সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড়

জীববৈচিত্র পুনরুদ্ধারের নামে আলতাদিঘীর গাছ বেচা হয়েছে ৩৫ লাখ টাকায়

আপডেট : ০৭ মে ২০২৪, ১৫:৫৯

নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার ‘আলতাদিঘী পুনঃখননের মাধ্যমে আলতাদীঘি জাতীয় উদ্যানের জীববৈচিত্র পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণ’ প্রকল্পের জন্য দিঘীটির চতুর্দিকের কয়েক হাজার গাছ নির্বিচারে কেটে ফেলার ঘটনায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। বিষয়টি নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝেও মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। দীঘির চারপাশে এসব গাছ বন বিভাগ ১৫টি লটে ৩৫ লাখ ৯৫ হাজার ২৫৬ (পঁয়ত্রিশ লাখ পঁচানব্বই হাজার দুইশত ছাপান্ন) টাকায় বিক্রি করে। 

প্রতিবাদকারীদের অভিযোগ, কিছুদিন আগেও আলতাদীঘি ছিল সবুজের আভা। উন্নয়ন প্রকল্পের নামে এখন খাঁ খাঁ করছে আলতাদীঘি জাতীয় উদ্যান। 

সম্প্রতি উদ্যানের দীঘি খনন, ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ ও গাছ রোপনসহ বেশ কিছু পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ১৬ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। যা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে কাটা পড়ে নানা প্রজাতির হাজারো গাছ।

জয়পুরহাট সরকারী কলেজের ভূগোল বিষয়ে অনার্স ২য় বর্ষের ছাত্র সাদমান সাকিব বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে এসছেন আলতাদীঘি দেখতে। রোববার (৫ মে) বিকেলে কথা হয় এই প্রতিবেদকের সাথে। তারা ক্ষোভ প্রকাশ বলেন, দিঘীটি অবশ্যই সংস্কার জরুরি কিন্তু তাই বলে এভাবে নির্বিচারে চর্তুদিকের সারিবদ্ধ সব গাছগুলো কাটতে হবে? গাছগুলো রেখে কি সংস্কার করা যেত না? দিঘীর চতুর্দিক দেখে এটাকে আর দিঘী বলা যায় না। এ যেন এক মরুভূমি।

২০১৯ সালের আলতাদিঘী। ছবি: সংগৃহীত

উদ্যানের উন্নয়ন কাজে গঠিত কমিটির সদস্য কায়েস উদ্দিনের দাবি, আলোচনা সভায় গাছ কাটার সিদ্ধান্ত হয়নি। তিনি বলেন, হঠাৎ করে আলতাদিঘীতে এসে দেখি গাছগুলো কেটে ফেলা হয়েছে।

তবে ধামইরহাটের বনবিট কর্মকর্তা আনিসুর রহমান বলছেন, মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। নতুন বনায়ন হবে, একটা গাছ তো আর সারাজীবন থাকবে না। এটি সামাজিক বনায়নের অওতায় স্বল্প মেয়াদি সৃজিত উডলট বাগান।

বন বিভাগ বলেছে, সামাজিক বনায়নের আওতায় ইউক্যালিপটাস ও আকাশমনি প্রজাতির চারা দ্বারা বনায়নকৃত গাছগুলি অপসারণ করে স্থানটি দেশীয় প্রজাতির চারা দ্বারা প্রতিস্থাপন করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। আলতাদিঘীর খননকৃত মাটি দিয়ে নীচু স্থান ও পাড় সংস্কার করার জন্য দীঘির চারপাশে বিদ্যমান ৫৪৬টি ইউক্যালিপটাস ও ৪৫৬টি আকাশমনিগাছ যথাযথ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে ১৫টি লটে ৩৫ লাখ ৯৫ হাজার ২৫৬ টাকায় টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রয় করা হয়।

