শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

বাংলাদেশের জয় উপভোগ করেননি তামিম

আপডেট : ১০ জুন ২০২৪, ১২:০৭

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় দিয়ে টাইগার বাহিনী অনেক সমালোচনার জবাব দিয়েছেন, এমনটাই মনে করেন তারকা ওপেনার তামিম ইকবাল। বর্তমানে দলের বাইরে থাকা এই ক্রিকেটার এমনটি মনে করলেও বাংলাদেশের জয় উপভোগ করতে পারেননি বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে তাওহীদ হৃদয় যেভাবে ব্যাটিং করেছে, সেটি নিয়ে বেশ সন্তুষ্ট তামিম। লিটন দাসের ৩৮ বলে ৩৬ রানের ইনিংস নিয়ে তামিম কিছুটা আক্ষেপ করেছেন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ শেষে ক্রিকেট-বিষয়ক গণমাধ্যম ক্রিকইনফোর এক সাক্ষাত্কারে এসব বিষয়ে কথা বলেছেন তামিম ইকবাল।

জাতীয় দলের তারকা ওপেনার তামিম বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজ হারের পর অনেক সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হয়েছে। অনেক কথা হয়েছে। সেসবের জবাব দিয়েছে এই জয়। এছাড়া পরের ম্যাচগুলো নিয়ে চিন্তা করার ক্ষেত্রে দারুণ ভূমিকা রাখবে এই জয়, ক্রিকেটারদের ভালোভাবে ভাবতে সহায়তা করবে। খেলাটা দারুণ ছিল। বিশেষ করে বোলাররা অনবদ্য পারফরম্যানস করেছেন। প্রথমদিকে শ্রীলঙ্কা এগিয়ে থাকলেও পরের গল্পটুকু শুধু বাংলাদেশেরই। বোলাররা বাউন্ডারি না দেওয়ার বিষয়ে দক্ষতা দেখিয়েছেন, তাতে শ্রীলঙ্কান ব্যাটারদের ওপর চাপ তৈরি করা সম্ভব হয়েছে।’

বাংলাদেশের জয় নিয়ে তামিম বলেছেন, ‘বাংলাদেশ যেভাবে জিতেছে, সেটি আমি উপভোগ করিনি। ১২৫ বা ১৩৫ রান করা টি-টোয়েন্টিতে কঠিন ব্যাপার না। কৌশলী হলে খুব সহজেই সেটি তুলে নেওয়া যায়। প্রথমদিকে যারা ব্যাটিংয়ে থাকবেন তাদের ছয় ওভারের মধ্যে দ্রুত রান তুলে নিতে হবে। সেখানে দ্রুত রান তুলতে পারলেই তখন সবকিছু অনেক সহজ হয়ে যাবে। মিডল অর্ডারের ব্যাটারদের তখন রানরেট নিয়ে চাপে থাকতে হয় না। আমাদের এক-দুইটা উইকেট খুব দ্রুত চলে গিয়েছিল। কিন্তু লিটন খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন। তাকে আরো আক্রমণাত্মক হতে হতো। তিনি যেভাবে ধীর গতিতে খেলেছেন, সেটি আমি উপভোগ করতে পারিনি। আমি কোনো নির্দিষ্ট ব্যাটারকে নিয়ে কথা বলছি না, পুরো দল নিয়েই বলছি।’

তবে হৃদয় জিতেছেন হৃদয়। ব্যাট হাতে বগুড়ার এই ক্রিকেটার ঝোড়ো ইনিংস খেলে জয়ের দরজা খুলে দিয়েছেন। তাকে নিয়ে তামিম বলেছেন, ‘তাওহীদ হূদয়কে কৃতিত্ব দিতেই হবে। ২০ বলে তিনি ৪০ রান করেছেন। পুরো ম্যাচের প্রেক্ষাপটই তাতে বদলে গেছে। তার এই রানের কারণে শেষদিকে বাংলাদেশ জয় তুলে নিতে পেরেছে।’

ইত্তেফাক/এএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন