ঢাকা শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬
৩১ °সে


আর্থিক সহায়তা পেয়েছে ৭ জেলে পরিবার

বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবি: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১১

বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবি: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১১
৭ জেলে পরিবার পেলে আর্থিক সহায়তা

কক্সবাজার উপকূলে ট্রলার ডুবির ঘটনায় ভোলার চরফ্যাশনের আরও পাঁচ জেলের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে কক্সবাজারের সমিতি পাড়া থেকে ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এর আগে দুপুরে হিমছড়ি ও মহেশখালী থেকে উদ্ধার করা হয় আরও দু’জনের লাশ।

এনিয়ে ২ দিনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ জনে। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কবলে পড়ে বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ১১ জনের মধ্যে সাতজনের পরিচয় মিলেছে। তারা হলেন-ভোলার চরফ্যাশনের রসুলপুর ১ নম্বর ওয়ার্ডের শামছুদ্দিন পাটোয়ারী (৪৫), পূর্ব মাদ্রাসা এলাকার বাসিন্দা কামাল হোসেন (৩৫), উত্তর মাদ্রাসা এলাকার অলি উল্লাহ (৪০), একই এলাকার অজি উল্লাহ (৩৫), মো. মাসুদ (৩৮), বাবুল মিয়া (৩০) ও জাহাঙ্গীর আলম।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো: ইকবাল হোসাইনের বরাত দিয়ে চরফ্যাশন থানার ওসি শামসুল আরেফীন জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে হিমছড়ি ও মহেশখালীর হোয়ানক থেকে দু’জন ও রাত ১০টার দিকে কক্সবাজারের সমিতি পাড়া থেকে তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এর আগে গত বুধবার কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে সাগর থেকে ভেসে আসা একটি ফিশিং ট্রলার থেকে ছয় জেলের লাশ উদ্ধার ও দুজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। জীবিতরা কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। নিহত ১১ জনের মধ্যে সাতজনের পরিচয় মিলেছে। পরিচয় শনাক্ত হওয়া সাতজনকে স্বজনদের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

জীবিত উদ্ধার হওয়া মনির আহমদ মাঝি জানান, তারা গত ৪ জুলাই ভোলার চর ফ্যাশনের শামরাজ ঘাট থেকে মাছ ধরার উদ্দেশে সাগরে যান। তারা মোট ১৪ জন ওই ট্রলারে ছিলেন। গত ৬ জুলাই ভোরে হঠাৎ ঝড়ো হাওয়া ও উত্তাল ঢেউয়ের কারণে ট্রলারটি ডুবে যায়।

পুলিশ জানিয়েছে, দুর্ঘটনার কবলে পড়া ট্রলারটির মালিক ভোলার চর ফ্যাশন উপজেলার ওয়াজ উদ্দিন পিটার।

নিহত ৭ জেলে পরিবার পেল আর্থিক সহায়তা: নিহত ৭ জেলে পরিবারকে ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে সরকারি। শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকেলে চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে জেলে পরিবারের সদস্যদের হাতে টাকা তুলে দেয়া হয়।

আরও পড়ুন: বিএনপি আমলে স্বাস্থ্য সেবায় ব্যাপক লুটপাট হয়েছে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন জানান, নিহত জেলেদের প্রত্যেক পরিবারকে দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় দাফনের জন্য ২৫ হাজার টাকা এবং মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ অধিদফতরের পক্ষ থেকে এক লাখ টাকা দেয়া হয়। এছাড়া আহত জেলেদের চিকিৎসার জন্য ১০ হাজার টাকা করে দেয়া হয়েছে।

ইত্তেফাক/আরকেজি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২০ জুলাই, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন