শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

জাপান-দক্ষিণ কোরিয়া আলোচনার আগে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ উত্তর কোরিয়ার

আপডেট : ১৬ মার্চ ২০২৩, ১১:১১

দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের মধ্যে ঐতিহাসিক বৈঠকের ঠিক আগে উত্তর কোরিয়া একটি আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) নিক্ষেপ করেছে। বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) সকালে দেশটি এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করে। আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদন বলা হয়, বৈঠকে যোগ দিতে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের বিমান জাপানের উদ্দেশে রওনা হওয়ার ঠিক আগে উত্তর কোরিয়া নিষিদ্ধ ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করে। বৃহস্পতিবার সকালে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা পিয়ংইয়ংয়ের দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম)

উৎক্ষেপণের পর, উত্তর কোরিয়ার আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রায় এক হাজার কিলোমিটার (৬২০ মাইল) উড়ে যায় এবং জাপানের পশ্চিমে সমুদ্রে অবতরণ করে। গত সপ্তাহ থেকে পিয়ংইয়ং চতুর্থবারের মতো ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে। 

তবে অন্যান্য ক্ষেপণাস্ত্রগুলো স্বল্প পাল্লার ছিল। কোরীয় উপদ্বীপের আশেপাশে কয়েক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়ার মধ্যে এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণটি ঘটে। উত্তর কোরিয়া বারবার জানিয়েছে, তারা এ ধরনের সামরিক মহড়াকে উসকানি হিসেবে দেখছেন।

 কোরীয় উপদ্বীপের আশেপাশে কয়েক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনীর জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ (জেসিএস) জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ১০ মিনিটে উত্তর কোরিয়ার পূর্ব উপকূলের পিয়ংইয়ং থেকে ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করা হয়। 

অন্যদিকে, জাপানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার সকালে ক্ষেপণাস্ত্রটি আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) বলে নিশ্চিত করেছে। দেশটি জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়ার এই ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রায় ৭০ মিনিট ধরে ৬ হাজার কিলোমিটারের বেশি আকাশে উড়েছিল।

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনীর জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ (জেসিএস)

তবে বৃহস্পতিবার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের পর, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক ইওল তার দেশের সেনাবাহিনীকে পরিকল্পনা অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি আরও জানিয়েছেন, উত্তর কোরিয়ার এই 'বেপরোয়া উসকানির' মূল্য দিতে হবে পিয়ংইয়ংকে।

ইত্তেফাক/ডিএস