ঢাকা শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০, ২১ চৈত্র ১৪২৬
২৫ °সে

নিউইয়র্ক পুলিশের ট্রাফিক বিভাগেও বাংলাদেশিদের জয়জয়কার!

নিউইয়র্ক পুলিশের ট্রাফিক বিভাগেও বাংলাদেশিদের জয়জয়কার!
পুলিশের ট্রাফিক সুপারভাইজার পদে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি ক্লাসের আয়োজন করে বাপা। ছবি: ইত্তেফাক

বিশ্বের অন্যতম সেরা পুলিশ বাহিনী নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগে (এওয়াইপিডি) নিয়মিত অফিসারদের পাশাপাশি ট্রাফিক বিভাগেও বাংলাদেশিদের সংখ্যা বাড়ছে। সম্মানজনক পেশা এবং ভালো বেতনের জন্য অনেক বাংলাদেশি এখন যোগ দিচ্ছেন এনওয়াপিডির ট্রাফিক বিভাগে। বর্তমানে এক হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি এজেন্ট কর্মরত রয়েছেন ট্রাফিক বিভাগে। যাদের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় পদ ট্রাফিক ম্যানেজার ও সুপারভাইজার হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন অনেকেই।

এদিকে ট্রাফিক এজেন্ট থেকে সুপারভাইজার পদে পদোন্নতির পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে প্রস্তুতি ক্লাসের আয়োজনের মাধ্যমে তাদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছে বাংলাদেশি আমেরিকান পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন (বাপা)। গত রবিবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের কুইন্সে জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে অনুষ্ঠিত চতুর্থ ও শেষ প্রস্তুতি ক্লাসে বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি ট্রাফিক এজেন্ট অংশ নেন। তাদের পরামর্শ দেন বাপার সাবেক প্রেসিডেন্ট ও নিউইয়র্ক পুলিশের লেফটেন্যান্ট শামসুল হক, বাপার অন্যতম সদস্য ও পুলিশ অফিসার আব্দুল লতিফ ও ট্রাফিক ম্যানেজার মো. জলিল প্রমুখ।

প্রস্তুতি ক্লাসের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন বাংলাদেশি আমেরিকান পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের (বাপা) প্রেসিডেন্ট ও নিউইয়র্ক পুলিশের এক্সিকিউটিভ অফিসার ক্যাপ্টেন কারাম চৌধুরী, জেনারেল সেক্রেটারি ও নিউইয়র্ক পুলিশের লেফটেন্যান্ট প্রিন্স আলম, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ও নিউইয়র্ক পুলিশের সার্জেন্ট এরশাদুর রহমান, মিডিয়া লিয়াজোঁ ও নিউইয়র্ক পুলিশের ইন্টেলিজেন্স ব্যুরোর ডিটেকটিভ জামিল সরোয়ার, ট্রাস্টি ও নিউইয়র্ক পুলিশের অফিসার রাসেক মালিক, করেসপন্ডেন্ট সেক্রেটারি ও নিউইয়র্ক পুলিশের অক্সিলারি সার্জেন্ট সৈয়দ এনায়েত আলী, সার্জেন্ট অ্যাট আর্মস ও নিউইয়র্ক পুলিশের অফিসার জুয়েল মাহবুবুর রহমানসহ বাপার এক্সিকিউটিভ কমিটির অন্যান্য কর্মকর্তারা।

আরো পড়ুন: নিউইয়র্ক পুলিশের ক্যাপ্টেন হলেন কারাম চৌধুরী

উল্লেখ্য, নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগে দুই শতাধিক নিয়মিত অফিসার রয়েছেন। যাদের মধ্যে নির্বাহী কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন পদে পদোন্নতি পেয়েছেন দুজন বাংলাদেশি। আরো কয়েকজন ক্যাপ্টেন পদে পদোন্নতির অপেক্ষায় রয়েছেন। এছাড়া লেফটেন্যান্ট ও সার্জেন্ট পদে বাংলাদেশি কর্মকর্তা রয়েছেন আরো অর্ধশত কর্মকর্তা। যাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন নারী কর্মকর্তাও রয়েছেন। বাংলাদেশি সহকর্মীদের পেশাগত উন্নয়ন ছাড়াও বাংলাদেশি কমিউনিটির জন্য নিরলসভাবে কাজ করছে বাপা। যা ইতিমধ্যে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে।

ইত্তেফাক/এএএম

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
০৪ এপ্রিল, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন