ঢাকা সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬
২১ °সে

ট্রেন দুর্ঘটনা : সোহার জন্য কাঁদছে সবাই

ট্রেন দুর্ঘটনা : সোহার জন্য কাঁদছে সবাই
আদিবা আক্তার সোহা মণি। ফাইল ছবি

লাশ ঘরে শিশুটির নিথর দেহ। ফুটফুটে সুন্দর এই শিশুটির নাম আদিবা আক্তার সোহা মণি (৩)। পায়ের নকে নেইল পলিশ দেওয়া। পোশাক-আশাক খুবই পরিপাটি। সদর হাসপাতালের লাশ ঘরে একনজরে শিশুটিকে দেখতে এসে অনেকেই চোখের পানি ছাড়ছে। শিশু লাশ ঘরে, মা-বাবা ঢাকার হাসপাতালে ভর্তি। সাধারণ মানুষের আফসোসের শেষ নেই। ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা সম্ভাবনাময় শিশুটির জীবন থামিয়ে দিয়েছে।

সোমবার গভীর রাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কসবার মন্দবাগ স্টেশনে দুটি ট্রেনের সংঘর্ষে ১৬ জনের মৃত্যুর তালিকায় তিন বছরের শিশু ছোঁয়ামনিও রয়েছে। তার বাবা সোহেল মিয়া চট্টগ্রামের একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে কাজ করেন ও মা নাজমা বেগমসহ তিন সদস্যের এই পরিবারটি সিলেট থেকে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল। দুর্ঘটনায় কেড়ে নেয় শিশুটির প্রাণ। তাদের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং বড়ো বাজার এলাকায়। নিহত হওয়ার পর শিশুটির ঠাঁই হয় সদর হাসপাতাল মর্গে। আর মা-বাবাকে প্রথমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পরে হাবিগঞ্জ এবং সেখান থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিশুটিকে দেখে অনেকেই সদর হাসপাতালে ভিড় করেন।

আরো পড়ুন : ধীরে ধীরে সুস্থ হচ্ছেন লতা মঙ্গেশকর

লাশ কাটা ঘরে কথা হয় সানিয়া সুলতানার সঙ্গে। তিনি জানান, সকালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবিটি দেখে নিজেকে মানিয়ে রাখতে পারিনি। কয়েক ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে শিশুটিকে দেখি। হাসপাতালের ডোম বাদশা মিয়া বলেন, জীবনে অনেক লাশ কাটা-ছেঁড়া করেছি। কিন্তু এমন একটি শিশুকে এভাবে মৃত্যুবরণ করতে দেখে মনের মধ্যে খুবই কষ্ট হচ্ছে। শিশুটির পিঠে ও মাথায় আঘাতে মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেন হাসপাতালের এই ডোম।

সোহার মামা জামাল মিয়া ভাগনির লাশ বুঝে নিয়েছেন। ভাগনির লাশ নিতে সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদনপত্র জমা দেন তিনি।

ইত্তেফাক/এসি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন