বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

সড়ক নয়, যেন ট্রাক্টর রাখার গ্যারেজ

আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:১৩

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা পরিষদের প্রধান গেইট ও পশ্চিম দিকের প্রাচীর সংলগ্ন ব্যস্ততম সড়কটি যেন ট্রাক্টর রাখার গ্যারেজ। প্রশাসনের সঙ্গে আঁতাত করে বছরের পর বছর এই অবৈধ গ্যারেজ হিসেবে পরিষদের প্রাচীর ও প্রধান সড়ক ব্যবহার করে আসছে কতিপয় প্রভাবশালীরা। এমন কর্মকাণ্ডে প্রশাসনের নীরবতা জনমনে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। 

একদিকে এই গ্যারেজ করায় সড়কের ফুটপাত যেমন হারিয়ে গেছে তেমনি ভাবে নষ্ট হচ্ছে উপজেলা পরিষদের প্রধান ফটক ও প্রাচীরের সৌন্দর্য। এতে করে ফুটপাত না থাকায় সড়কের মাঝখান দিয়ে পথচারীরা হাটার সময় হরহামেশাই ঘটছে ছোটখাটো দুর্ঘটনা। শুধু প্রধান ফটক এলাকাই নয় পরিষদের উত্তর ও পশ্চিম দিকের প্রাচীর সংলগ্ন সড়কটিরও একই অবস্থা। পরিষদের অবৈধ দখলের শিকার হওয়া প্রাচীর দখলমুক্ত করা না গেলে যে কোন সময় প্রাচীর ভেঙ্গে নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।  

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় যে, উপজেলা পরিষদের প্রধান গেইট সংলগ্ন প্রাচীরের পাশ দিয়ে দিন-রাত সারি সারি করে রাখা হয়েছে অবৈধ যান ট্রাক্টর। এতে করে সওজের আওতাধীন ব্যস্ততম নওগাঁ-রাণীনগর-আবাদপুকুর সড়কের ফুটপাত অবৈধ দখল করে রাখা হয়েছে। একই সঙ্গে বড় দুটি যানবাহন পারাপার হতে গেলেই ঘটছে দুর্ঘটনা। এ ছাড়া পায়ে হেটে যাওয়ার মতো পর্যাপ্ত পরিমাণ ফুটপাত না থাকায় প্রধান সড়কের মধ্যদিয়ে হেটে যেতে হয় পথচারীদের। বছরের পর বছর প্রশাসনের বড় বড় কর্তাব্যক্তিরা প্রতিনিয়ত যাতায়াতের সময় এমন অবৈধ দখল দেখেও না দেখার অভিনয় করে আসছে।

পথচারী নজরুল ইসলাম বলেন, বছরের পর বছর প্রশাসনের নাকের ডগায় এমন অবৈধ দখল দেখে আমরা হতবাক। পথচারীদের হাটার জন্য এমন ব্যস্ততম সড়কের দুই পাশের ফুটপাতটি অবশ্যই সব সময় ফাঁকা রাখা দরকার। এমন কর্মকাণ্ডে মনে হচ্ছে প্রশাসন জেগে ঘুমাচ্ছে। আমরা চাই দ্রুত উপজেলা গোলচত্বর থেকে শুরু করে প্রধান ফটক পর্যন্ত এবং গোলচত্বর থেকে নওগাঁর দিকে যাওয়ার প্রাচীর সংলগ্ন সড়কটি অবৈধ দখল মুক্ত করে পথচারীদের জন্য সড়কটি নিরাপদ করা হোক। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে তাবাসসুমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দেওয়ার পর তা রিসিভ না হওয়ায় এই বিষয়ে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

নওগাঁ সড়ক বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নুরে আলম সিদ্দিক মোবাইল ফোনে জানান, মহাসড়ক আইন-২০২১ অনুসারে সড়কের ৩৩ ফুটের মধ্যে কোন স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করা কিংবা জায়গা অবৈধ দখল করার কোনো নিয়ম নেই। আমরা যেহেতু মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার ক্ষমতা রাখি না এবং কোথাও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে গেলেও জেলা কিংবা উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতা নিতে হয় সেই ক্ষেত্রে উপজেলা প্রশাসন চাইলে আমাদের সহযোগিতা নিয়ে এই অবৈধ দখলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন।

ইত্তেফাক/পিও