্তিতে মোবাইল ব্যবহারের সময়ের সীমাবদ্ধতা প্রয়োজন। এই অভ্যাস আপনার ঘুমের মানের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে এবং স্মৃতিশক্তিতেও প্রভাব ফেলতে পারে।

সামাজিক সংযোগ বিচ্ছিন্নতা
হাস্যকরভাবে, আমাদের সংযোগ করার জন্য ডিজাইন করা ডিভাইসগুলি সকালে অতিরিক্ত ব্যবহার করা হলে বিচ্ছিন্নতার অনুভূতি জাগাতে পারে। মুখোমুখি সংযোগের চেয়ে ভার্চুয়াল মিথস্ক্রিয়াকে অগ্রাধিকার দেওয়া প্রকৃত সামাজিক বন্ধনকে ক্ষয় করতে পারে।

মোবাইলের সঠিক ব্যবহারে সচেতনতা প্রয়োজন। মোবাইল ব্যবহারের সময়ের সীমাবদ্ধতা বজায় রাখা, আপনার ঘুমের মান নিশ্চিত করা এবং মোবাইল থেকে নিজের সঠিক অবস্থান দূরে রাখা স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম হতে পারে।

ইত্তেফাক/এআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন