শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ইউরোপে চীনের গুপ্তচরবৃত্তি বাড়ার অভিযোগ

আপডেট : ২৮ এপ্রিল ২০২৪, ১৮:১৮

জার্মানি, ব্রিটেনসহ পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোতে চীনের গুপ্তচরবৃত্তি বেড়েছে বলে সংশ্লিষ্ট দেশের কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করছে। তবে চীন এসব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে।

গত মঙ্গলবার জার্মানির কৌঁসুলিরা আসন্ন ইউরোপীয় ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে চীনা গোয়েন্দাদের তথ্য দেওয়ার সন্দেহে জিয়ান জি নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। তিনি ইইউ নির্বাচনে জার্মানির উগ্র ডানপন্থী দল এএফডির শীর্ষ প্রার্থী মাক্সিমিলিয়ান ক্রাহর একজন সহকারী। ক্রাহ বলেছেন, অভিযোগ প্রমাণিত হলে তিনি জিয়ান জি’র সঙ্গে কাজ করা বন্ধ করে দেবেন।

জিয়ান জি ব্রাসেলস ও জার্মানির ড্রেসডেনে কাজ করেন। তিনি জার্মানিতে থাকা চীনের বিরোধী কর্মীদের ওপরও নজর রাখতেন বলে কৌঁসুলিরা জানিয়েছেন।

জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ন্যান্সি ফ্যাজা বলেছেন, জিয়ান জি’র বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে সেটি হবে ‘ভেতর থেকে ইউরোপের গণতন্ত্রের ওপর হামলা’।

রাশিয়া ও চীনের গুপ্তচরবৃত্তি বাড়ায় জার্মানিও কাউন্টার গুপ্তচরবৃত্তি বাড়িয়েছে বলে জানান তিনি।

বেইজিংয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন ইউরোপে চীনের গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগকে ‘হাইপ’ বলে উল্লেখ করেছেন। এছাড়া এটি ‘চীনকে অসম্মান ও দমন করার উদ্দেশ্যে’ করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এদিকে, সোমবার জার্মানির বিচার মন্ত্রণালয় জানায়, বেইজিংয়ের নৌবাহিনীর ব্যবহারের জন্য প্রযুক্তি জোগাড় করতে চীনের গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে কাজ করার অভিযোগে তিন জার্মান নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বার্লিনে চীনের দূতাবাস এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

একইদিন যুক্তরাজ্যে দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে চীনের হয়ে গোয়েন্দাগিরি করার অভিযোগ গঠন করা হয়। এদের একজন শাসক দল কনজারভেটিভ পার্টির গুরুত্বপূর্ণ নেতার সঙ্গে কাজ করতেন। লন্ডনে বেইজিংয়ের দূতাবাস ব্রিটেনের গোয়েন্দা তথ্য চুরির এই অভিযোগ ‘সম্পূর্ণ বানোয়াট’ বলে মন্তব্য করেছে।

এর আগে ২৫ মার্চ ব্রিটেন অভিযোগ করেছিল, চীনা হ্যাকারেরা বেইজিংয়ের সমালোচনা করা ব্রিটিশ সাংসদদের ই-মেইল হ্যাক করার চেষ্টা করেছে। নির্বাচনি সংস্থা হ্যাক করে কোটি কোটি মানুষের তথ্য চুরির পেছনেও চীন জড়িত বলে অভিযোগ ব্রিটেনের।

১৮ এপ্রিল নেদারল্যান্ডসের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা এমআইভিডি তাদের বার্ষিক প্রতিবেদনে জানিয়েছিল, বেইজিংয়ের সামরিক বাহিনীকে শক্তিশালী করতে চীনের গোয়েন্দারা ডাচ সেমিকন্ডাক্টর, এয়ারোস্পেস ও ম্যারিটাইম শিল্পকে লক্ষ্য করেছিল।

‘পশ্চিমা বিশ্বের জ্ঞান ও প্রযুক্তি ওপর থেকে নির্ভরতা কমাতে চায় চীন। সেজন্য তাদের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োজন, যেটা তাদের নেই। তাই আইনি পদ্ধতি, গবেষণা, বিনিয়োগ, এমনকি গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমেও এগুলো পেতে চায় চীন,’ বলে বার্ষিক ঐ প্রতিবেদনে জানায় এমআইভিডি।

গতবছর ২০ ডিসেম্বর বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী আলেকজান্দ্রা ডে ক্রো জানান, বেলজিয়ামের উগ্র ডানপন্থী দল ফ্লামস বেলাংয়ের এক সদস্যকে গোয়েন্দা এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বেইজিং। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে ফ্লামস বেলাং দলের প্রধান ঐ সদস্যকে দল থেক বহিষ্কার করেন।

২০১৯ সালের চীনের হুয়াওয়ে কোম্পানির সাবেক কর্মী ও সাবেক পোলিশ গোয়েন্দা এজেন্টকে বেইজিংয়ের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

ইত্তেফাক/এসএটি