বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

যা যা খেতেন ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ 

আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:২৯

দিনে চারবেলা খাবার খেতেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। তবে প্রতিবেলাই খুব কম পরিমাণেই আহার করতেন তিনি। দীর্ঘদিন রানির রাঁধুনি ড্যারেন ম্যাকগ্রেডি সম্প্রতি জানিয়েছেন রানি কী কী খাবার পছন্দ করতেন। দিনে কয়বেলা খেতেন এসব তথ্য। চলুন জেনে নেওয়া যাক, ‘হার মেজেস্টি’র খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে।

ম্যাকগ্রেডি জানিয়েছেন, দিনে চারবেলা খাবার খান দ্বিতীয় এলিজাবেথ। তবে প্রতিবেলাই খুব কম পরিমাণেই আহার করতেন তিনি। ১৯৮২ ও ১৯৯৩ সালে ম্যাকগ্রেডি যখন রানির ব্যক্তিগত শেফ ছিলেন, তখন রানি সকালের জলখাবার, দুপুরের খাবার, বিকেলের চা ও রাতের খাবার খেতেন।

সকালের নাস্তায় রানি চা, বিস্কিট ও এক বাটি সিরিয়াল খান। এরপর দুপুরের খাবারে তার পাতে থাকে গ্রিলড ফিশ, অল্প রান্না করা স্পিনিচ শাক বা কুরজেট। এছাড়া মাঝেমধ্যে গ্রিলড চিকেনও খান তিনি।

এরপর বিকেলের চা পানের পালা। চায়ের সঙ্গে জ্যাম আর স্কোন উপভোগ করতেন তিনি। পৃথিবীর যে প্রান্তেই যান না কেন, বিকেলের চা না হলে চলেই না রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের- এমনটাই জানিয়েছেন শেফ ম্যাকগ্রেডি। 

ম্যাকগ্রেডি যখন প্রাসাদে রান্না করতেন, তখন সেখানে ২০ জন রাঁধুনি ছিলেন। রাজপ্রাসাদের নিয়ম অনুযায়ী, প্রধান রাঁধুনি সপ্তাহে দুইবার রানিকে একটি খাবারের তালিকা দিয়ে দিতেন। সেখান থেকে রানি খাবার পছন্দ করতেন।

তবে কোনো খাবার খাওয়ার পরে ভালো না লাগলে সেটা শেফদের মুখের ওপর কখনো বলেননি রানি। ম্যাকগ্রেডি জানান, এরকম ক্ষেত্রে একটি নোটবুকে ছোট করে নোট লিখে রাখতেন রানি। ‘এ খাবার আর খেতে চাই না’- এ ধরনের কথা লেখা থাকতো খাতাটিতে।

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ মোরকেম বে পটেড শ্রিম্প (চিংড়ি) আর টোস্ট খেতে ভীষণ পছন্দ করতেন। চিংড়িগুলোকে মসলাদার মাখন দিয়ে রান্না করা হতো। এরপর গরম গরম টোস্টের সঙ্গে এগুলো খেতেন তিনি।

মসলাদার খাবার কম খেলেও মিষ্টি জাতীয় খাবারের ক্ষেত্রে রানি বিশেষ বাছবিচার করতেন না বলেই জানিয়েছেন ম্যাকগ্রেডি। শারবোনেল এট ওয়াকার, বেনডিক্স, প্রেস্টাট- ইত্যাদি চকলেট রানির দারুণ পছন্দের ছিলো।

ম্যাকগ্রেডির সময়কার দ্বিতীয় এলিজাবেথের আরেকটি প্রিয় খাবার ছিল ক্রোক মঁসিয়ে স্যান্ডউইচ। গ্রুইয়ের পনির, হ্যাম, ও ডিম সহযোগে এ স্যান্ডউইচ খেতে পছন্দ করতেন তিনি।

দিনে চারবেলা স্বল্পাহারের পাশাপাশি খানিকটা মদও পান করতেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। তুতো বোন মার্গারেট রোডসের তথ্যমতে, রানির পছন্দের পানীয় হচ্ছে জিন ও ডাবনেট বা শ্যাম্পেন।

রানি রসুন বা পেঁয়াজ পছন্দ করতেন না। বাকিংহাম প্যালেসে কখনো রসুনের ব্যবহার হয়নি। ব্যক্তিগত শেফ-এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আপনি কেবল একজনের জন্য রান্না করছেন। তাই সে ব্যক্তির স্বাদটাই মুখ্য।

রানি পছন্দ না করলেও প্রিন্স ফিলিপ প্রচুর রসুন ও মসলাসমৃদ্ধ খাবার খেতে পছন্দ করতেন বলে জানিয়েছেন ম্যাকগ্রেডি। খাবারের ব্যাপারে বেশ রসিক প্রিন্স। ভ্রমণের সময় কেউ যেন ফুড পয়জনিং-এর স্বীকার না হন, এজন্য কোথাও ভ্রমণে গেলে রাজপরিবারের সদস্যদের জন্য শেলফিশ বা রেয়ার মিট নিষিদ্ধ ছিলো।

ইত্তেফাক/কেকে