বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

হেডফোনের যত ভালো-মন্দ  

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:৪২

আজকাল হেডফোন ছাড়া যেন এক মুহূর্ত টিকে থাকা মুশকিল। কালের বিবর্তনে হেডফোন পেয়েছে নানা রূপ। হেডফোন ব্যবহারের উপকারিতার পাশাপাশি আছে নানা অপকারিতা। বাজারে অনেক কোম্পানির হেডফোন পাওয়া গেলেও আমরা দাম দেখেই হেডফোন যাচাই করি। শব্দ ও এর প্রভাব নিয়ে অতটাও চিন্তিত নই। অথচ হেডফোনের উপকারিতা ও অপকারিতা এই সবকিছুর সমন্বয়েই আসলে হেডফোন কেনা উচিত। সেজন্যেই আজ এর ভালো-মন্দ দুই নিয়েই আলোচনা করবো আমরা।

বোরিং সময় পার করতে হেডফোনের জুড়ি মেলা ভার

হেডফোনের ভালো দিক

বোরিং সময় পার করতে হেডফোনের জুড়ি মেলা ভার।
অন্য কাউকে বিরক্ত না করে মিডিয়া কন্টেন্ট উপভোগ করা যায়। 
মনোযোগ দিয়ে ক্লাস করতে কিংবা অনলাইন ক্লাসে ইন্টারেক্ট করতে উপকারি। 
প্রচণ্ড ভিড়ে যেখানে কথা বলা কষ্টদায়ক সেখানেও হেডফোন কার্যকরী।
ফোন হাতে না রেখেও এখন সহজেই ফোনের সাথে হেডফোন জুড়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায় সাউন্ড ও মিডিয়া।

উচ্চ শব্দে গান শোনার অভ্যাসে শ্রবণশক্তি কমে যেতে পারে

হেডফোনের মন্দ দিক

অনেকক্ষণ হেডফোন কানে গুজে রাখলে দাগ ও ব্যথা হয় কানে। 
রাস্তায় চলাচলের সময় চারপাশের বাস্তবতা থেকে দূরে সরিয়ে নেয়।
উচ্চ শব্দে গান শোনার অভ্যাসে শ্রবণশক্তি কমে যেতে পারে।
কমদামি হেডফোনে অনেক সময় বৈদ্যুতিক শক থেকে ভয়ংকর দুর্ঘটনা ঘটে।

ইত্তেফাক/আরএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন