মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন-তথ্য: নতুন পর্যবেক্ষণ

আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১১:১২

মৌলিক ও প্রামাণ্য-তথ্য অন্বেষণকারী নাট্যকার ও গবেষক সাইমন জাকারিয়া রচিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন-তথ্য: নতুন পর্যবেক্ষণ বইটি প্রকাশ করেছে আগামী প্রকাশনী। বইটি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী-গবেষণার জন্য একটি আকর-প্রকাশনা হিসেবে বিবেচিত হবে। এই বইয়ের পৃষ্ঠায় লেখক এ যাবৎ প্রকাশিত বিভিন্ন গ্রন্থ ও প্রকাশনা থেকে জাতির পিতার জীবন-তথ্যের নানা অসংগতি চিহ্নিত করেছে, একই সঙ্গে প্রতিটি অসংগতি দূর করার জন্য যথাযথ প্রামাণ্য নিদর্শন উপস্থাপনের মাধ্যমে প্রকৃত তথ্য শনাক্ত ও উপস্থাপন করেছেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন-তথ্য: নতুন পর্যবেক্ষণ বইটির বিশেষ আলোচ্য বিষয় জাতির পিতার বাংলা জন্ম-তারিখ। এই বইয়ের লেখক সুনির্দিষ্ট তথ্যপঞ্জি উদ্ধৃতি করে দেখিয়েছেন বিভিন্ন প্রকাশনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মের ৬টি বাংলা তারিখ প্রচলিত রয়েছে। এ ধরনের মত-মতান্তর যথাযথ প্রামাণ্য-তথ্যের আলোকে বিশ্লেষণের মাধ্যমে সাইমন জাকারিয়া এই বইয়ে সঠিক তথ্য খুঁজে বের করেছেন এবং প্রামাণ্য হিসাবে শতাধিক বছর পূর্বের পঞ্জিকার পৃষ্ঠার ছবি উপস্থাপন করেছেন। জাতির পিতার বাংলা তারিখ সঠিকভাবে নিরুপণ ও উল্লেখের প্রয়োজনীয়তা ও যুক্তি হিসেবে সাইমন উল্লেখ করেছেন যে, বাংলা তারিখ ব্যবহারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। ১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দে তিনি তাঁর প্রণীত ‘আমাদের বাঁচার দাবি ৬-দফা কর্মসূচী’র প্রকাশিত পুস্তিকাতে এবং ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ও রাষ্ট্রদূতদের মধ্যে বিতরণের জন্য মুদ্রিত বাংলা নববর্ষের কার্ডে বাংলায় স্বাক্ষরসহ বাংলা তারিখ ব্যবহার করেন। তার সেই নীতি ও আদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে লেখক ঐতিহাসিক-পদ্ধতি অনুসরণে বিভিন্ন স্থানে মুদ্রিত নানা মত-মতান্তর পরীক্ষাপূর্বক এই বইটিতে প্রধানত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মের বাংলা তারিখ সুনির্দিষ্ট করেছেন। যা এ বইটির সবচেয়ে গুরুত্বের দিক।

এছাড়া, এই বইয়ে অন্য যে বিষয়গুলো যুক্তির নিরিখে উপস্থাপন করা হয়েছে, সেগুলো হলো ক) জাতির পিতার জন্মের মুহূর্ত নিয়ে প্রচলিত নানা ধরনের কিংবদন্তি বিচার, খ) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামকরণের ইতিহাস অন্বেষণ, গ) গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পঞ্চম পূর্বপুরুষ শেখ বোরহানউদ্দিনের বসতি স্থাপনের কারণ ও সময়-কাল নিরুপণ, ঘ) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদাতা পিতা-মাতার নামের বানানের সমস্যা দূরীকরণ এবং ঙ) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন পালনের সচিত্র ইতিহাস।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন-সংক্রান্ত প্রায় সকল তথ্যের নানা ধরনের অসংগতি ও মত-মতান্তর নিখুঁতভাবে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে যুক্তিনিষ্ঠ প্রামাণ্য তথ্য উপস্থাপনের মাধ্যমে এই বইয়ের লেখক যে প্রজ্ঞা, মেধা ও সাহসের পরিচয় দিয়েছেন তা অভিনন্দনযোগ্য। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপনের মহাযজ্ঞের ভেতর দিয়েও বঙ্গবন্ধুর জীবন-তথ্যের যে অমীমাংসিত সত্য প্রকাশ হতে পারেনি এই বই সেই সত্য প্রকাশে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। এ ধরনের একটি প্রয়োজনীয় বই প্রকাশের মাধ্যমে আগামী প্রকাশনীও প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছে।

বইটি উৎসর্গ করা হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ উত্তরাধিকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। উৎসর্গপত্রে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে লেখক লিখেছেন, ‘আপনার প্রজ্ঞা ও দেশনায় বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের ইতিহাস প্রতিটি ক্ষণে হয়ে উঠছে স্বর্ণোজ্জ্বল/একমাত্র আপনিই পারেন যুক্তির মানদণ্ডে নির্ণীত সত্যকে প্রতিষ্ঠা করতে।’ আমাদের বিশ্বাস লেখকের এই অভীপ্সা পূর্ণতা পাবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য উত্তরাধিকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকৃষ্ট হলে নিশ্চয় তিনি প্রকৃত সত্য প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগী হবেন এবং লেখকের স্বপ্ন, পরিশ্রম, সাধনা সফল হবে।

সবশেষে এই বইয়ের শুরুতে মুদ্রিত বাংলা একাডেমির প্রয়াত সভাপতি অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান স্বাক্ষরিত ‘অভিমত’টি প্রণিধানযোগ্য। তিনি লিখেছেন ‌‘পূর্বে প্রকাশিত বিভিন্ন গ্রন্থ ও প্রকাশনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মের বাংলা তারিখ ও প্রাসঙ্গিক তথ্য সম্পর্কে নানা ধরনের মত ও মতান্তর প্রত্যক্ষ করা যায়, যা বিভ্রান্তিকর। সেই বিভ্রান্তি দূরীকরণে এই গ্রন্থে পূর্বে প্রকাশিত সকল মত ও মতান্তর পরীক্ষা করা হয়েছে। সেই সাথে যথাযথ পর্যালোচনার মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মের বাংলা তারিখ ও প্রাসঙ্গিক বিষয়াবলি সম্পর্কে তথ্যনির্ভর যুক্তি উপস্থাপন করা হয়েছে। ... গবেষক প্রামাণ্য তথ্য প্রকাশে যে পরিশ্রম ও অভিনিবেশের পরিচয় দিয়েছেন তা প্রশংসনীয়’।

ইত্তেফাক/এসসি