বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

শেষ সময়ে কেনাকাটায় ব্যস্ত নগরবাসী

আপডেট : ০৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০০

আর বাকি দুই বা তিন রমজান, এর পরই ঈদ। শেষ সময়ের কেনাকাটায় ব্যস্ত নগরবাসী। এ সময়ে পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে জুতা, স্যান্ডেল, গহনা এবং কসমেটিস কিনছেন ক্রেতারা। বিশেষ করে মেয়েদের গহনা, কসমেটিস না হলেই যেন নয়। রাজধানীর শপিং মলগুলোতে কসমেটিসের দোকানে সারি সারি নারী ক্রেতাকে কেনাকাটা করতে দেখা যায়।  মেট্রো শপিং মলে কথা হয় এক তরুণীর সঙ্গে। তিনি এসেছেন মায়ের সঙ্গে। তার তালিকায় আছে, সিলভার কালার নেইলপলিশ, আইস্যাডো, মাশকারা, আর লিপলাইনার। তার মা বলেন, জামা হয়েছে যে কয়টা, তার সঙ্গে মিলিয়ে জুতা-স্যান্ডেল, সাজগোজের  জিনিস কিনতে হচ্ছে।

বসুন্ধরায় কথা হয় চিকিৎসক আরেক তরুণীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমার কেনাকাটা মোটামুটি শেষ, আজ কিনতে এসেছি উপহারসামগ্রী। ধানমন্ডি-২৭ নম্বর সড়কে অবস্থিত জেনেটিক প্লাজায় কথা হয় আরেক জনের সঙ্গে। তিনি তার কিশোরী মেয়েকে নিয়ে এসেছেন হাতে মেহেদি পরিয়ে নিতে।

তরুণীদের উপচে পড়া ভিড় দেখা যায় গহনাদোকানগুলোতে। কেউ কিনছেন ডায়মন্ডের গহনা, কেউ কিনছেন সিলভারের গহনা, কেউ-বা কিনছেন ইমিটেশন, কিংবা কাঠ-বাঁশ-মাটি আর মেটালের গহনা। শাড়ি-পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে এসব গহনা নারীর সাজকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলে। ফলে শাড়ি-জামার পাশাপাশি নিজেকে সাজাতে নারীর রকমারি গহনা চাই।

আড়ংয়ের আউটলেটে নারীরা ডায়মন্ডের নাকফুল কিনছেন। কেউ আবার অদল-বদল করেও নিচ্ছেন। তবে সোনার দাম বেড়ে যাওয়ায় ডায়মন্ডকাট ও স্টোনের গহনার চাহিদা বেড়েছে। গহনার দোকানিরা বলছেন, এবার ঈদে বেশি বিক্রি হচ্ছে সেট মেটালের চুড়ি। এসব মেটালের চুড়ি বিভিন্ন রঙের হয়ে থাকে। একটি সেটে বিভিন্ন ডিজাইনের চুড়ি থাকে, যা সহজে সবার নজর কাড়ে। শাড়ি-পোশাকের সঙ্গে খুব সহজেই মিলিয়ে পরতে পারেন বলে এসব গহনার কদর এখন বেশি। তবে নারীদের আগ্রহ বিভিন্ন ধরনের স্টোন ও পার্ল বসানো গহনার দিকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘সালোয়ার কামিজের সঙ্গে মেটালের গহনা পরতে পছন্দ করি, আর জিন্স-ফতুয়ার সঙ্গে কাঠ-বাঁশ বা মাটির গহনাই বেশি পরি।’ যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে অনেকে এখন ওয়েবসাইটে কেনাকাটা করেছেন। অনেকে শপিংয়ে যাওয়ার ঝামেলা এড়াতে ঘরে বসে ইন্টারনেটের ওয়েবসাইটে গহনার ছবি দেখে অর্ডার করছেন। তবে ঈদের বাজারে তরুণীদের একটু ঘুরে ফিরে গহনা কিনতেই পছন্দ করে থাকেন বলে জানান এক দোকানি।  

টকিও স্কয়ারে ‘কে জেড’-এর সামনে কথা হয় এক তরুণীর সঙ্গে। তিনি বলেন, বর্তমানে এন্টিক গহনাই এ সময়ের ফ্যাশন। তবে ছোট স্টোনের টপ সালোয়ার কামিজ, জিন্স-টপ বা শাড়ি, যা-ই হোক না কেন, ম্যাচিং করে পরা যায়। তবে ম্যাচ বলতে রং মিলিয়েই নিতে হবে এমন নয়; পোশাকটার সঙ্গে মানাচ্ছে কি না, সেটাই দেখার আসল বিষয়। এন্টিকের গহনাও সবকিছুর সঙ্গেই চমৎকার মানায়।

ইত্তেফাক/এমএএম