বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শ্রীমঙ্গলে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড

আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৬:০৭

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে গত তিনদিন ধরে চলছে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ। শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) সকালে শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া অফিসে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এ দিন সকাল ৬টায় এই তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন শ্রীমঙ্গলের আবহাওয়া পর্যবেক্ষক মো. মুজিবুর রহমান।

মৌলভীবাজার, কুমিল্লা, টাঙ্গাইল, কুষ্টিয়া ফরিদপুর, রাঙ্গামাটি, চুয়াডাঙ্গা জেলাসহ রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগসমূহের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়া অফিসের তথ্যমতে, দেশে ২ ডিগ্রি থেকে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা হলে অতি শৈত্যপ্রবাহ হয়। ৪ ডিগ্রি থেকে ৬ ডিগ্রি তাপমাত্রা থাকলে হয় তীব্র শৈত্যপ্রবাহ। ৬ ডিগ্রি থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা হলে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ হয়। ৮ ডিগ্রি থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা থাকলে তাকে বলে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ।

ছবি: সংগৃহীত

আবহাওয়া তথ্যের এই সারণী লক্ষ করেই শ্রীমঙ্গলে তিনদিন ধরে তাপমাত্রা ক্রমশ হ্রাস পাচ্ছে। গত ১৭ জানুয়ারি শ্রীমঙ্গলে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ১০ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা ক্রমশ হ্রাস পেয়ে ১৮ জানুয়ারিতে ৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি, ১৯ জানুয়ারিতে ৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি এবং ২০ জানুয়ারি ৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসে।

গত কয়েকদিনে শ্রীমঙ্গলের তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় এখানে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সকালে ও রাতে দেখা যাচ্ছে ঘন কুয়াশা আর প্রবাহিত হচ্ছে হিমেল হাওয়া। কনকনে ঠাণ্ডা বাতাসে জবুথবু হয়ে পড়ছেন বৃদ্ধ ও শিশুরা। কাজে যেতে না পেরে বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কৃষকের বীজতলা। গ্রাম ও চা বাগানগুলোতে জ্বর, সর্দি, কাশি ইত্যাদি ঠাণ্ডাজনিত রোগের প্রকোপ বেড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা।

ইত্তেফাক/এসকে