বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শিশুর শরীরচর্চা হোক আনন্দময় 

আপডেট : ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:২৬

সম্প্রতি এক জরিপে বলা হয়েছে, বিশ্বের প্রায় সব দেশেই ১১ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশুরা শারীরিকভাবে সক্রিয় নয়। তারা যথেষ্ট পরিমাণ শরীরচর্চা বা খেলাধুলায় অংশ নিচ্ছে না। ফলে শিশুদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি হচ্ছে এবং মস্তিষ্কের বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। শুধু তাই নয়, তাদের সামাজিক মেলা-মেশার দক্ষতা কমছে। 

বাংলাদেশে করোনাকালীন সময়ে অনেক শিশু বাধ্য হয়ে ঘরে আটকে ছিল। এ কারণে শিশুরা অবসাদগ্রস্ত হয়েছে এবং তাদের মেজাজ ঘনঘন পরিবর্তন হওয়ার মতো লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করেছে। শুধু তাই নয়, ডিজিটাল মিডিয়ার প্রতি তাদের আসক্তি বেড়েছে।


অভিভাবক হিসেবে সঙ্গত কারণেই এ নিয়ে আপনি চিন্তিত। শিশুদের তো আর চাইলেই জিমে ভর্তি করানো সম্ভব না। কিন্ত চেষ্টা করলে তাদের কিছু সহজ ও আনন্দদায়ক ব্যায়াম শেখানো যায়। কি সেগুলো? তা জানাতেই তো এই লেখা

কারাতে কিংবা জুডো প্রশিক্ষণ
এখন অনেক জায়গায় জুডো কিংবা কারাতে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। আপনার শিশুকে এসব প্রশিক্ষণে ভর্তি করিয়ে দিতে পারেন। এতে তারা শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকার সুযোগ পাবে এবং মেলামেশার সুযোগ পাবে।

স্কোয়াট শেখান
আপনার শিশুকে স্কোয়াট শেখান। নিজে কাছে থেকে এ ব্যায়ামে আগ্রহ বাড়ান। এই শরীরচর্চা শিশুর সহ্য ক্ষমতা, ধৈর্য্য ও আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করে।


স্কিপিং
দড়িলাফ খেলার চল অনেকটাই উঠে গেছে। কিন্তু আপনি চাইলেই আপনার শিশুকে এই মজার খেলার সঙ্গে পরিচয় করাতে পারেন। প্রয়োজনে পুরো পরিবার খেলুন। তাতে একটি ভালো সময়ও কাটাতে পারবেন এবং আপনার শিশু শারীরিকভাবে সক্ষম থাকবে।

সুপারম্যান
কার্টুন কিংবা একশন ফিল্মের সুপারহিরোদের প্রতি শিশুদের বাড়তি আগ্রহ আছে। আপনার শিশুকে বাস্তবে সুপারম্যান বা হিরোর ভূমিকায় দৌড়ঝাঁপের সুযোগ করে দিন। একটি মাস্ক কিংবা কস্টিউম উপহার দিন। এভাবে শিশুর কল্পনাশক্তি বাড়ার পাশাপাশি আত্মবিশ্বাসও বাড়বে। 

ইত্তেফাক/আরএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন