শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পর্দা উঠলো আইসিটি অলিম্পিয়াডের 

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২২, ১৭:০০

দেশের সবচেয়ে বড় প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠান আইসিটি অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ আনুষ্ঠানিক রেজিস্ট্রেশন-কার্যক্রম এর পর্দা উঠলো এবার। রাজধানীর কেআইবি কনভেনশন হলে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমের উদ্বোধন হয়। সেই সঙ্গে আইসিটি অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ-এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট এর শুভ সূচনা ঘোষণা করেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা।

এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেখানো পথ ধরে তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তরিত করছেন। বাংলাদেশের তরুণদেরকে যাতে বিশ্বমানের আইটি জ্ঞানসমৃদ্ধ করা যায় সে ব্যাপারে আইসিটি অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ অনেক বেশি প্রয়াস রাখবে বলে আমি আশাবাদী।

অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন দেশের আইসিটি, শিক্ষা ও গবেষণা সেক্টরের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন, ই-ক্যাব এর সভাপতি শমী কায়সার, ড. আতিউর রহমান (সাবেক গভর্নর, বাংলাদেশ ব্যাংক), ড. দেওয়ান মো: হুমায়ূন কবির (প্রকল্প পরিচালক, এটুআই), ড. সাজ্জাদ হোসেন (সদস্য, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন), নাসিমা আক্তার নিশা (প্রেসিডেন্ট, উই), সুব্রত সরকার (সভাপতি, বিসিএস) প্রমুখ।

ক্রিয়েটিভ আইটি ইন্সটিটিউট ও হুইসেল এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এই প্রতিযোগিতার নলেজ পার্টনার হিসেবে সংযুক্ত রয়েছে ই-লার্নিং প্রতিষ্ঠান ব্রাইট স্কিলস। স্কুল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা মোট ছয়টি ক্যাটাগরিতে অংশ নিতে পারবেন, যাতে সর্বমোট প্রাইজমানি থাকছে পঞ্চাশ লাখ টাকা।

আইসিটি অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ এর গভর্নিং বডির সদস্য মনির হোসেন বলেন, প্রি-স্কুল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় (পয়ত্রিশ বছর বয়স) পর্যন্ত আইসিটি শিক্ষাকে জনপ্রিয় করে তুলতে আমাদের এই আয়োজন। গভর্নিং বডির আরেক সদস্য মোহাম্মদ শাহরিয়ার খান বলেন, চতুর্থ শিল্প-বিপ্লবে আমাদের শিক্ষার্থীদের সময়োপযোগী করার জন্য এই প্রতিযোগিতাটি মাইলকফলক হয়ে থাকবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

এছাড়াও, এই প্রতিযোগিতায় দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা যাতে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অংশগ্রহণ করতে পারে সেই লক্ষ্যে সারা দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে থাকছে আইসিটি অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ এর বুথ। প্রতিযোগিতাটিতে কয়েক লাখ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন গভর্নিং বডির অন্যতম সদস্য আশরাফুল ইনসান ইভান।

জানা যায়, প্রতিযোগিতায় রেজিস্ট্রেশন করার পর থেকে পাঁচ মাস পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা দক্ষ মেন্টরদের মাধ্যমে নিজেদের আইসিটি জ্ঞানকে প্রসারিত করে নিতে পারবে। আইসিটি খাতে বিশ্বমানের জ্ঞানার্জনের মাধ্যমে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা যাতে এগিয়ে থাকে সেই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই আইসিটি অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ আয়োজিত হচ্ছে বলে জানান অনুষ্ঠানে উপস্থিত আয়োজকবৃন্দ।

ইত্তেফাক/এএইচপি