মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

রপ্তানিমুখী শিল্পের স্থানীয় ক্রয় ভ্যাটের আওতার বাইরে রাখার প্রস্তাব

আপডেট : ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০২:৩০

রপ্তানির সক্ষমতা ধরে রাখার স্বার্থে আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে রপ্তানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানের সব স্থানীয় ক্রয়কে ভ্যাটমুক্ত রাখার প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ গার্মেন্টস এক্সেসরিজ এন্ড প্যাকেজিং ম্যানুফেকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন (বিজিএপিএমইএ)। গতকাল বৃহস্পতিবার আগারগাঁও রাজস্ব ভবনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) আয়োজিত প্রাক-বাজেট আলোচনায় সংগঠনের পক্ষ থেকে এ দাবি জানানো হয়।

বিজিএপিএমইএ তাদের প্রস্তাবের পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বলেছে, ভ্যাট আইনে সব ক্রয়ে ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রযোজ্য। রপ্তানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠান অফিস পরিচালনার জন্য স্টেশনারীসহ বেশকিছু দ্রব্যসামগ্রী স্থানীয় বাজার থেকে ক্রয় করে থাকে। এসব ক্রয় প্রকান্তরে উৎপাদন ও রপ্তানির সঙ্গে সম্পর্কিত। বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের কারণে রপ্তানি খাতকে সরাসরি কোনো আর্থিক প্রণোদনা প্রদানের সুযোগ থাকবে না।

এছাড়া সব রপ্তানির ক্ষেত্রে উৎস কর ১ শতাংশ থেকে কমিয়ে আগামী ৫ বছরের জন্য শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ করা, অর্জিত ব্যাংক সুদ আয়ের ওপর উৎস কর ২০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করা, দ্রুত ও নিরবচ্ছিন্ন করতে ইউডি জারির ক্ষমতা, বন্ডের আওতায় এক্সেসরিজ ও প্যাকেজিংয়ের ফিনিসড পণ্যের আমদানি নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে বিজিএপিএমইএ।

প্রাক-বাজেট আলোচনায় বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্ততকারক ও রপ্তানিকারক এসোসিয়েশন (বিপিজিএমইএ) তাদের প্রস্তাবে রেগুলেটরি ডিউটি (আরডি) ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে পাঁচ শতাংশ করার দাবি জানিয়েছে।

বাংলাদেশ সোসাইটি ফর দ্যা চেঞ্জ এন্ড অ্যাডভোকেসি নেক্সাস (বি-স্ক্যান) প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের করমুক্ত আয়সীমা ৬ লাখ টাকা করার প্রস্তাব করেছে।

হিমায়িত মৎস্যপণ্য রপ্তানিকারক কারখানায় সরাসরি চিংড়ি ও মাছ ক্রয়ে দুই শতাংশ উৎস কর প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফ্রুটস এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন।

বাংলাদেশ টেরি টাওয়েল এন্ড লিনেন ম্যানুফেকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন (বিটিটিএলএমইএ) তাদের প্রস্তাবে কটন ওয়েস্ট আমদানি এবং রপ্তানি পর্যায়ের বর্তমান শুল্ক হার অব্যাহত রাখার প্রস্তাব দিয়েছে। বিভিন্ন সংগঠনের প্রস্তাব শুনে তা যাচাই-বাছাই করে পর্যালোচনার আশ্বাস দেন এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম।

ইত্তেফাক/এমএএম