এখানে ঘুরতে আসা নওগাঁ সরকারি কলেজের উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী আয়েশা সিদ্দিকা বলেন, ‘গাছ কাটার আগে এসব জায়গাতে বেশ কিছু পাখির বাসা দেখেছি। এখন সেখানে বালুর স্তুপ। এগুলো মেনে নেওয়া যায় না।’

পরিবেশকর্মীদের অভিযোগ, পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর এই অযুহাতে ৫৪৬টি ইউক্যালিপটাস গাছ কাটার বিষয়টি হয়তো মেনে নেওয়া যায় তবে দিঘীর চতুর্দিকে সারিবদ্ধ ভাবে লাগানো পরিবেশ বান্ধব বিশাল আকৃতির ৪৫৬টি আকাশমনি গাছ কাটার বিষয়টি অযৌক্তিক।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) নওগাঁ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাফকুল ইসলাম বলেন, ‘সৌন্দর্যবর্ধন বৃক্ষরোপনের মধ্যে নিহিত, নিধনে নয়। আজকের কর্তনকৃত গাছগুলো হতে সময় লেগেছে ১৫ থেকে ২০ বছর। অথচ নিমিষের মধ্যে তা ধ্বংস করা হচ্ছে। আধুনিক নকশায় গাছ রেখেই সুন্দর পরিকল্পনা করা সম্ভব।’

তিনি বলেন, ‘আলতাদীঘি জাতীয় উদ্যান এ অঞ্চলে ফুসফুসের মতো কাজ করে। আমরা এ বিষয়ে অনেক মিটিং মিছিল মানববন্ধন করেছি কিন্তু তাতে কোন কাজ হয়নি। পুরনো হাজার হাজার গাছগুলো যারা নির্বিচারে কাটছেন তারা অবশ্যই অপরাধ করছেন। এসব উদ্দেশ্য প্রণোদিত।’

২০২৪ সালের আলতাদিঘী। ছবি: ইত্তেফাক

রাজশাহী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা রফিকুজ্জামান এ বিষয়ে জানিয়েছেন, আলতাদীঘি জাতীয় উদ্যানের মধ্যে অবস্থিত আলতাদীঘিটি দীর্ঘদিন যাবত খনন ও সংস্কার না করার কারণে দীঘিটির গভীরতা কমে গিয়ে প্রায় ১ ফুটের উচ্চতার নিচে পানি ছিল এবং চারপাশের পাড়গুলো ভেঙে যাওয়ায় দীঘিটি পুনঃখনন ও পাড় সংস্কার জরুরি হয়ে পড়েছিল। 
 
তিনি জানান, জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ডের অর্থায়নে ৬৪৯.৯৭ লাখ টাকা ব্যয়ে বন অধিদপ্তর বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পের মাধ্যমে দীঘিটির খনন কার্যক্রমের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। খননকৃত মাটি দিয়ে দীঘিটির চর্তুপার্শ্বের পাড় মেরামত ও উঁচুকরণ করার জন্য কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। আলতাদীঘির পাড়জুড়ে সামাজিক বনায়নের আওতায় ইউক্যালিপটাস ও আকাশমনি প্রজাতির চারা দ্বারা বনায়নকৃত গাছগুলি অপসারণ করে স্থানটি দেশীয় প্রজাতির চারা দ্বারা প্রতিস্থাপন করার পরিকল্পনা করা হয়।

তিনি আরও জানান, পুকুরের খননকৃত মাটি দিয়ে নীচু স্থান ও পাড় সংস্কার করার জন্য আলতাদীঘির চারপার্শ্বে বিদ্যমান ৫৪৬টি ইউক্যালিপটাস ও ৪৫৬টি আকাশমনিগাছ যথাযথ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে ১৫টি লটে ৩৫,৯৫,২৫৬/- (পঁয়ত্রিশ লাখ পঁচানবাই হাজার দুইশত ছাপান্ন) টাকায় টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রয় করা হয়েছে। এ অর্থ সংশ্লিষ্ট ১৬ জন উপকারভোগীগণের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি জানান, আলতাদীঘি জাতীয় উদ্যানের চারপাশে বিদ্যমান গাছগুলো স্থান উপযোগী না হওয়ায় গাছগুলি কর্তন করে দেশীয় প্রজাতির চারা দ্বারা চলতি অর্থবছরের বর্ষাকালে বনায়ন করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। আলতাদীঘিটি ২.৫০ মিটার খনন করা হয় এবং বর্তমান তাপদাহ ও তীব্র খড়ার কারণে দীঘিটি শুকিয়ে যায়।

বিভাগীয় বন কর্মকর্তা রফিকুজ্জামান জানান, ‘সামাজিক বনায়নের মাধ্যমে রাজশাহী বরেন্দ্র অঞ্চলের পরিবেশ সুরক্ষা প্রকল্প’র মাধ্যমে বাস্তবায়নাধীন আলতাদীঘির জলাশয়ের চারপাশে ২ মিটার প্রন্থ ইটের সোলিং এবং পাকা রাস্তা তৈরি করা হবে এজন্য দীঘির পাড়ের ইউক্যালিপটাস ও আকাশমনি গাছগুলি কর্তন করে আলতাদীঘির চর্তুপার্শ্বের পাড় মেরামত ও উঁচু করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, আলতাদীঘির নামকরণে রয়েছে ঐতিহাসিক ঘটনা। জনশ্রুতিতে রয়েছে এ এলাকা ছিল বটু রাজার। জগদ্দলে ছিল সেই রাজার বাড়ি। তার ছিল এক দয়াবতী রানি। রানী একদিন আবদার করলেন, তাকে বড় এক দীঘি খুঁড়ে দিতে হবে। রাজা বললেন, ঠিক আছে। তুমি হাঁটতে শুরু কর। যতক্ষণ পর্যন্ত তোমার পা ফেটে রক্ত বের না হয় ততক্ষণ পর্যন্ত হাঁটতে হবে। এখান থেকে হাঁটা শুরু করে যেখানে গিয়ে পা থেকে রক্ত বের হবে সেই পর্যন্ত দীঘি কাটা হবে। রানী হাঁটতে থাকলেন। হাঁটা আর শেষ হয় না। রাজা পড়ে গেলেন চিন্তায়। শেষ পর্যন্ত পাশের দেশে গিয়ে দীঘি কাটতে না হয়। তাই কৌশলে তার সৈন্য দিয়ে রানীর পায়ে আলতা লাগিয়ে বললেন, রানীর পা ফেটে রক্ত বেরিয়েছে। দীঘি সে পর্যন্তই খোঁড়া হল। ধীরে ধীরে সে দিঘি ভরে গেল টলটলে কাকচক্ষু জলে। তাতে পদ্ম ফুটল। প্রজাদের পানীয়জলের কষ্ট শেষ হলো। আর সে থেকেই এর নাম হয়েছে আলতাদীঘি। প্রায় হাজার বছরের স্মৃতি নিয়ে আজও সৌন্দর্য বিলিয়ে যাচ্ছে এ ঐতিহ্যবাহী আলতাদীঘি।

এত প্রাচীন আর এমন বিশাল দীঘি বাংলাদেশে নগন্য। উত্তর-দক্ষিণে লম্বা এ দীঘির দৈর্ঘ্য প্রায় এক কিলোমিটার, চওড়া প্রায় ৪০০ মিটারের মতো। গ্রামের লোকমুখে প্রচলিত আছে বৌদ্ধ যুগের কীর্তি এটি। দীঘির পাড় ঘেঁষে ভারত সীমান্ত। উত্তর পাড়ে দাঁড়িয়ে ভারতের কাঁটাতারের বেড়া, বিএসএফের সীমান্ত টইল, পাশ্ববর্তী দেশ ভারতকে দেখা খুবই সহজ। আলতাদীঘির পাড়ে দাঁড়ালে মনে হবে অনেকটাই সুন্দরবনের মতো, শীতের সময় অতিথি পাখির আগমন ঘটে এখানে। 

ইত্তেফাক/এসজেড