সাধারণ গামছাই ওদের কাছে ভয়ংকর মারণাস্ত্র

রাজধানীতে গামছা পার্টির দৌরাত্ম্য বেড়েছে
সাধারণ গামছাই ওদের কাছে ভয়ংকর মারণাস্ত্র
প্রতীকী ছবি। ছবি: সংগৃহীত

বৃদ্ধ মা সুমিত্রা বালা সূত্রধর, সদ্য বিবাহিত স্ত্রী এবং অন্যান্য আত্মীয়স্বজনের কাছে বিদায় নিয়ে গত ৫ মে সন্ধ্যায় বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ থানার মোকামতলা বাসস্ট্যান্ডে শ্বশুরকে নিয়ে হাজির হন সুভাষ চন্দ্র সূত্রধর (৩৫)। পরবর্তী সময়ে রাজধানীর খিলক্ষেত থানার কুড়িল বিশ্বরোডের ৩০০ ফুটমুখী ফ্লাইওভারের ওপরে সুভাষের রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে টহল পুলিশ।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে, গামছা পার্টির হাতেই নিহত হয়েছেন সুভাষ সূত্রধর। যারা ঘটনাটি ঘটিয়েছে, তাদের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় তথ্য পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। তাদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গভীর রাতে বাস, মিনিবাস চলাচল বন্ধ থাকে। তখন দূরপাল্লার যাত্রীরা কখনো কখনো তুরাগ, উত্তরার আব্দুল্লাহপুর, হাউজিংয়ের মোড়, কামারপাড়া, বিমানবন্দর থেকে ঢাকা মহানগরীর ভেতরে চলাচলের জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশা, মাইক্রোবাস, প্রাইভেট কার অথবা মালবাহী পিকআপে উঠে থাকে। গণপরিবহনের এই স্বল্পতার সুযোগ নিয়ে ছিনতাইকারী বা ডাকাত চক্রের সদস্যদের মধ্য থেকে এক জন ড্রাইভার সাজে। অপর তিন-চার জন সহযাত্রী সেজে উপযুক্ত ভিকটিমকে খুঁজে পেলে লিফট দেওয়ার নাম করে গাড়িতে তোলে। প্রথম ভিকটিমের সংবেদনশীল জায়গায় আঘাতসহ এলোপাতাড়ি চড়, ঘুসি মারতে থাকে চক্রটি। তারপরে সঙ্গে থাকা গামছা দিয়ে দুই দিক থেকে চেপে শ্বাসর রোধ করে ফেলে। এভাবে ছিনিয়ে নেয় টাকাপয়সা, স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন। ভিকটিম বেশি জোড়াজুড়ি করলে শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ ফেলে দেয় সড়কে।

অপরাধীদের কাছে প্রাণঘাতী অস্ত্র, মালামাল না থাকায় এবং চলনে-বলনে সাধারণ মানুষের মতো দেখায় বলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা এদের সন্দেহ করে না। এই অতিসাধারণ গামছাকেই প্রাণঘাতী অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে নিমেষেই নিরপরাধ প্রাণ কেড়ে নিয়ে শহরব্যাপী বিচরণ করছে নির্বিঘ্নে।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) গুলশান বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, কুড়িল-বিশ্বরোড ফ্লাইওভার, পূর্বাচল ৩০০ ফুট এক্সপ্রেসওয়ে এলাকা কিছুটা ভালনারেবল। এখানে নানা ধরনের নির্মাণকাজ হচ্ছে। সে কারণে আলোকবাতি, সিসি ক্যামেরা ইত্যাদির পর্যাপ্ত অভাব আছে। ঢাকা মহানগরীর এই অঞ্চলগুলোতে প্রশস্ত ও ফাঁকা রাস্তা হওয়ার কারণে অপরাধীরা অপরাধ করে মাঝেমধ্যেই নির্বিঘ্নে পালিয়ে যেতে পারে।

ইত্তেফাক/এসজেড

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x