শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পদ্মা সেতুর রক্ষণাবেক্ষণ: এখন থেকেই সতর্কতা 

আপডেট : ২৬ মে ২০২২, ০১:৫১

পদ্মার বুকে ভাসছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষা। দেশের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ হয়েছে—এটা সরকারের অনেক বড় সফলতা। নানান বাধাবিপত্তি পেরিয়ে এখন শুধুই অপেক্ষা—কখন যানবাহন চলাচলের জন্য অবমুক্ত হবে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। পদ্মা সেতুকে ঘিরে সাধারণ মানুষের অনেক প্রত্যাশা। বলা চলে, যোগাযোগব্যবস্হার অন্যতম একটা মাইলফলক পদ্মা সেতু।

সফলভাবে সম্পন্ন শেষে এর যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণের কোনো বিকল্প নেই। সাম্প্রতিক সময়ে সেতুর চারপাশে পার্শ্ববর্তী দেশের নাগরিকসহ অজানা অনেকের সন্ধান মিলেছে, যেটা নিঃসন্দেহে দুশ্চিন্তার কারণ। তার থেকেও হতাশা ও উদ্বেগের বিষয় পদ্মা সেতুর শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পাইনপাড়া এলাকায় পদ্মা নদী থেকে ৪০টি খননযন্ত্র (ড্রেজার) দিয়ে দিনে অন্তত ৮০ লাখ ঘনফুট বালু উত্তোলন করছে একটি চক্র।

এর ফলে বিগত সময়ে দেখা গেছে, পদ্মাপারের সাধারণ মানুষ নদীভাঙনের কবলে তাদের সহায়-সম্পদ হারিয়ে দিশেহারা হয়েছে। সহায়সম্পদহীন হয়েছে শত শত পরিবার। কেননা, এভাবে অতিরিক্ত বালু উত্তোলনের ফলে নদীভাঙনের সৃষ্টি হয়, যেটা রীতিমতো হুমকির সম্মুখীন আমাদের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর জন্য। বালু উত্তোলন নতুন কোনো বিষয় নয়। তবে দেখা যায়, সরকারিভাবে যে ইজারা দেওয়া হয়, তার থেকে কয়েক গুণ বেশি বালু বছর ধরে উত্তোলন করা হয় অবৈধভাবে।

এসব অভিযোগ সব সময়ই যখন যারা ক্ষমতায় থাকে তাদের দিকে থাকে। এর ফলে প্রশাসন অধিকাংশ সময় নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে। কিন্তু এভাবে যদি রীতিমতো চলতেই থাকে, তবে নদীভাঙন দিন-দিন বাড়বে এবং নদীতে যে মূল্যবান সেতু রয়েছে, সেগুলোও দিনে দিনে ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

অনতিবিলম্বে এমন বালুখেকোদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। একজন প্রকৃত দেশপ্রেমিক, রাজনৈতিক কর্মী বা একজন নাগরিক কখনোই দেশের এমন অপূরণীয় ক্ষতি করে ব্যবসা করতে পারে না।

এ বিষয়ে প্রসাশনের হস্তক্ষেপ জরুরি। পদ্মা সেতু রক্ষায় কঠিন থেকে কঠিনতম পদক্ষেপ নেওয়া এখনই সময়ের দাবি এবং নদী থেকে বালু উত্তোলনে প্রশাসনের সঠিক রূপরেখার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে তদারক করার জোর দাবি জানাচ্ছি।

লেখক :শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ

ইত্তেফাক/ ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নের গুরুত্ব

জলাবদ্ধতা ও আমাদের দায়

দুর্যোগ-হুঁশিয়ারি এবং জলবায়ু সচেতনতা

লোকসংগীতের শেকড় হারানো যাবে না

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

হলগুলোতে সিট-বাণিজ্যের অপসংস্কৃতি বন্ধ হোক

পরিবেশ রক্ষা ও প্রাণবন্ত অর্থনীতি

সুনীল অর্থনীতির অপার সম্ভাবনা

উপকূল রক্ষার্থে বনের গুরুত্ব