বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

১১ দফা দাবি জানিয়েছেন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরা

আপডেট : ২৯ মার্চ ২০২২, ০০:০৬

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন এবং উপাচার্য বরাবর ১১ দফা দাবি তুলে ধরেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের 'কর্মচারী সমিতি' এবং 'কর্মচারী ইউনিয়ন'।

সোমবার (২৮ মার্চ) দুপুরে শাবি প্রেসক্লাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের মতবিনিময় করেন এ দুই সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এসময় তারা  বাংলাদেশ আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী ফেডারেশন কর্তৃক গৃহীত ১১ দফা দাবি তুলে ধরেন।

তাদের দাবির মধ্যে রয়েছে- স্থায়ী বেতন কমিশন গঠন পূর্বক বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত ১৯৭৩ সালের ১০ ধাপে ১ম পে-স্কেল বাস্তবায়ন করা; পে-স্কেল বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত ৫০ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা প্রদান করা; 'বাআবিকফ' কর্তৃক পেশকৃত খসড়া পদোন্নতি নীতিমালা অথবা সকল স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের নীতিমালা পর্যালোচনা করে সর্বোচ্চ সুবিধাপ্রাপ্ত অভিন্ন নীতিমালা প্রণয়ন করা; বাংলাদেশ সচিবালয়ের ন্যায় প্রধান সহকারী-সমমান, উচ্চমান সহকারী, সমমান পদে কর্মরত কর্মচারীদের জাতীয় বেতন স্কেল (২০০৯) দশম গ্রেড বাস্তবায়ন করা। 

এছাড়া সকল পাবলিক, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারী নিয়োগ এবং কর্মচারীদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সকল ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ব-স্ব বেসিক সংগঠনের প্রতিনিধিদেরকে কমিটিতে রাখা; বাংলাদেশ আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী ফেডারেশনকে বাৎসরিক (দশ লক্ষ) টাকা আর্থিক অনুদান দেওয়া; সকল পাবলিক, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে জেলা কোটা অনুসরণ করা; সকল পাবলিক, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারীদের কোন কারণে সাময়িক-স্থায়ী বরখাস্তকরণের জন্য গঠিত তদন্ত কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন-শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের বেসিক সংগঠনের প্রতিনিধি রাখা।

দাবিগুলোর মধ্যে আরও রয়েছে- জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কল্যাণ শাখা কর্তৃক জারিকৃত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী সকল পাবলিক, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলে সরকারী কর্মচারীদের ন্যায় তার পরিবারকে আট লক্ষ টাকা এবং স্থায়ীভাবে অক্ষম হলে চার লক্ষ টাকা প্রদান করা; যোগ্যতা অনুযায়ী সকল পাবলিক, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকুরি ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ক্ষেত্রে পোষ্যকোটা নিশ্চিত করা, সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে যোগ্যতা ও দক্ষতা অনুযায়ী অভ্যন্তরীণ প্রার্থীদেরকে ৫০ শতাংশ অগ্রাধিকার দেওয়া, সকল পাবলিক, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীদের পর্যাপ্ত আবাসনের ব্যবস্থা করা।

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে উপস্থিত ছিলেন কর্মচারী সমিতির সভাপতি মো. শাহজাহান সিরাজ, সাধারণ সম্পাদক মো. জুয়েল মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মোখলেসুর রহমান মাহফুজ, সমাজসেবা সম্পাদক মো. ফয়সাল খান, সাবেক সভাপতি মো. আব্দুর রউফ, কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক রমজান আহমদ, সাবেক সভাপতি মো. সাদেক আহমদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. সালাউদ্দিন বুকসান প্রমুখ। 

তারা আরও বলেন, বুধবার (৩০ মার্চ) শাবি ক্যাম্পাসে আসবেন বাংলাদেশ আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী ফেডারেশনের (বাআবিকফ) নেতৃবৃন্দ। ১১ দফা দাবী নিয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরা।

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

শাবিপ্রবি ক্যাম্পাসে বন্যার পানি, বিপাকে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

গবেষণায় ভিসি অ্যাওয়ার্ড পেলেন শাবির তিন শিক্ষক

পিএইচডিকালীন ইনক্রিমেন্টে ইউজিসির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার দাবি

অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করবে বর্তমান শাবি শিক্ষক সমিতি: ড. আখতারুল ইসলাম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

জরুরী সেবা চালু করলো শাবির প্রক্টর অফিস

শাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি আখতারুল, সম্পাদক জহির

শাবিতে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত

বহুভাষিক চলচ্চিত্র উৎসব করবে শাবির চোখ ফিল্ম সোসাইটি