বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ১ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পরীক্ষার হলে ফেসবুক লাইভ

সেই ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার, বাকিরা অকৃতকার্য

আপডেট : ১৪ জুন ২০২২, ০০:৫৩

ঝিনাইদহে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে পরীক্ষা চলাকালে ফেসবুকে লাইভ করা সেই ছাত্রলীগ নেতা মনির হোসেন সুমনের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। ফলাফল শিটে তাকে বহিষ্কার করাসহ ওই কম্পিউটার অ্যাকাডেমির সকল শিক্ষার্থীকে অকৃতকার্য দেখানো হয়েছে। 

সোমবার (১৩ জুন) বিকেলে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুর রহমান স্বাক্ষরিত ফলাফলে এ তথ্য পাওয়া যায়। 

জানা যায়, কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের কম্পিউটার অফিস এপ্লিকেশনের জুলাই-ডিসেম্বর সেশনে প্রিজম কম্পিউটার অ্যাকাডেমি থেকে ১৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। ফলাফলে একজনকে বহিষ্কৃত ও বাকি ১৪ জনের রোল নম্বরের পাশে ফেল (অকৃতকার্য) দেখানো হয়েছে। 

কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন সুমন প্রিজম কম্পিউটার অ্যাকাডেমির অফিস অ্যাপ্লিকেশন কোর্সের শিক্ষার্থী ছিলেন।

গত ৮ এপ্রিল দুপুরে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ঝিনাইদহ পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট কেন্দ্রে ছয় মাস মেয়াদি কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন বিষয়ের পরীক্ষা দেওয়ার সময় ফেসবুক লাইভ করেন মনির হোসেন সুমন। 

ফেসবুক লাইভে তিনি বলেন, ‘আমরা ছাত্রলীগ, যেখানে যাব সেখানেই বুলেট। রোজা থেকে পরীক্ষা দিচ্ছি, গোল্ডেন এ প্লাস পাব। পরীক্ষার খাতায় গ্রুপের জায়গা লিখে দিয়েছি, “এমপি আনার গ্রুপ” (সরকার দলীয় স্থানীয় সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার)। স্যাররা এ প্লাস না দিলে বোর্ডমোড ভেঙে ফেলবানে।’

৯ মিনিট ৩৮ সেকেন্ডের ফেসবুকে লাইভটি মুহূর্তের মধ্যেই সারাদেশে ভাইরাল হয়ে যায়। শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা।

এরপর এ ঘটনা তদন্তে ৯ এপ্রিল ঝিনাইদহ পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের চিফ ইন্সট্রাক্টর সোহরাব হোসেনকে প্রধান করে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। একই রাতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেন। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে সদ্য বিলুপ্ত কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন সুমনের পরীক্ষা বাতিলের সুপারিশ করে। 

 

 

ইত্তেফাক/এসজেড