মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

জাতি গঠনে বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়বদ্ধতা

আপডেট : ১৩ নভেম্বর ২০২২, ০০:৩০

বিশ্ববিদ্যালয় জ্ঞানচর্চার বাতিঘর। জ্ঞানের উদ্ভাবন, পরস্ফুটিন, সংরক্ষণ এবং প্রায়োগিক গবেষণার মাধ্যমে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ ও মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন নাগরিক তৈরির প্রয়াস থেকেই জন্ম বিশ্ববিদ্যালয়ের। বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তচিন্তার দ্বারকে উন্মোচিত করে—দেশের ইতিহাস, সংস্কৃতি, রাজনীতি, অর্থনীতি ও সমাজব্যবস্থার ক্রমধারাকে মূল্যায়িত করে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বিশ্ববিদ্যালয়কে আখ্যায়িত করেছেন বিদ্যা উত্পাদনাগার হিসাবে। যেখানে সদা নিত্যনতুন বিদ্যা জন্ম নেবে এবং বিদ্যার্থীদের জাতির উপযোগী দক্ষ, যোগ্য, সার্থক ও কল্যাণকামী সদস্য হিসেবে গড়ে তুলবে।

জন্ম থেকে মৃত্যু অবধি মানুষের জীবনকে তিনটি স্তরে ভাগ করা যায়। আহরণ, পরস্ফুিটন এবং প্রতিফলন। আহরণ—অর্থ সঞ্চয় করা, পৃথিবীর অসীম ভান্ডার থেকে জ্ঞান, তথ্য, ন্যায়-নীতিবোধ, মূল্যবোধ সংগ্রহ করা। আমাদের এই পর্বটি সম্পূর্ণ হয়ে থাকে প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্র থেকে। এরপর পরস্ফুিটিত হওয়ার পালা, অর্জিত জ্ঞানকে বিকশিত করার পালা। এই কাজটি সম্পূর্ণ করে বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয় আমাদের পূর্বে আহরিত সব জ্ঞান প্রক্রিয়াকরণ করে প্রয়োগের উপযোগী করে তোলে। জ্ঞানের পূর্ণতা দান করে সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রয়োজন মেটাতে চেষ্টা করে, যা প্রতিফলনের পর্বকে ত্বরান্বিত করে, স্থায়িত্ব করে। এখানেই বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্থকতা। 

বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্বের যাবতীয় জ্ঞানভান্ডারের রক্ষক। কেবল রক্ষক নয়; সেই জ্ঞানকে সাধনা, বোধশক্তি ও প্রজ্ঞার মাধ্যমে বৃদ্ধি এবং পরবর্তী প্রজন্মের কাছে উপস্থিত করাও তার দায়িত্বের মধ্যে বর্তায়, যা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে মানসম্পন্ন চিন্তাচেতনা দ্বারা সমাজ ও রাষ্ট্রের সামাজিক, আর্থসামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সীমাবদ্ধতা এবং সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে বিশ্লেষণ ও সমাধানের প্রতি প্রত্যয়ী করে তোলে। এখান থেকেই সৃষ্টি হয় দায়বদ্ধতার জায়গাটি। এ দায়বদ্ধতা বিবেক-বুদ্ধির জাগরণের, ইতিহাস-ঐতিহ্য রক্ষার, সত্য-সুন্দর প্রতিষ্ঠার, অন্ধকারের বিপরীতে আলোর মশাল হয়ে দাঁড়াবার। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যার্থীরা হবেন সর্বাধুনিক। সময়, যুগ ও সমাজসচেতন। ইতিহাসও বলে সে কথাই। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ—সর্বক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ভূমিকা ছিল অনস্বীকার্য। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যার্থীরা হবেন সব অন্যায়, অত্যাচার ও অবিচারের বিরুদ্ধে মূর্ত প্রতীক। সাড়া দেবেন সমাজ, রাষ্ট্রের যে কোনো প্রয়োজনে। কখনো সমাজের আকাশে কালো মেঘ ঘনীভূত হলে আবির্ভূত হবেন আলোক দিশারি হয়ে। একদিকে তারা যেমন হবেন অসীম জ্ঞান-গরিমার আধার, তেমনি সত্য, ন্যায়, সহযোগিতা, সহমর্মিতা, মূল্যবোধসহ সব মানবীয় গুণাবলির ধারক ও বাহক। তাদের চিন্তাচেতনা হবে যৌক্তিক ও সময় উপযোগী। তারা ভাববেন সমাজে সৃষ্ট নিত্যনতুন সমস্যা নিয়ে। সৃজনশীলতা দিয়ে বের করবেন তার সমাধান। এভাবে সৃষ্টিশীল কাজের মাধ্যমে প্রবর্তিত হবেন জাতির কান্ডারির ভূমিকায়।

বর্তমানে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বাজারমুখী ও কর্মসংস্থানের উপযোগী বিদ্যার বড্ড কদর; প্রয়োজনের নিরিখে যা স্বীকার্য। অন্যদিকে সৃজনী মানসিকতা, মুক্তচিন্তা ও বোধের জায়গা তৈরিতে সহায়ক এমন বিদ্যার প্রতি অনীহা দারুণ। তাই এখন আমরা প্রায়শই দেখতে পাই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যার্থীদের মানবিকতা খোয়া যাচ্ছে। তারা মদ, গাঁজা, বিড়ি, সিগারেটে আসক্ত হচ্ছে। যুক্ত হচ্ছে সন্ত্রাস, রাহাজানি, জঙ্গিবাদের সঙ্গে। অনেকে আবার বেছে নিচ্ছে আত্মহত্যার মতো গর্হিত পথ! যা জাতির স্বপ্নকে ভেঙে খানখান করে দিচ্ছে, ব্যথিত করছে হৃদয়। অথচ এই বিদ্যার্থীদেরই দেখতে পাওয়ার কথা ছিল আলোর মশাল হাতে, সমাজ সংস্কারের ভূমিকায়। এখন এই বিপথগামী বিদ্যার্থীদের বোধের জানালায় টোকা দিতে কে তুলবে মশাল?

উচ্চশিক্ষার দুটি মূলনীতি—কোনো বিষয়ে উচ্চতর ও বিশেষজ্ঞীয় জ্ঞানার্জন, শিক্ষানীতি ও প্রচলিত ধারণার ভিত্তিতে বলা যায়, সে বিষয়ে গবেষণা ও উচ্চতর ভাবনার ক্ষমতা ও দক্ষতা অর্জন করে নতুনতর জ্ঞান সৃজন, এবং অর্জিত ও সঞ্চিত জ্ঞানের মাধ্যমে মানবসমাজের কল্যাণে অবদান রাখার যোগ্যতা অর্জন। বিশ্ববিদ্যালয়কে এই পথে হাঁটতে হবে। শিক্ষাকে যেমন কার্যত ও ফলপ্রসূ করে তুলতে হবে, তেমনি করতে হবে বাস্তবিক ও প্রয়োগিক। জ্ঞানের পরস্ফুটিনকে যেমন দিতে হবে প্রাধান্য, তেমনি তৈরি করতে হবে সুকুমার কলাচর্চার যথোপযুক্ত পরিবেশ। শিক্ষাকে যেমন করতে হবে সহজলভ্য, তেমনি রুখতে হবে এর বাণিজ্যিকীকরণ। তবেই তৈরি হবে বোধসম্পন্ন বিদ্যার্থী। যারা পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র—বৃহৎ অর্থে এই মহাবিশ্বের দায়বদ্ধতা মেটাতে সক্ষম হবে।

লেখক : শিক্ষার্থী, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

 

ইত্তেফাক/ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন