শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

‘ইন্ডিয়া’ জোট ক্ষমতায় এলে পাঁচ বছরে পাঁচ জন প্রধানমন্ত্রী হবেন: মোদি

আপডেট : ২৭ মে ২০২৪, ১১:৩৭

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, বিরোধী ‘ইন্ডিয়া’ জোট ক্ষমতায় এলে পাঁচ বছরে পাঁচ জন প্রধানমন্ত্রী হবেন। গতকাল রবিবার বিহারের পাটনার পাটালিপুত্র আসনে নির্বাচনি জনসভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। 

তিনি আরো দাবি করেন, মুসলিমদের তুষ্ট করতে ইন্ডিয়া জোট ‘মুজরো’ (নাচ) করতেও পিছপা নয়। মোদির এই মন্তব্য শালীনতার সব সীমা ছাড়িয়ে গেছে বলে পালটা আক্রমণ করেছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াংকা গান্ধী। তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর নিজের পদের মর্যাদার কথাটা মাথায় রাখা উচিত।

আনন্দবাজার পত্রিকার এক খবরে বলা হয়েছে, বিরোধী জোটের নেতা কে হবেন—তা নিয়ে শুরু থেকেই প্রশ্ন তুলে সরব হয়েছে বিজেপি। নেতৃত্বের আগাম ঘোষণা জোট ভেঙে দিতে পারে—সেই আশঙ্কায় বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছে ইন্ডিয়া জোটের শরিকেরা। 

গতকাল পাটালিপুত্রের সভায় নাম না করে মোদি বলেন, প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে রয়েছেন গান্ধী পরিবারের ছেলে (রাহুল গান্ধী), সমাজবাদী পরিবারের ছেলে (অখিলেশ যাদব), ন্যশনাল কনফারেন্স পরিবারের ছেলে (ওমর আবদুল্লা), এনসিপি পরিবারের কন্যা (সুপ্রিয়া সুলে), তৃণমূল পরিবারের ভাইপো (অভিষেক ব্যানার্জি) আম আদমি পার্টির স্ত্রী (সুনীতা কেজরিওয়াল), নকল শিবসেনা পরিবারের ছেলে (আদিত্য ঠাকুর) এবং সব শেষে আরজেডি পরিবারের ছেলে-মেয়েরা (তেজস্বী যাদব ও তার দিদিরা)। মোদির কথায়, বিরোধী জোট একবার ক্ষমতায় এলেই প্রধানমন্ত্রীর পদকে কেন্দ্র করে দলগুলোর মধ্যে লড়াই শুরু হবেই।

পরিবারতন্ত্রের রাজনীতি নিয়ে আক্রমণ শানানোর পাশাপাশি মোদি বিরোধীদের মুজরো শিল্পীদের সঙ্গেও তুলনা করেন। তিনি বলেন, বিহার বরাবরই সামাজিক ন্যায়বিচারের লড়াইকে নতুন দিশা দিতে সক্ষম হয়েছে।

তিনি বলেন, বিরোধীরা তপশিলি জাতি, জনজাতি এবং ওবিসিদের অধিকার ছিনিয়ে নিয়ে তা মুসলিমদের হাতে তুলে দিতে চাইছে। কিন্তু আমি ইন্ডিয়া-র পরিকল্পনাকে বাস্তবায়িত করতে দেব না। বিরোধী জোট ইন্ডিয়া ওদের গোলাম হয়ে ভোটব্যাংককে তুষ্ট করার জন্য মুজরো পর্যন্ত করতে পারে। বিহারের পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্দশা নিয়ে বলতে গিয়ে লালুপ্রসাদ যাদবের ছেলে তেজস্বীর সমালোচনায় ফের মুজরো প্রসঙ্গ টেনে আনেন মোদি। তিনি বলেন, তেলাঙ্গানা, পাঞ্জাব, পশ্চিমবঙ্গের নেতারা বিহারের শ্রমিকদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করা সত্ত্বেও আরজেডি নেতারা নিজেদের প্রতীক চিহ্ন লণ্ঠন নিয়ে মুজরো করে যাচ্ছেন, প্রতিবাদে একটি কথা বলার সাহস নেই।

প্রধানমন্ত্রীর ‘মুজরো’ মন্তব্যের পালটা আক্রমণ করেছেন প্রিয়াংকা গান্ধী। প্রধানমন্ত্রীর পদে থাকা ব্যক্তির মুখে বিরোধীদের সম্পর্কে এমন শব্দ মানায় না—মোদিকে তা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন তিনি। প্রিয়াংকা বলেন, প্রধানমন্ত্রী কী বলছেন? তার কি নিজের পদের সম্মান রক্ষা করার দায়িত্ব নেই? আমরা প্রধানমন্ত্রীর পদকে সম্মান করি। কিন্তু তার আসল পরিচয় এখন সবাই দেখতে পাচ্ছে। তিনি ভুলে গিয়েছেন যে, তিনি আমাদের দেশকে প্রতিনিধিত্ব করেন। এমন কথা বললে ভবিষ্যত্ প্রজন্মই বা কী বলবে!

ইত্তেফাক/এএইচপি