মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

চট্টগ্রাম বন্দর নিয়ে ভাবনা

আপডেট : ২৫ মে ২০২৪, ০৪:৩০

পর্যাপ্ত বিবেচনা ছাড়াই চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ বিদেশি অপারেটরদের পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল (পিসিটি) এবং  বে টার্মিনালের মতো বাংলাদেশের মূল টার্মিনালগুলি অপারেশনাল কর্তৃত্ব প্রদানের তীব্র বিরোধিতা করছে স্থানীয় ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলি। এ ধরনের সিদ্ধান্ত টার্মিনাল-সংক্রান্ত ক্রিয়াকলাপগুলি পরিচালনা করতে সক্ষম স্থানীয় উদ্যোক্তাদের প্রেরণা এবং বিকাশের জন্য একটি সম্ভাব্য হুমকি হিসেবে দেখা হয়।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ (সিপিএ) ২০১৯ সালে পতেঙ্গায় ৩২ একর জমিতে পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল নির্মাণ শুরু করে, যার ব্যয় ছিল  ১ হাজার ২২৯ কোটি টাকা। জুন ২০২২-এ সম্পন্ন হওয়া টার্মিনালটিকে পরিচালনা করার জন্য আরএসজিটিঅআইকে ২২ বছরের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়, তারা উন্নত সরঞ্জাম ও মেশিনারিজ স্থাপন করার লক্ষ্যে ১৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করার পরিকল্পনা করছে। বে টার্মিনাল প্রকল্পটি ২০২২ সালে, বিশ্বব্যাংকের ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) সমীক্ষা শুরু করে এবং প্রধান ন্যাভিগেশনাল চ্যানেল ড্রেজিং করতে এবং ব্রেক ওয়াটার তৈরি করতে ৫০০ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করে। বে টার্মিনাল প্রকল্পটি ২৫০০ একর বিস্তৃত হবে, বর্তমানে যার আয়তন ৫৬৭ একর।  সিপিএর নিয়ন্ত্রণাধীন এ প্রকল্পে আরো জমি অধিগ্রহণ চলছে।

সম্প্রতি আবুধাবি পোর্টস গ্রুপ ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়ে চারটি টার্মিনালের একটি নির্মাণের জন্য একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। পিএসএ সিংগাপুর এবং ডিপি ওয়ার্ল্ড ও পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ মডেলের অধীনে আরো দুটি টার্মিনাল নির্মাণ ও পরিচালনার জন্য চুক্তি করেছে, যার প্রতিটিতে দেড় বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি রয়েছে।

বিদেশি বিনিয়োগকারীদের বিলিয়ন বিলিয়ন বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও, প্রকল্পগুলির অগ্রগতি ন্যূনতম। এক্ষেত্রে বিদেশি অপারেটররা এখনো উল্লে­খযোগ্যভাবে অবদান রাখতে পারেনি। পিসিটি প্রকল্পে, আরএসজিটিঅআইকে এর অপারেশনাল নিয়ন্ত্রণ থাকা সত্ত্বেও প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এখনো স্থাপন করেনি। এছাড়া, সিপিএয়ের সিসিটি এবং এনসিটিয়ের টার্মিনালগুলোর অপারেটরের সম্ভাব্য পরিবর্তনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, যা বিদেশি অপারেটরদের দিকে সরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এই বিদেশি সংস্থাগুলি বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ আনবে কি না, তা এখনো স্পষ্ট নয়। সিপিএয়ের প্রাথমিক উদ্দেশ্য হওয়া উচিত, কীভাবে আমরাও ভিয়েতনামের মাত্রায় উত্পাদনশীলতা বাড়াতে পারি, যেখানে ভিয়েতনাম থেকে ইউএসএলএক্স পর্যন্ত সরাসরি ট্রানজিট সময় ২২দিন। পক্ষান্তরে চট্টগ্রাম থেকে ইউএসএলএক্স ট্রান্সশিপমেন্টের মাধ্যমে ৩২ দিনের তুলনায় বেশি। উন্নত ট্রানজিট সময় কমাতে পারলে ওয়ালমার্ট, গ্যাপ, জারা, সিকে, টপসন, টার্গেট, জেসি-পেনির  মতো প্রধান বিদেশি ক্রেতারা উপকৃত হবে, দেশের রপ্তানির পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে এবং বাংলাদেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করবে। যদি আমরা বিদেশি অপারেটরদের কাছে একটি প্রস্তুত টার্মিনাল হস্তান্তর করি, তবে এটি এই ধরনের টার্মিনাল পরিচালনার জন্য যোগ্য স্থানীয় ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলির ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলবে। অতএব বিদেশি অপারেটরের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করার আগে, সবার ন্যায্য অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার জন্য সমস্ত আগ্রহী পক্ষকে একটি উন্মুক্ত দরপত্র জমা দেওয়ার সুযোগ দেওয়া উচিত।

আমরা যদি পিসিটি এবং বে টার্মিনালের মতো আমাদের টার্মিনালগুলিকে বিদেশি অপারেটরদের পরিচালনা করার জন্য কর্তৃত্ব প্রদান করতে চাই, তাহলে এটি শেষ পর্যন্ত আমাদের স্থানীয় ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলিকে অবনমিত করবে। তাই, আমাদের সর্বদা একটি উন্মুক্ত দরপত্র জমা দেওয়ার নীতি চালু রাখা উচিত। 

মাতারবাড়ি গভীর সমুদ্রবন্দর প্রকল্পের কথা বিবেচনা করলে আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, জাপান আমাদের স্বপ্ন পূরণে সহায়তার জন্য অবকাঠামোগত মেগা-প্রকল্পে বিনিয়োগে মুখ্য ভূমিকা পালন করছে। বৃহত্তর চট্টগ্রামের মাতারবাড়িতে প্রথম গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের জন্য জাপানি অর্থায়ন বাংলাদেশকে তার গভীর সমুদ্রবন্দর চ্যালেঞ্জগুলি কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করছে। তারা প্রায় ১ দশমিক ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করছে, যা ১৭ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার সমতুল্য, এই প্রকল্পের মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর, ২০২৬ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এই ধরনের বিনিয়োগ অত্যন্ত প্রশংসনীয়, কিন্তু বিদেশি অপারেটরদের তাদের বিনিয়োগ ছাড়াই আমাদের প্রস্তুত প্রকল্পগুলি হস্তান্তর করা অন্যায়।

যদিও বিদেশি বিনিয়োগকারীরা পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল (পিসিটি) এবং বে টার্মিনালের মতো প্রকল্পে বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, তবে প্রকল্পের উন্নয়ন অগ্রগতি নির্দেশ করে যে, তাদের বিনিয়োগের গতি শূন্যের কাছাকাছি। বিশ্বব্যাংক ব্রেক ওয়াটার নির্মাণে বিনিয়োগ করছে, কিন্তু সেই ক্ষেত্রে বিদেশি অপারেটররা এখনো উল্লে­খযোগ্য অবদান রাখছে না। যদি আমরা পিসিটি প্রকল্পটি গভীরভাবে পরীক্ষা করি, আরএসজিটিঅআই এখনো যন্ত্রপাতি স্থাপন করতে না পারলেও সিপিএ ইতিমধ্যে তাদের কাছে টার্মিনাল হস্তান্তর করেছে। এই মেগা-প্রকল্পগুলির অগ্রগতি এত ধীর যে,  বিদেশি বিনিয়োগকারীরা প্রথম থেকেই বিনিয়োগের পরিবর্তে প্রস্তুত টার্মিনাল পাবার সুযোগ নিয়ে নিচ্ছে। তাই স্থানীয় ব্যাবসায়িক স্বার্থ রক্ষার জন্য উন্মুক্ত দরপত্র জমা দেওয়ার নীতি নিশ্চিত করে, এই ধরনের টার্মিনালগুলি পরিচালনা করার জন্য আমাদের সমস্ত যোগ্য ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সমান সুযোগ দেওয়া উচিত। এতে তা গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করবে বলে আশা করা যায়।

লেখক: সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন

ইত্তেফাক/এএইচপি