সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

একদল ছবিয়ালের গল্প

আপডেট : ১৭ জানুয়ারি ২০২৩, ০৪:০৭

ক্যামেরার পেছনের মানুষ। ক্যামেরা হাতে ছুটে চলে এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তরে। প্রকৃতি ও জীবনবোধকে ফ্রেমবন্দি করা তাদের নেশা। তারা ছবির কারিগর নামেই পরিচিত। ক্যামেরায় ক্লিক শব্দের প্রতি অকৃত্রিম প্রেম হতেই এ নামের সূত্রপাত। এই ক্ষুদে ছবিয়ালদের প্রিয় ঠিকানা গণবিশ্ববিদ্যালয় ফটোগ্রাফিক সোসাইটি (জিবিপিএস)। তারা শুধু ছবি তোলেন না। সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে নানা ধরনের কাজ করে থাকেন। এটিই অন্য ফটোগ্রাফিক সংগঠনগুলো থেকে তাদের আলাদা করেছে।

দেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে ‘আলোকচিত্রীর চোখে ১৯৭১-এ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত স্থান এবং ঐতিহাসিক স্থাপনাসমূহ’ নিয়ে বিশেষ ছবি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে জনস্বার্থ বিষয়ক ছবি প্রতিযোগিতা প্রকল্প। এতে সহযোগী সংগঠন হিসেবে বেশ সুনাম কুড়িয়েছে জিবিপিএস। সংগঠনের সহ-সভাপতি সুপর্ণা রহমান টুছি বলেন, ‘২০১৯ সালে জিবিপিএসের পথচলা শুরু। সময়ের সঙ্গে আমরা বাংলাদেশ ফটোগ্রাফিক সোসাইটির প্রয়োজনীয় মান অর্জন করি। জাতীয় অঙ্গনে অ্যাফিলিয়েটেড সদস্যপদে তালিকাভুক্ত হয় আমাদের ফটোগ্রাফিক সোসাইটি।’

তারা শুধু নিজেরাই ফটোগ্রাফি করে না, ক্যাম্পাসে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জ্ঞান আহরণের সুযোগও করে দেয়। আয়োজন করে নানা ছবি প্রতিযোগিতা, প্রদর্শনী, কর্মশালা ও ফটোওয়াক। প্রদর্শনী ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. রুমন হাসান বলেন, ‘আলোকচিত্র উৎসব শিরোনামে আমরা ৭৪টি ছবির প্রদর্শনী করেছি। প্রদর্শনীতে এসেছিলেন দেশবরেণ্য কিংবদন্তী ও আলোকচিত্রশিল্পীরা। তা ছাড়া ‘ছবি মেলা’ ও ‘তৃতীয় চোখে অন্য জীবন’ শিরোনামে ব্যতিক্রমধর্মী ছবির প্রদর্শনী করা হয়। রমজানে অর্ধশত রিকশাচালক, নিরাপত্তাকর্মী সহ চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের মাঝে ইফতার বিতরণ করেছি। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ক্যাম্পাসে রোপণ হয় গাছের চারা।’ জিবিপিএস সভাপতি মো. রাকিবুল হাসান বলেন, ‘আমাদের সংগঠনটিকে শুধু জাতীয় পর্যায়ে নয়, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও পরিচিত করতে চাই।

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন