বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শাবিতে ভর্তি জালিয়াতির ঘটনা

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৩:৪৯

ইত্তেফাক অনলাইনে গত ৮ ফেব্রুয়ারি 'শাবির ভর্তি জালিয়াতিতে চবির দুই শিক্ষার্থী জড়িত থাকার অভিযোগ' শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। ওই সংবাদটির একাংশের বিষয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের মাস্টার্সে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী মো. শহিদুল ইসলাম।

প্রতিবাদলিপিতে শহিদুল ইসলাম অভিযোগ করেছেন, ওই সংবাদে তার মানহানি হয়েছে। বিষয়ের সঙ্গে তার দূরতম সম্পর্কও নেই। শাবিতে ভর্তি জালিয়াতির সঙ্গে তিনি কোনোভাবেই জড়িত ছিলেন না। তিনি আরও বলেন, ‘‘ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি করে আটক হওয়া ইকবালের সঙ্গে আমার দূরতম সম্পর্কও নেই। ইকবালকে আমি চিনি না। সংবাদের একাংশে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘এ জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তিচেষ্টার পেছনে রয়েছেন চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী। এদের একজন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থী আতিকুর রহমান এবং অপরজন আতিকের বড় ভাই লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী শহিদুল ইসলাম।’ আতিক আমার ভাই নয়। এটাও চরম মিথ্যাচার। সংবাদের বিভিন্ন অংশে আমাকে অহেতুক জড়িয়ে আমার মানহানি করা হয়েছে। আমি এর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’’

প্রতিবেদকের বক্তব্য: প্রক্টরিয়াল বডির বক্তব্য ও আটক ব্যক্তির স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ‘শাবির ভর্তি জালিয়াতিতে চবির দুই শিক্ষার্থী জড়িত থাকার অভিযোগ’ প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে সহকারী প্রক্টর আবু পহিল বলেন, ‘‘প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইকবাল হোসেন সাইদ জানিয়েছেন, তার বন্ধু চবির আতিকুর রহমানের বড় ভাই শহিদুল ইসলামই মূলত তাকে অসাধু উপায়ে ভর্তির পথ দেখান। ভর্তি পরীক্ষার দিন রাশেদ নামের একজনকে দিয়ে ইকবাল হোসেন সাইদের ‘প্রক্সি’ দেওয়ার ব্যবস্থা করেন শহিদুল। এর বিনিময়ে তিনি নেন ২ লাখ ৩০ হাজার টাকা। যেটা আতিকুরের কক্সবাজারের চকোরিয়ার ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামিক ব্যাংক’-এর একটি অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে নেওয়া হয়। তবে তাৎক্ষণিকভাবে ইকবাল হোসেন সাইদের কাছ থেকে পাওয়া শহিদুল ও আতিকুরের মোবাইল নম্বরে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।"

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

শাবিপ্রবি ক্যাম্পাসে বন্যার পানি, বিপাকে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

গবেষণায় ভিসি অ্যাওয়ার্ড পেলেন শাবির তিন শিক্ষক

পিএইচডিকালীন ইনক্রিমেন্টে ইউজিসির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার দাবি

অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করবে বর্তমান শাবি শিক্ষক সমিতি: ড. আখতারুল ইসলাম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

জরুরী সেবা চালু করলো শাবির প্রক্টর অফিস

শাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি আখতারুল, সম্পাদক জহির

১১ দফা দাবি জানিয়েছেন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরা

শাবিতে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত