মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ৪ মাঘ ১৪২৮
দৈনিক ইত্তেফাক

মোংলাবন্দরে ভিড়তে পারছে না জাহাজ

আপডেট : ০৯ নভেম্বর ২০২১, ২১:০৯

মোংলাবন্দর কর্তৃপক্ষের জেটিতে নাব্যতা সংকটের কারণে সময় মত ভিড়তে পারছেনা বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজ। ফলে রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আমদানিকৃত মালামাল নিয়ে গত দুইদিন ধরে বন্দরের ফেয়ারওয়ে এলাকায় বাধ্য হয়ে অবস্থান করছে পানামা পতাকাবাহী এম,ভি এসটিএল হারভেস্ট নামের একটি বিদেশী জাহাজ। 

এম,ভি এসটিএল হারভেস্ট’র স্থানীয় শিপিং এজেন্ট কিউএনএস’র খুলনার ম্যানেজার মো. নাজমুল জানান, এম,ভি এসটিএল হারভেস্ট ভারত থেকে রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩৯শ মেট্রিক টন মালামাল নিয়ে সোমবার (৮ নভেম্বর) সকাল ৯টার দিকে মোংলাবন্দরের ফেয়ারওয়েতে আসে। ফেয়ারওয়েতে আসার আগের দিন রবিবার (৭ নভেম্বর) জাহাজটি বন্দর জেটিতে আনার জন্য পাইলট বুকিং দেয়া হয়েছে। কিন্তু বন্দর জেটিতে পর্যাপ্ত পরিমাণ গভীরতা না থাকায় কর্তৃপক্ষ জাহাজটি আনতে পারছেন না। 

মো. নাজমুল আরও জানান, রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের গুরুত্বপূর্ণ মালামাল নিয়ে আসা জাহাজটি জেটিতে আনতে না পারায় জাহাজে থাকা মালামাল দ্রুত খালাস করা যাচ্ছে না। এতে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের চলমান কার্যক্রম বিঘ্নিত হয়ে পড়বে। এ মাসের ১৫ তারিখও রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মালামাল নিয়ে আরও একটি বিদেশী জাহাজ এ বন্দরে আসবে। তবে জেটিতে যে নাব্যতা সংকট রয়েছে তাতে জাহাজ আনা ও পণ্য খালাসে কি অবস্থা যে হবে তা এখন বলতে পারছিনা। 

মোংলাবন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাষ্টার কমান্ডার শেখ ফখরউদ্দীন বলেন, জেটিতে প্রতি বছরই ড্রেজিং করে নাব্যতা সংরক্ষণ করতে হয়। এবারও তা করতে গিয়ে নানা প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টিতে বিলম্ব হচ্ছে। জেটির ৯ নম্বরে নাব্যতা রয়েছে, সেখানে ৭ মিটারের জাহাজ ভিড়তে পারছে। আর সেখানে বর্তমানে একটি জাহাজও রয়েছে। বাকী ৭ ও ৮ নম্বরে ড্রেজিংয়ের জন্য ডাইক (বালু ফেলার স্থান) নির্মাণে বন্দরের নির্ধারিত জায়গা প্রস্তুত করতে গেলে সেখানে অবৈধ ধান ক্ষেতের কারণে তা বিলম্ব হয়। আশা করছি ডিসেম্বরের মাঝামাঝি এ সমস্যা আর থাকবেনা। 

ইত্তেফাক/ ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বিলোনীয়া স্থলবন্দর দিয়ে আমদানিও করা যাবে

যাদুকাটা নদীপথে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ, বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে চাল আমদানি বন্ধ